×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১১ মে ২০২১ ই-পেপার

বিআইএনে নিখোঁজ যুবক কাঁথিতে

নিজস্ব প্রতিবেদন
১৭ নভেম্বর ২০২০ ০৪:৩৬
পরিজনের সঙ্গে সাইফুর রহমান। নিজস্ব চিত্র.

পরিজনের সঙ্গে সাইফুর রহমান। নিজস্ব চিত্র.

কলকাতায় বাঙুর ইনস্টিটিউট অব নিউরোলজির ওয়ার্ড থেকে তিনি কী ভাবে উধাও হয়েছিলেন, তা এখনও রহস্য। তবে স্নায়ুর অসুখে কাবু রায়গঞ্জের কাছে হেমতাবাদের যুবকের হদিস কাঁথিতে মিলেছে।

আনন্দবাজারে তাঁর ছবিসহ উধাও হওয়ার দেখেছিলেন কাঁথি থানার সিভিক ভলান্টিয়ার বিপ্লব গিরি। ৩৪ বছরের সাইফুর রহমানকে দেখেই চিনতে পারেন তিনি।

কী ভাবে কাঁথিতে পৌঁছলেন সাইফুর? তা পরিষ্কার নয়। তবে ইতিউতি ঘুরছিলেন। চোর সন্দেহে ভুল বোঝাতে তিনি মার খান বলেও অভিযোগ। রবিবার রাতে কাঁথি দেশপ্রাণ ব্লকের ছনবেড়িয়া থেকে সাইফুরকে জখম অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে কাঁথি থানার পুলিশ। তাঁর পায়ে এবং চোখে আঘাত ছিল। হাসপাতালেই ডিউটি ছিল সিভিক ভলান্টিয়ার বিপ্লবের। তিনি জানালেন, স্ট্রেচারে শুইয়ে সাইফুরকে যখন হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল, তখন তাঁর কথা বলার শক্তিটুকুও ছিল না। সকালে একটু সুস্থ হতেই কথা বলেন। বিপ্লব বলেন, "ওঁকে দেখেই আমার আগের দিন কাগজে দেখা ছবিটা মনে পড়ে। কিছু ক্ষণ কথা বলার পরে উনি আমার ওঁর ভাইয়ের ফোন নম্বরও দেন।" বিপ্লবের কাছে খবর পেয়ে সোমবারই কাঁথি চলে যান সাইফুরের স্ত্রী রুবিনা খাতুন এবং ভাই ফাহিদুল রহমানের। রাতে একটা মোবাইল নম্বরও দেন। সেখানে যোগাযোগ করে পরে সাইফুরের স্ত্রী ও ভাইয়ের সঙ্গে ভিডিয়ো কলে কথা হয়। সোমবার দুপুরে তাঁরা কাঁথিতে চলে আসেন।

Advertisement

তবে সাইফুরকে ফিরে পেলেও কাঁথি থানায় কিছুটা অপ্রীতিকর পরিস্থিতির মুখে পড়তে হয় বলে অভিযোগ তাঁর স্ত্রী রুবিনা খাতুন এবং ভাই ফাহিদুল রহমানের। এত দিন হন্যে হয়ে কলকাতায় সাইফুরকে খুঁজছিলেন তাঁরা। এখন সাইফুরকে সঙ্গে নিয়েই তাঁরা ফিরবেন।

তবে কাঁথি থানয় অভিজ্ঞতা পুরো ভাল নয়। অভিযোগ ভুল বোঝাবুঝিতে পুলিশ চড় মেরেছে। ঘটনার তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গ্রামীণ)। সাইফুরকে ফের কলকাতায় হাসপাতালে ভর্তি করতে চান তাঁরা। প্রিয়জনকে ফিরে পেয়ে বার বার বিপ্লব ভাইকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন তাঁর পরিজনেরা।

Advertisement