×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৮ মে ২০২১ ই-পেপার

‘কর্মীদের সম্মান’ নিয়ে দ্বন্দ্ব, রাজীবের বিরুদ্ধে অন্তর্ঘাতের অভিযোগ কল্যাণের

নিজস্ব সংবাদদাতা
শ্রীরামপুর ১৭ জানুয়ারি ২০২১ ১৯:৪৫
সাংবাদিক বৈঠকে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। নিজস্ব চিত্র

সাংবাদিক বৈঠকে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। নিজস্ব চিত্র

দলাীয় কর্মীদের সম্মানের প্রশ্নে এ বার রাজ্যের বনমন্ত্রী তথা তৃণমূল নেতা রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে বোমা ফাটালেন তৃণমূলের ‘ডাকাবুকো’ সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর বিস্ফোরক অভিযোগ, গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে ডোমজুড় থেকে দলের মনোনীত জেলা পরিষদ প্রার্থীকে ‘দাঁড় করিয়ে’ হারিয়েছিলেন রাজীব। এই সূত্রেই কল্যাণের পাল্টা প্রশ্ন, ‘‘উনি বলছেন কর্মীদের সম্মান দেওয়া হয় না। উনি নিজে তা দিতে পেরেছেন?’’

শনিবার ফেসবুক লাইভে রাজীব বলেন, ‘‘দলের কর্মীরা শুধু সম্মান চান। কেউ বলতে পারবেন না, দলের কর্মীরা আমার থেকে অসম্মান পেয়েছেন। আমার দলনেত্রীও এই একই কথা বলেন। কিন্তু কখনও দেখা যায় সেই কথা রাখা হয় না। কাজ করতে গিয়ে বাধা পেয়ে মুখ খুলেছি, সেটাকে অন্যায় মনে করি না।’’ বনমন্ত্রীর এই বক্তব্যের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তাঁর বিরুদ্ধে দলে ‘অন্তর্ঘাত’ করার মতো মারাত্মক অভিযোগ তুলেছেন কল্যাণ। রবিবার সাংবাদিকদের সামনে গত পঞ্চায়েত নির্বাচনের একটি ‘উদাহরণ’ তুলে ধরেন তৃণমূলের ওই আইনজীবী-সাংসদ। বলেন, ‘‘গত পঞ্চায়েত ভোটে ডোমজুড় থেকে জেলা পরিষদের প্রার্থী দেওয়া নিয়ে হাওড়া জেলার তৎকালীন অবজার্ভার ফিরহাদ হাকিম আমাদের ডেকে পাঠিয়েছিলেন। উনি বলেছিলেন, দল ঠিক করেছে কল্যাণ ঘোষকে প্রার্থী করা হবে। কিন্তু রাজীব সে কথা শুনে বলেছিল, কল্যাণ প্রার্থী হলে ও পদত্যাগ করবে। পরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আমাকে ডেকে বলেছিলেন, আমার ইচ্ছা ওখানে কল্যাণ ঘোষকে প্রার্থী করা হোক। আমি বলেছিলাম, আপনি যা বলবেন তাই হবে। উনি রাজীবকে বোঝানোর জন্য আমাকে বলেছিলেন। আমি রাজীবকে বোঝালাম। কিন্তু ও জেদ ধরেছিল। পরে সেই প্রার্থীকে নিজে দাঁড়িয়ে থেকে হারিয়েছিল। এদের কাছে আমাকে দলের নীতি শিখতে হবে? জ্ঞান শুনতে হবে?’’

কল্যাণের এই অভিযোগ রাজীবকে নিয়ে নতুন জল্পনার ইন্ধন জুগিয়েছে। তৃণমূল থেকে গেরুয়াশিবিরে যাওয়া নেতাদের ‘হাইব্রিড বিজেপি’ নেতা বলে কটাক্ষ করেছেন কল্যাণ। সেই সঙ্গে তাঁর খোঁচা, রাজ্য বিজেপিতে ‘‘দিলীপ ঘোষ এখন তিন নম্বর সারিতে চলে গিয়েছেন।’’ বিজেপির দুর্নীতির অভিযোগ নিয়ে স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতে তোপ দেগেছেন কল্যাণ। তাঁর মতে, ‘‘বিজেপি আগে নিজেদের ঘুঘুর বাসা ভাঙুক। দিলীপ ঘোষ দুর্নীতিগ্রস্ত। এক জন সাংসদ কখনও ৫ কোটি টাকা মূল্যের ফ্ল্যাটে বিনা পয়সায় থাকতে পারেন?’’

Advertisement
Advertisement