Advertisement
০২ মার্চ ২০২৪
West Bengal Lockdown

পুলিশ লাইনের ছাদ থেকে চলছে এলোপাথাড়ি গুলি, আতঙ্ক ঝাড়গ্রামে

বেশ কয়েক দফা মিলিয়ে এখনও পর্যন্ত প্রায় ২০ রাউন্ড গুলির আওয়াজ পেয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। মাঝে মাঝেই গুলি চলছে।

পুলিশ লাইনের বাইরে মাইন প্রতিরোধী গাড়ি নিয়ে পাহারা পুলিশের। নিজস্ব চিত্র।

পুলিশ লাইনের বাইরে মাইন প্রতিরোধী গাড়ি নিয়ে পাহারা পুলিশের। নিজস্ব চিত্র।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ২৩ এপ্রিল ২০২০ ১৬:৩৩
Share: Save:

লকডাউনের নিঝুম দুপুর। আচমকাই একের পর এক গুলির আওয়াজে কেঁপে উঠল অরণ্য শহর ঝাড়গ্রাম। প্রথমে অনেকে ভেবেছিলেন, মঙ্গলবার সন্ধ্যার মতো শহরে হাতি বেরিয়েছে। তাদের তাড়াতেই বনকর্মীরা গুলি চালাচ্ছেন। কিন্তু পরে জানা যায়, পুলিশ লাইনের ছাদে উঠে এক পুলিশকর্মীই তাঁর স্বয়ংক্রিয় রাইফেল থেকে এলোপাথাড়ি গুলি ছুড়ছেন। বেশ কয়েক দফা মিলিয়ে এখনও পর্যন্ত প্রায় ২০ রাউন্ড গুলির আওয়াজ পেয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। মাঝে মাঝেই গুলি চলছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার দুপুর পৌনে দুটো নাগাদ হঠাৎই ঝাড়গ্রাম জেলা পুলিশের এক কনস্টেবল তাঁর এসএলআর (সেল্ফ লোডিং রাইফেল) নিয়ে ছাদে উঠে যান। সেখান থেকে রাস্তা লক্ষ্য করে গুলি চালাতে শুরু করেন তিনি। প্রাথমিক ভাবে জানা গিয়েছে, যে কনস্টেবল গুলি চালাচ্ছেন তাঁর নাম বিনোদ কুমার। তিনি জেলা পুলিশ লাইনের অস্ত্রাগার বা আর্মারিতেই কর্মরত। তবে কেন তিনি এ ভাবে গুলি চালাচ্ছেন তা এখনও স্পষ্ট নয়।

লকডাউন থাকায় রাস্তাঘাট একেবারেই ফাঁকা রয়েছে। তাই বিনোদের ছোড়া গুলিতে এখনও পর্যন্ত কেউ হতাহত হননি বলেই জানা গিয়েছে। জেলা পুলিশের শীর্ষ কর্তাদের পাশাপাশি বিনোদের সহকর্মীরা তাঁর সঙ্গে কথা বলে নিরস্ত করার চেষ্টা করছেন। গোটা এলাকা ঘিরে রেখেছে বিশাল পুলিশ বাহিনী। যাতে সাধারণ মানুষ বন্দুকের পাল্লার মধ্যে ঢুকে না পড়েন। তবে, এ দিন বিকেল পর্যন্ত ওই পুলিশকর্মীকে নিরস্ত করা যায়নি। থেকে থেকেই তিনি গুলি চালাচ্ছেন। তাঁকে বিভিন্ন ভাবে বুঝিয়ে ছাদ থেকে নামানোর চেষ্টা করছেন পুলিশকর্মীরা।

মাইন প্রতিরোধী বুলেট প্রুফ গাড়ি থেকে তাঁর উদ্দেশে মাইকে ঘোষণাও করা হচ্ছে। জেলা পুলিশের শীর্ষ কর্তারা বিনোদকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, তাঁর কোনও সমস্যা থাকলে তা পুলিশ বিভাগ সমাধান করবে। পুলিশ সূত্রে খবর, ওই কনস্টেবলের কাছে ৬০ রাউন্ড বুলেট রয়েছে।

আরও পড়ুন: রাজারহাটের পর বাঙুর কোভিড হাসপাতালে কেন্দ্রীয় দল, কথা রোগীদের সঙ্গে

আরও পড়ুন: আপাতত ঘরই মন্দির, মসজিদ, গুরুদ্বার: মমতা

(অভূতপূর্ব পরিস্থিতি। স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিয়ো আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, feedback@abpdigital.in ঠিকানায়। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।)

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE