Advertisement
৩০ জানুয়ারি ২০২৩

সাংসদ মেলা নিয়েও দ্বন্দ্ব

নরেন্দ্র মোদী সরকারের নানা প্রকল্পের সুফল প্রচারে আসানসোলে ১৩ তারিখ থেকে তিন দিনের ‘সাংসদ মেলা’ করতে চান বাবুল সুপ্রিয়। সোমবার পর্যন্ত তার অনুমতি মেলেনি। পুরসভা সোমবার জানিয়েছে, আয়োজনে ত্রুটি আছে। সেগুলি শুধরে ফের আবেদন করতে হবে।

নিজস্ব সংবাদদাতা
আসনসোল ও কলকাতা শেষ আপডেট: ১০ জানুয়ারি ২০১৭ ০৩:২৬
Share: Save:

নরেন্দ্র মোদী সরকারের নানা প্রকল্পের সুফল প্রচারে আসানসোলে ১৩ তারিখ থেকে তিন দিনের ‘সাংসদ মেলা’ করতে চান বাবুল সুপ্রিয়। সোমবার পর্যন্ত তার অনুমতি মেলেনি। পুরসভা সোমবার জানিয়েছে, আয়োজনে ত্রুটি আছে। সেগুলি শুধরে ফের আবেদন করতে হবে। এর জেরে ওই মেলা নিয়ে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল ও তৃণমূল পরিচালিত আসানসোল পুরসভার দ্বন্দ্ব গড়িয়েছে আদালতে। বাবুলের দাবি, রাজনৈতিক কারণে হয়রান করা হচ্ছে। তাঁর কথায়, ‘‘দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা। পুর কর্তৃপক্ষ যে আচরণ করছেন, তা নিন্দনীয়।’’ বাবুল জানান, আয়োজনকারী সংস্থা এ দিনই হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছে।

পুরসভার যে বিশেষজ্ঞ দল রবিবার মেলার মাঠ ঘুরে দেখেছে, তার প্রধান সুকোমল মণ্ডল জানান, দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদের ছাড়পত্র নেই। মেলা ও শৌচাগারের জল পড়ে পাশের পুকুর দূষিত হবে। ঢোকা-বেরনোর একমাত্র রাস্তা সংকীর্ণ। নেই গাড়ি রাখার উপযুক্ত ব্যবস্থা। এই সব ত্রুটি শুধরে আবেদন করতে বলা হয়েছিল। মেয়র জিতেন্দ্র তিওয়ারির বক্তব্য, ‘‘মেলা বাতিল করিনি। শুধু নিয়ম মেনে আবেদন করতে বলেছি। ওঁরা কেন কোর্টে গেলেন, স্পষ্ট নয়।’’ এ দিনই তৃণমূলের এক কর্মসূচিতে জিতেন্দ্রবাবু বলেছেন, ‘‘৩ দশকের পুরনো বইমেলা শুরু হচ্ছে ওই দিন। শহরের ঐতিহ্য ও মানুষের আবেগকে আঘাত করতেই সে দিন থেকে সাংসদ মেলার আয়োজন হচ্ছে। সেখানে যোগ না দেওয়াই উচিত।’’ এই তরজা, মামলা ও বয়কটের ডাকের মধ্যেও সাংসদ মেলার প্রস্তুতি কিন্তু বন্ধ হয়নি। এ দিন স্টল তৈরি, মঞ্চ বাঁধার কাজের তদারক করেন বিজেপি নেতারা। দলের জেলা সভাপতি তাপস রায় বলেন, ‘‘বয়কটের ডাক দিয়ে মেলা ভেস্তে দেওয়া যাবে না।’’

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.