×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০৪ অগস্ট ২০২১ ই-পেপার

রাজভবনে গেলেন না অফিসাররা, রাজ্যপালের জরুরি ডাক মুখ্যমন্ত্রীকে

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ০৫ অক্টোবর ২০২০ ১৫:৩৭
গ্রাফিক: শৌভিক দেবনাথ।

গ্রাফিক: শৌভিক দেবনাথ।

তিনি গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছিলেন রবিবার রাতেই। তাঁর সঙ্গে ব্যারাকপুর শিল্পাঞ্চলে বিজেপির সামনের সারির নেতা মণীশ শুক্লর খুনের ঘটনার প্রেক্ষিতে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় রাজভবনে তলব করেছিলেন স্বরাষ্ট্রসচিব এবং রাজ্য পুলিশের ডিজি-কে। কিন্তু দু’জনের কেউই রাজ্যপালের তলবে সাড়া দিলেন না। ফলে ফের টুইটারে তোপ দাগলেন ধনখড়। মুখ্যমন্ত্রীর কাছ থেকেও কোনও উত্তর মিলছে না বলে জানালেন। তবে মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় সোমবার রাজভবনে গিয়ে কথা বলেছেন ধনখড়ের সঙ্গে। প্রশাসনের একাংশ অবশ্য এটাকে রাজ্যের সাংবিধানিক প্রধানের সঙ্গে নতুন মুখ্যসচিবের সৌজন্য সাক্ষাৎ হিসাবেই ব্যাখ্যা করছে।

রবিবার রাত ১১টা ৪০ মিনিটে টুইট করেছিলেন ধনখড়। মণীশের হত্যাকে ‘কাপুরুষোচিত’ আখ্যা দিয়েছিলেন। রাজ্যে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি সাংঘাতিক অবনতির দিকে যাচ্ছে বলে তোপ দেগেছিলেন। পরিস্থিতি সম্পর্কে কথা বলার জন্য রাজ্যের স্বরাষ্ট্রসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদী এবং রাজ্য পুলিশের ডিজি বীরেন্দ্রকে সোমবার সকাল ১০টায় তিনি রাজভবনে ডেকে পাঠিয়েছেন বলেও রাজ্যপাল জানিয়েছিলেন।

স্বরাষ্ট্রসচিব বা ডিজি কিন্তু এ দিন রাজভবনে যাননি। সকাল ১০টায় তাদের রাজভবনে ডাকা হয়েছিল। কিন্তু কেউ হাজির না হওয়ায় রাজ্যপাল ১০টা ২ মিনিটে টুইট করেন। তিনি লেখেন, ‘‘আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ভয়ঙ্কর ভাবে মুখ থুবড়ে পড়ছে। সাংবিধানিক প্রধান সতর্ক করা সত্ত্বেও নিশানা করে খুন করা হচ্ছে। না স্বরাষ্ট্রসচিব, না ডিজি, কেউ উত্তর দেননি।’’

Advertisement



রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের। নিজস্ব চিত্র।

এতেই থামেননি ধনখড়। রবিবার রাত ১০টা ৪৭ মিনিটে তিনি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কী লিখেছিলেন, তা-ও এ দিন টুইটারে জানিয়েছেন। ‘‘জরুরি ভিত্তিতে আপনার সঙ্গে কথা বলতে চাই’’, রবিবার রাতে মুখ্যমন্ত্রীকে তিনি এ কথাই লিখেছিলেন বলে রাজ্যপাল জানিয়েছেন। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রীর কাছ থেকেও কোনও উত্তর মেলেনি বলে রাজ্যপালের দাবি। তাঁর কথায়, ‘‘শুধুমাত্র নীরবতা অনেক কথা বলছে।’’


আরও পড়ুন: মঙ্গলবার পশ্চিম মেদিনীপুর ও ঝাড়গ্রাম সফর শুরু মুখ্যমন্ত্রী মমতার

রাজ্যপালের তলব পেয়ে স্বরাষ্ট্রসচিব বা ডিজি রাজভবনে আদৌ যাবেন কি না, তা নিয়ে জল্পনা কিন্তু রবিবার রাত থেকেই শুরু হয়েছিল। রাজ্যপালের তলব আদৌ পেয়েছেন কি না, পেয়ে থাকলে তাতে সাড়া দেওয়া হবে কি না, তা নিয়ে কোনও প্রতিক্রিয়া রাজ্য প্রশাসনের তরফে দেওয়া হয়নি। তাই রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের অনেকেই মনে করছিলেন যে, রাজ্যের দুই শীর্ষ আমলা সোমবার রাজভবনে যাবেন না। ঘটলও ঠিক তেমনই।


তবে যাঁদের তলব করা হয়েছিল, তাঁরা হাজিরা না দিলেও মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় এ দিন রাজভবনে যান। ধনখড়ের উষ্মা তাতে কিছুটা হলেও প্রশমিত হয়। আলাপনের সঙ্গে বৈঠক সেরে ফের টুইট করেন রাজ্যপাল এবং জানান যে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়েই কথা হয়েছে। তিনি লিখেছেন, ‘‘বর্তমান আশঙ্কাজনক পরিস্থিতির বিষয়ে আমার উদ্বেগ নতুন মুখ্যসচিবকে জানিয়েছি।’’ তাঁর উদ্বেগের কথা মুখ্যমন্ত্রীকে বিশদে জানানো হবে বলে তিনি নিশ্চিত, এমনও লেখেন রাজ্যপাল। দুপুর দেড়টার সেই টুইটে রাজ্যপালের বার্তা, ‘‘রাজনৈতিক হিংসা এবং নিশানা করে হত্যা বন্ধ হতেই হবে।’’

Advertisement