Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

০৪ ডিসেম্বর ২০২১ ই-পেপার

মজুরি পাচ্ছেন না অর্ণবেরা

প্রদীপ্তকান্তি ঘোষ
২৪ ডিসেম্বর ২০১৮ ০২:৪৫
অর্ণব দাম। —ফাইল চিত্র।

অর্ণব দাম। —ফাইল চিত্র।

আলিপুর থেকে প্রেসিডেন্সি জেলে সরানো হয়েছে তাঁকে। কিন্তু তার পর থেকে মজুরি পাচ্ছেন না মাওবাদী বন্দি অর্ণব দাম। এর ফলে তাঁর পড়াশোনার খরচে টান পড়েছে বলে দাবি ওই মাওবাদী বন্দির ঘনিষ্ঠদের। তবে একা অর্ণব নন। সামগ্রিক ভাবেই বন্দিদের প্রাপ্য পারিশ্রমিক বকেয়া পড়ে যাওয়ার সমস্যা রয়েছে।

প্রেসিডেন্সি জেলে ইংরেজি পড়ান অর্ণব। সেই কাজে তাঁর দৈনিক পারিশ্রমিক ৮০ টাকা। কিন্তু গত ছ’মাস তিনি সেই পারিশ্রমিক পাননি। ফলে ন্যাশনাল এলিজিবিলিটি টেস্ট (নেট)-এর প্রস্তুতি চালানো এবং পিএইচডি সংক্রান্ত সারাংশ প্রস্তুত করার জন্য প্রয়োজনীয় অর্থে টান পড়ছে। তবে কারা দফতরের তরফে ইতিমধ্যেই নেট সংক্রান্ত ফর্ম পূরণ এবং বই কেনার জন্য অর্থ বরাদ্দের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে অর্ণবকে।

কিন্তু তাঁর দৈনিক পারিশ্রমিক হিসেবে মাত্র ৮০ টাকা দেওয়া হবে কেন, সেই প্রশ্ন তুলেছেন অর্ণব। তাঁর দাবি, তিনি স্নাতকোত্তর ডিগ্রিধারী। ফলে তাঁর ১০০ টাকা পারিশ্রমিক প্রাপ্য। অর্ণব জেল-কর্তৃপক্ষের কাছে এই দাবি একাধিক বার জানিয়েছেন বলে জানাচ্ছেন তাঁর ঘনিষ্ঠেরা।

Advertisement

সাধারণত দণ্ডিত বন্দিরাই কাজ করেন এবং তার বিনিময়ে পারিশ্রমিক পান। তবে বিচারাধীন কোনও বন্দি কাজ করার আবেদন জানালে জেল-কর্তৃপক্ষ তা বিবেচনা করেন। তার পরেই বিচারাধীন বন্দিরা কাজের সুযোগ পান। বিচারাধীন অর্ণবের ক্ষেত্রে সেটাই হয়েছে।

শুধু অর্ণবের নয়, রাজ্যের বিভিন্ন সেন্ট্রাল জেলেই বন্দিদের পারিশ্রমিক বকেয়া রয়েছে। জলপাইগুড়ি জেলে কয়েক জন বন্দির এক বছরের বেশি পারিশ্রমিক বকেয়া ছিল। কিছু দিন আগে একসঙ্গে কয়েক মাসের পারিশ্রমিক পেয়েছেন তাঁরা। এক কারাকর্তা বলেন, ‘‘আগের তুলনায় বন্দিদের পারিশ্রমিক অনেকটাই বেড়েছে। সেই জন্যই দেরি হচ্ছে। দ্রুত সমস্যা মিটে যাবে।’’

কর্মদক্ষতা ও পরিশ্রমের নিরিখে দণ্ডিত বন্দিদের তিন ভাগে ভাগ করা হয়। দক্ষ, কম দক্ষ এবং অদক্ষ। একদা তাঁদের পারিশ্রমিক ছিল যথাক্রমে ৫০, ৪০ এবং ৩০ টাকা। গত বছর থেকে তা বেড়ে হয়েছে যথাক্রমে ১০০, ৯০ এবং ৮০ টাকা।

কয়েক দিন আগেই ডিজি (কারা) অরুণ গুপ্তের সঙ্গে দেখা করে বন্দিদের পারিশ্রমিক নিয়মিত ভাবে দেওয়ার দাবি জানিয়েছে এপিডিআর। ওই সংগঠনের তরফে রঞ্জিত শূর বলেন, ‘‘বন্দিদের মজুরি সামান্যই। তা নিয়মিত দেওয়ার দাবি জানাচ্ছি আমরা। এই বিষয়ে পথসভা এবং সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে জনমতও গঠন করা হবে।’’

আরও পড়ুন

Advertisement