Advertisement
২৮ মার্চ ২০২৩
ATM

এটিএম ভাঙার খবর পেয়ে ফিল্মি কায়দায় দুষ্কৃতীদের পাকড়াও করল পুলিশ

এ রাজ্যে এর আগে একাধিক এটিএম চুরির ঘটনার পিছনে এই দলটি জড়িত রয়েছে। রাজ্যের অন্যান্য থানাতেও বেশ কয়েকটি মামলা করেছে। সেই সব থানার পাশাপাশি সিআইডি কেও বিষয়টি জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

সাংবাদিক বৈঠকে পশ্চিম মেদিনীপুরের পুলিশ সুপার।

সাংবাদিক বৈঠকে পশ্চিম মেদিনীপুরের পুলিশ সুপার। নিজস্ব চিত্র।

নিজস্ব সংবাদদাতা
দাসপুর শেষ আপডেট: ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ২৩:৪৩
Share: Save:

এটিএম ভেঙে টাকা লুঠের আগেই পুলিশের তৎপরতায় ধরা পড়ে গেল আন্তঃরাজ্য চক্রের ৩ দুষ্কৃতী। আরও ৩ দুষ্কৃতী পলাতক। তাদের খোঁজে তল্লাশি ও নাকা চেকিং চলছে। মঙ্গলবার রাত্রে পশ্চিম মেদিনীপুরে দাসপুর থানা এলাকার গৌরার ঘটনা।

Advertisement

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার গভীর রাত্রে গৌরার এসবিআই এটিএম ভাঙা হচ্ছে বলে পুলিশের কাছে খবর আসে। দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছয় দাসপুর থানার পুলিশ। পুলিশ দেখেই গাড়িতে পালানোর চেষ্টা করে দুষ্কৃতীরা। শুরু হয় পুলিশের সঙ্গে দুষ্কৃতীদের ধস্তাধস্তি। পুলিশের হাত ছাড়িয়ে দুষ্কৃতীরা গাড়িতে পালিয়ে যায়।

তাদের ধাওয়া করে পুলিশ। কিছু দূর গিয়ে তারা দেখে, গাড়িটি রাস্তার ধারে রাখা। কিন্তু তার মধ্যে কেউ নেই। শুরু হয় আশপাশের এলাকায় তল্লাশি। রাতেই ৩ দুষ্কৃতীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। বাকিদের খোঁজে চলছে তল্লাশি। এটিএম থেকে দুষ্কৃতীরা টাকা লুঠ করতে পারেনি বলে জানা গিয়েছে।

পশ্চিম মেদিনীপুরের পুলিশ সুপার দীনেশ কুমার বুধবার সন্ধ্যায় সাংবাদিক বৈঠক করে জানান, এই দুষ্কৃতীরা আন্তঃরাজ্য এটিএম চুরির সঙ্গে জড়িত। এটিএম চুরির সময় সিকিউরিটি অ্যালার্ট মেসেজ পেয়ে দাসপুরের ওসি অমিত মুখোপাধ্যায় এবং ডেবরার ওসি প্রণব পাত্র একযোগে অভিযানে নামেন। ৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্যাস কাটার একটি পিস্তল ২টি কার্তুজ উদ্ধার হয়েছে। যে গাড়িটি ব্যবহার করেছিল সেটিও উদ্ধার হয়েছে। তবে ওই গাড়িতে ব্যবহৃত পশ্চিমবঙ্গের রেজিস্ট্রেশন নম্বরটি ভুয়ো। ২ থানার ওসির এই কাজের জন্য ২০ হাজার টাকা করে পুরস্কারও ঘোষণা করেন পুলিশ সুপার।

Advertisement

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ধৃতরা হরিয়ানার বাসিন্দা মুস্তাক ওরফে মোল্লা, পটনার বাসিন্দা ইমতিয়াজ আলি এবং অসমের শান্তিনগরের বাসিন্দা মিথুন রায়। এই দলের পাণ্ডা মুস্তাক। পুলিশ সুপার দীনেশ কুমার জানিয়েছেন, এ রাজ্যে এর আগে একাধিক এটিএম চুরির ঘটনার পিছনে এই দলটি জড়িত রয়েছে। রাজ্যের অন্যান্য থানাতেও বেশ কয়েকটি মামলা করেছে। সেই সব থানার পাশাপাশি সিআইডি কেও বিষয়টি জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, ধৃতরা জেরায় স্বীকার করেছে তারা একাধিক এটিএমে চুরির সঙ্গে জড়িত ছিল। এবং তারা যে রাজ্যে যায় সেখানকার গাড়ির নম্বর প্লেট ব্যবহার করে। এখানেও তাই করেছিল।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.