Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

০৬ ডিসেম্বর ২০২১ ই-পেপার

চা শ্রমিকদের জন্য প্রকল্প হয়নি, মন্তব্য শোভনের

নিজস্ব সংবাদদাতা
আলিপুরদুয়ার ০৫ মে ২০১৫ ০২:২০

রাজ্য সরকার অন্য কলকারখানার শ্রমিকদের জন্য নানা প্রকল্প চালু করলেও এখনও পর্যন্ত চা শিল্পের শ্রমিকদের জন্য কোনও প্রকল্প ঘোষণা করা হয়নি বলে জানিয়ে দিলেন তৃণমূলের শ্রমিক সংগঠনের কার্যকরী সভাপতি তথা বিধানসভার মুখ্য সচেতক শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়। তবে তিনি জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী চা শ্রমিকদের জন্য পৃথক একটি প্রকল্প রূপায়নের কথা ভাবছেন।

সোমবার আলিপুরদুয়ার পুর ভবনে আইএনটিটিইউসি-র শ্রমিক সমাবেশে এসে এ কথাই জানালেন শোভনবাবু। শোভনবাবুর এই মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে কার্যত অস্বস্তিতে পড়েছেন সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। তৃণমূলের শ্রমিক সংগঠনের সর্বভারতীয় সভানেত্রী দোলা সেন অবশ্য এ বিষয়ে মন্তব্য করতে চাননি। তাঁর সাফ কথা, ‘‘শোভনবাবু দলের বরিষ্ঠ নেতা। আমি সাংগঠনিক কোনও বিষয় নিয়ে কারও মন্তব্যের প্রেক্ষিতে কিছু বলব না।’’

ওই সভায় উপস্থিত ছিলেন রাজ্য তৃণমূল নেতা জহর মজুমদার এবং আলিপুরদুয়ারের সাংসদ দশরথ তিরকে। তাঁদের দুই জনই এক সুরে বলেছেন, সভা শুরু হবার কিছুক্ষণ বাদে সেখানে পৌঁছোই, যা শুনিনি তা নিয়ে এ বিষয়ে কোনও মন্তব্য করব না। শোভন বাবুর বক্তব্যকে সমর্থন করেছেন চা শ্রমিকদের বড় অংশ। সমর্থন করেছেন অন্য রাজনৈতিক শ্রমিক সংগঠনের নেতারাও।

Advertisement

এদিন পুর ভবনে প্রায় শ দুয়েক শ্রমিকদেরন নিয়ে সমাবেশের আয়োজন করেছিল আই এন টি টি ইউ এই সি। মুল বক্তা ছিলেন শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়। টানা কুড়ি মিনিটের বক্তব্যে তিনি বলেছেন, অসংগঠিত শ্রমিকদের জন্য বাম আমলে মাসিক ২২০০ টাকা মজুরি ছিল। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তা বাড়িয়ে ৬৮০০ টাকা করেছেন। তিনি বলেছেন, পরিবহন শ্রমিকদের জন্য মুক্তি কার্ড হয়েছে। অসংগঠতিত নির্মান শ্রমিক কর্মরত অবস্থায় মারা গেলে তার পরিবার ১ লক্ষ ৩৮ হাজার টাকা পর্যন্ত হাতে পাবেন। পরিবহন কর্মীরা বিমার আওতায় এসেছেন। তবে সে অর্থে চা শ্রমিকদের জন্য এই সরকার তেমন ভাবে কোনও পরিকল্পনা ঘোষণা করেন নি। শোভন বাবু অবশ্য তার ওই বক্তব্যের পরক্ষণেই সুর বদলে বলেছেন, চা শ্রমিকরা আগে পেতেন ৬৭ টাকা এখন তাঁরা ৯৫ তাকা মজুরি পাচ্ছেন। বন্ধ বাগানে খাদ্য আমসগ্রী দিচ্ছে সরকার। মুখ্য মন্ত্রী অবশ্য চা শ্রমিকদের জন্য পৃথক একটি প্রকল্প রূপায়নের কথা ভাবছেন। বন্ধ চা বাগানে যাতে না খেয়ে কোন শ্রমিক বা সেই পরিবারের লোকজন মারা না যান সে জন্য জমির অধিকার,বিদ্যুৎ এবং পানীয় জলের পরিষেবা সহ কয়েকটি প্রকল্প শীর্ঘ ঘোষণা কবেন সে কথা পরবর্তীতে টেলিফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানিয়ে দেন।

তৃনমূলের মুখ্য সচেতক তথা শ্রমিক নেতার বক্তব্য কে সমর্থন করেছেন বাম পন্থী দলের আর এস পি-র শ্রমিক সংগঠনের সাধারয়ণ সম্পাদক অশোক ঘোষ সহ সিটু নেতা তথা প্রাক্তন শ্রম মন্ত্রী অনাদি সাহু। অশোক বাবুর কথায়, ‘‘রাজ্যে পালাবলদের আগে পর্যন্ত যে মমতা বন্দোপাধ্যায় বন্ধ বাগানের শ্রমিকদের জন্য অবিরত চোখের জল ফেলেছেন আজ পরিবর্তনের পর মমতার পরিবর্তন হয়েছে। এখন তিনি মালিক দের পক্ষ অবলম্বন করছেন। শোভনবাবু ঠিক কথাই বলেছেন।’’

অনাদিবাবুর কথায়, আমাদের আমলে বন্ধ বাগানের শ্রমিকদের মাসিক অনুদান ৫০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১৫০০ টাকা কারা হয়েছে। চার বছরে তা দু হাজার টাকা করতে পারেনি এ সরকার। সিপিএম এম এর আলিপুরদুয়ার জেলা সম্পাদক কৃষ্ণ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, ‘‘শোভনবাবু ছাড়া তৃণমূলের অন্য নেতারা কেউ এই সত্য কথা বলবেন না। এই সরকারের আমলে যে আও শ্রমিকদের জন্য কোনও কাজ হয় নি তা শোভনবাবু ভাবে বলেছেন। সে জন্য তাঁকে ধন্যবাদ।’’

আরও পড়ুন

Advertisement