Advertisement
০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
Suvendu Adhikari

অভিষেকের সভার শব্দ কতটা পৌঁছবে শান্তিকুঞ্জে? যন্ত্র এনে মেপে দেখলেন পুলিশ আধিকারিকরা

হাই কোটের নির্দেশ মতো, ‘শান্তিকুঞ্জ’ এবং তার আশপাশের এলাকা শনিবার নিরাপত্তার ঘেরাটোপে। সকালে সেই নিরাপত্তা ব্যবস্থা খতিয়ে দেখেন পুলিশ আধিকারিকরা।

তখন মাপা হচ্ছে শব্দমাত্রা।

তখন মাপা হচ্ছে শব্দমাত্রা। — নিজস্ব চিত্র।

সুমন মণ্ডল 
কাঁথি শেষ আপডেট: ০৩ ডিসেম্বর ২০২২ ১৩:৩৮
Share: Save:

তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভা কাঁথিতে। রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর বাড়ি ‘শান্তিকুঞ্জ’-এর অদূরে সভাস্থল। হাই কোটের নির্দেশ মতো, ‘শান্তিকুঞ্জ’ এবং তার আশপাশের এলাকা শনিবার নিরাপত্তার ঘেরাটোপে। সকালে সেই নিরাপত্তা ব্যবস্থা খতিয়ে দেখেন পুলিশ আধিকারিকরা। পাশাপাশি, সভা চলাকালীন ওই এলাকায় শব্দমাত্রা কতটা হতে পারে তা-ও মেপে দেখেন তাঁরা।

Advertisement

কাঁথিতে অভিষেকের সভা নিয়ে কলকাতা হাই কোর্টে মামলা করেছিলেন শুভেন্দু। এ নিয়ে বিচারপতি রাজাশেখর মান্থা নির্দেশ দেন, শুভেন্দু এবং তাঁর বাবা শিশির অধিকারীর অনুমতি ছাড়া কেউ যাতে ‘শান্তিকুঞ্জ’-এ ঢুকতে না পারেন তা নিশ্চিত করতে হবে পুলিশকে। বিচারপতি বলেন, ‘‘গণতান্ত্রিক দেশে সভা আটকানো যায় না। কাঁথি প্রভাত কুমার কলেজ মাঠেই সভা করতে পারবে তৃণমূল। তবে শব্দবিধি মেনে শান্তিপূর্ণ ভাবে সভা করতে হবে।’’ সেই মতো, শনিবার সকাল থেকে ‘শান্তিকুঞ্জ’-এ যাতায়াতের দুই রাস্তায় নাকা তল্লাশি শুরু হয়েছে। পাশাপাশি, জনসাধারণের চলাফেরায় নিষেধাজ্ঞাও জারি করা হয়েছে। বেলা সাড়ে ১১টা নাগাদ ওই বাড়ির সামনে শব্দমাত্রা মেপে দেখে কাঁথি থানার পুলিশ। সেই সঙ্গে ম্যাজিষ্ট্রেট পর্যায়ের আধিকারিক ওই বাড়ির নিরাপত্তার দিকটিও খতিয়ে দেখেন।

‘শান্তিকুঞ্জ’-এর সামনে যান নিয়ন্ত্রণও করা হয়েছে। যাঁরা নিত্য ওই এলাকা দিয়ে যাতায়াত করেন তাঁদের শনিবার উল্টো রাস্তায় ঘুরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। পাশাপাশি, ওই এলাকা মুড়ে ফেলা হয়েছে নিরাপত্তার চাদরে। ‘শান্তিকুঞ্জ’-এর পাশ দিয়ে রাস্তা করা হয়েছে অভিষেকের সভাস্থলে যাওয়ার। সভায় এসে অনেক তৃণমূল কর্মীকেই দেখা যায় ‘শান্তিকুঞ্জ’ দেখতে যেতে। সেখানে থাকা পুলিশকর্মীরা সেই ভিড় সরিয়ে দেন। ‘শান্তিকুঞ্জে’-এর সামনে নিরাপত্তার দায়িত্বে রয়েছেন সিআই, এসআই, এএসআই এবং মহিলা পুলিশ। রয়েছে র‌্যাফও। কাঁদানে গ্যাসের শেল নিয়ে রয়েছেন সশস্ত্র পুলিশবাহিনীর সদস্যরাও।

Advertisement
(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.