×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৪ মে ২০২১ ই-পেপার

এক দশক আগে মমতার ঘোষিত দক্ষিণেশ্বর মেট্রোর চাকা গড়াল মোদীর রিমোটে

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১৮:২৮
(বাঁ দিকে) নতুন মেট্রোপথের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মোদী। (ডান দিকে) ২০১১ সালে রেল বাজেট পেশ করার পর মমতা।

(বাঁ দিকে) নতুন মেট্রোপথের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মোদী। (ডান দিকে) ২০১১ সালে রেল বাজেট পেশ করার পর মমতা।
ছবি: ভিডিয়ো থেকে সংগৃহীত।

রিমোটের বোতাম টিপতেই দক্ষিণেশ্বর স্টেশনে চাকা গড়াল মেট্রোর। সোমবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর হাত ধরেই সূচনা হল কলকাতা শহরতলির মেট্রোপথের নতুন অধ্যায়। তবে সেই অধ্যায় ঘিরেও ফের মাথাচাড়া দিল পুরনো বিতর্ক।

তথ্য বলছে, এক দশক আগে ২০১১ সালে দক্ষিণেশ্বর মেট্রো প্রকল্পের ঘোষণা করেছিলেন তৎকালীন রেলমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার মোদী সেই মেট্রোপথের উদ্বোধনের পরেই কালক্ষেপ করেনি তৃণমূল। সেই তথ্য তুলে ধরেই তৃণমূলের দাবি, মমতার প্রকল্পের বাস্তবায়নের ফসলই ‘ঘরে’ তুলছেন মোদী। এমনকি, বাংলায় এই ‘নতুন’ রেলপথের উদ্বোধন ঘিরে মোদীর দাবিকে সরাসরি ‘মিথ্যে’ বলেছেন তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন।

বস্তুত, ২০১১ সালের বিধানসভা নির্বাচনের আগের বছর রেল বাজেটে নোয়াপাড়া-দক্ষিণেশ্বর মেট্রো প্রকল্পের ঘোষণা করেছিলেন তৎকালীন রেলমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধায়। ঘটনাচক্রে, সোমবার তারই উদ্বোধন করলেন মোদী। হুগলির সাহাগঞ্জের ডানলপ মাঠ থেকে নোয়াপাড়া-দক্ষিণেশ্বর মেট্রোর সবুজ সঙ্কেত দেওয়ার কিছু ক্ষণের মধ্যেই টুইটারে তোপ দেগেছেন ডেরেক। তিনি লিখেছেন, ‘আজ বাংলায় নতুন রেলপথ চালুর দাবি করেছেন প্রধানমন্ত্রী। মিথ্যে কথা! মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রেলমন্ত্রী থাকাকালীনই ২০১১ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি রেল বাজেটে তা বরাদ্দ করেছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর টেলিপ্রম্পটারের এই মিথ্যা ধরা পড়েছে প্রেস ইনফরমেশন ব্যুরোর তথ্যেই। নিজেরাই দেখুন’। ওই টুইটে প্রধানমন্ত্রীর দফতরকে ট্যাগও করেছেন তিনি। সঙ্গে এক দশক আগে রেলবাজেটে বরাদ্দ করা সেই প্রকল্পগুলিও তাঁর টুইটে তুলে দিয়েছেন ডেরেক।

Advertisement
সোমবার উদ্বোধন হলেও দক্ষিণেশ্বর মেট্রোর পরিষেবা চালু হবে মঙ্গলবার।

সোমবার উদ্বোধন হলেও দক্ষিণেশ্বর মেট্রোর পরিষেবা চালু হবে মঙ্গলবার।
ছবি: পিটিআই।


সোমবার দক্ষিণেশ্বর মেট্রোর উদ্বোধন করা ছাড়াও একাধিক রেল প্রকল্পেও সবুজসঙ্কেত দেখান মোদী। কলাইকুণ্ডা এবং ঝাড়গ্রামের মধ্যে তৃতীয় লাইন, আজিমগঞ্জ এবং খাগড়াঘাট রোড শাখার দ্বিতীয় লাইন, হাওড়া-বর্ধমান কর্ড লাইনে ডানকুনি এবং বারুইপাড়ার মধ্যে চতুর্থ লাইন, হাওড়া-বর্ধমান মেন লাইনে রসুলপুর এবং মগরার মধ্যে তৃতীয় লাইনও রয়েছে। তার আগে সাহাগঞ্জের জনসভায় মোদী বলেন, ‘‘উন্নয়নের পথে আজ বড়সড় পদক্ষেপ করল বাংলা। এর আগে যখন এখানে এসেছিলাম, সে সময় গ্যাসের সংযোগ, পরিকাঠামোগত প্রকল্প উপহার দিয়েছিলাম। আজ রেল এবং মেট্রো সংযোগে গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলির উদ্বোধন হবে।’’ সেই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘এই নতুন রেল লাইনগুলি থেকে জীবন সহজ হবে। কারণ এগুলিই আত্মনির্ভর ভারতের লক্ষণ।’’


তবে মোদীর এই দাবি যে ‘ভুয়ো’, তেমন অভিযোগ তুলতে শুরু করেছে তৃণমূল। বিধানসভা নির্বাচনের আগে এই প্রকল্পগুলির উদ্বোধন ঘিরেই রাজ্যের আম জনতার মন জয়ের চেষ্টা করা হচ্ছে বলেও সরব হয়েছে শাসকদল। তবে তার মধ্যে বহু প্রতীক্ষিত দক্ষিণেশ্বর মেট্রো যে আদতে মমতার ‘সাধের’ প্রকল্প এবং মোদী যে তার উদ্বোধনের দিনে তাতে ‘ভাগ’ বসাতে চাইছেন, সে দাবিও জোরালো করেছে তৃণমূল।

Advertisement