Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২১ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

বিপর্যয়ে লড়তে কি প্রস্তুত পুরসভা? আমপানের স্মৃতি উস্কে উঠছে প্রশ্ন

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ২০ মে ২০২১ ০৬:০৫
—ফাইল চিত্র।

—ফাইল চিত্র।

এক বছর আগে, আজকের দিনে রাজ্যের উপকূলে আছড়ে পড়েছিল ঘূর্ণিঝড় আমপান। তার তাণ্ডবে তছনছ হয়ে গিয়েছিল দুই ২৪ পরগনা এবং সুন্দরবনের বহু এলাকা। এমনকি খাস কলকাতায় একাধিক মৃত্যু ছাড়াও কয়েক হাজার গাছ উপড়ে পড়েছিল।

ঠিক এক বছরের মাথায় আরব সাগরে তৈরি হওয়া ঘূর্ণিঝড় ‘টাউটে’র প্রভাব এ রাজ্যে না পড়লেও শহরবাসীর অনেককেই সে মনে করিয়ে দিচ্ছে আমপানের সেই বিভীষিকাময় দিনের স্মৃতি। সেই সঙ্গে আগামী সপ্তাহে বঙ্গোপসাগরে একটি নিম্নচাপ তৈরি হওয়ার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে বলে জানিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া অফিস। সেই নিম্নচাপ থেকে ঘূর্ণিঝড় তৈরির আশঙ্কাও পুরোপুরি উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। আর তার ফলে অনেকেই প্রশ্ন তুলছেন, গত এক বছরে আমপানের মতো ঘূর্ণিঝড়ের মোকাবিলা করতে কতটা প্রস্তুতি নিয়েছে কলকাতা পুরসভা? বিশেষত প্রায় তিন মাসেরও বেশি সময় ধরে কলকাতা পুরসভার নির্বাচিত বোর্ড নেই।

তাই প্রশ্ন উঠেছে, আমপানের মতো কোনও শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় সত্যি সত্যি এ রাজ্যের উপকূলে আছড়ে পড়লে সামাল দিতে পারবে তো পুর প্রশাসকমণ্ডলীর দ্বারা পরিচালিত বোর্ড?

Advertisement

দিন কয়েক আগের এক বিকেলে ঘণ্টাখানেকের বৃষ্টিতেই কার্যত ভেসে গিয়েছিল শহরের একাংশ। রাজভবনের সামনে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যু হয়েছিল এক তরুণ ইঞ্জিনিয়ারের। তাই মাত্র এক ঘণ্টার বৃষ্টিতেই যদি শহরের এই হাল হয়, তা হলে বড় কোনও ঘূর্ণিঝড় এলে পরিস্থিতি কী হবে, সেই প্রশ্ন তুলছেন অনেকেই।

যদিও কলকাতা পুরসভার প্রশাসকমণ্ডলীর সদস্য দেবাশিস কুমার বলছেন, ‘‘আমাদের এখানে এখনও কোনও বড় ঘূর্ণিঝড় আসার পূর্বাভাস নেই। তবুও আমরা যাবতীয় পরিকাঠামো নিয়ে প্রস্তুত আছি। ঝড়ে গাছ ভেঙে পড়লে ১৬টি বরো ছাড়াও সদর দফতরে বিশেষ দল তৈরি রয়েছে। আধুনিক যন্ত্র দিয়ে দ্রুত গাছ কাটার ব্যবস্থাও রয়েছে।’’

তবে গত সপ্তাহে কলকাতায় মাত্র এক ঘণ্টার বৃষ্টিতে জমা জলের প্রসঙ্গে পুরসভার প্রশাসকমণ্ডলীর আর এক সদস্য তথা প্রাক্তন মেয়র পারিষদ (নিকাশি) তারক সিংহ বলেন, ‘‘সে দিন কলকাতায় এক ঘন্টায় ১০০ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছিল। অথচ ব্রিটিশ আমলের এই শহরের গঠনটাই এমন যে, প্রতি ঘণ্টায় মাত্র ১৫ মিলিমিটার বৃষ্টির জল বেরোতে পারে। তাই কলকাতায় বড় কিছু বিপর্যয় হলে একটু দুর্ভোগ তো পোহাতেই হবে।’’

আরও পড়ুন

Advertisement