Advertisement
২৭ নভেম্বর ২০২২

প্রতিবন্ধী ছাত্রীকে ‘মার’, ধৃত ২ শিক্ষিকা

গত ৯ মার্চ ওই স্কুলের এক শারীরিক ভাবে প্রতিবন্ধী ছাত্রীকে মারধরের অভিযোগ ওঠে। ঠিক ভাবে কথা বলার ক্ষমতা নেই, সোজা হয়ে দীর্ঘ ক্ষণ বসতেও অসুবিধা হয় তার।

প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।

নিজস্ব সংবাদদাতা
শেষ আপডেট: ১৮ মার্চ ২০১৮ ০১:৪৮
Share: Save:

স্কুলের প্রাক-প্রাথমিক স্তরের এক প্রতিবন্ধী পড়ুয়াকে মারধর ও হেনস্থার অভিযোগে গ্রেফতার করা হল স্কুলের দুই শিক্ষিকাকে। পুলিশ জানিয়েছে, হরিদেবপুর থানা এলাকার জোকার কলুয়া অবৈতনিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ঘটনাটি ঘটে। শনিবার গ্রেফতার করা হয় ওই স্কুলের অভিযুক্ত দুই শিক্ষিকাকে।

Advertisement

পুলিশ সূত্রের খবর, গত ৯ মার্চ ওই স্কুলের এক শারীরিক ভাবে প্রতিবন্ধী ছাত্রীকে মারধরের অভিযোগ ওঠে। ঠিক ভাবে কথা বলার ক্ষমতা নেই, সোজা হয়ে দীর্ঘ ক্ষণ বসতেও অসুবিধা হয় তার। তাই ক্লাস চলাকালীন ইঙ্গিতে জল খাওয়ার অনুমতি চেয়েছিল ওই ছাত্রী। তার জেরেই দু’জন শিক্ষিকা তাকে মারধর ও হেনস্থা করেন বলে অভিযোগ। স্কুলে অভিযোগ জানিয়ে কোনও লাভ না হওয়ায় শুক্রবার থানায় অভিযোগ করে ওই পড়ুয়ার পরিবার।

দক্ষিণ ২৪ পরগনার জেলা স্কুল পরিদর্শক (প্রাথমিক) উত্তম চট্টোপাধ্যায় জানান, গত শুক্রবার দু’পক্ষকে নিয়ে একটি বৈঠক করেন তিনি। সেখানে শিক্ষিকারা দাবি করেছিলেন তাঁরা কেউ ওই ছাত্রীকে মারধর করেননি। জল খেতে চেয়েছিল ওই ছাত্রী। কিন্তু জল দিলে পাছে কোনও ক্ষতি হয় তাই ক্লাস চলার সময়ে শিক্ষিকারা ওই ছাত্রীকে জল দেননি। তার জেরেই ওই পড়ুয়ার অভিভাবক মারধরের অভিযোগ করেছিলেন। উত্তমবাবু বলেন, ‘‘যেটাই হোক সেটা ঠিক হয়নি। স্কুলে বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুদের জন্য পৃথক ব্যবস্থা রয়েছে। প্রতিবন্ধকতা নিয়েও যারা স্কুলে আসে তারা যেন তাদের অধিকার পায় সেটাও নিশ্চিত করা প্রয়োজন। তেমন হলে ক্লাস চলার সময়ে ছাত্রীর মা স্কুলে থাকতে পারেন।’’ পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য প্রতিবন্ধী সম্মিলনীর যুগ্ম সম্পাদক অনির্বাণ মুখোপাধ্যায় বলেন, ‘‘ওই শিক্ষিকা বোধহয় জানেনই না যে এই সমস্ত শিশুদের প্রয়োজন কী। শিক্ষক-প্রশিক্ষণে এটা ভাল করে শেখানো উচিত।’’

Advertisement
(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.