Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২১ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

মাটি না ছুঁলে পাক আকাশপথ নিষিদ্ধই

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ০৫ মার্চ ২০১৯ ০২:১৭
সোমবার দুপুর একটার পরে লাহৌর, করাচি-সহ পাকিস্তানের বিভিন্ন বিমানবন্দর যাত্রিবাহী বিমানের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে। ছবি: এপি।

সোমবার দুপুর একটার পরে লাহৌর, করাচি-সহ পাকিস্তানের বিভিন্ন বিমানবন্দর যাত্রিবাহী বিমানের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে। ছবি: এপি।

অভ্যন্তরীণ উড়ানের জন্য নিজেদের আকাশপথ খুলে দিল পাকিস্তান। ওড়ার ছাড়পত্র পেয়েছে পাকিস্তান থেকে যে সব আন্তর্জাতিক বিমান উড়বে বা পাকিস্তানে আসবে, তারাও। তবে জানানো হয়েছে, পাকিস্তানের মাটি না ছুঁলে সে দেশের আকাশ ব্যবহার করতে দেওয়া হবে না অন্য কোনও আন্তর্জাতিক উড়ানকে।

সোমবার দুপুর একটার পরে লাহৌর, করাচি-সহ পাকিস্তানের বিভিন্ন বিমানবন্দর যাত্রিবাহী বিমানের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে। বেশ কিছু আন্তর্জাতিক উড়ানের ক্ষেত্রেও ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। পাকিস্তান জানিয়েছে, দেশের অভ্যন্তরে যাবতীয় উড়ান যাতায়াত করতে পারবে। আর পাকিস্তান থেকে যাওয়া বা পাকিস্তানে আসা সব আন্তর্জাতিক উড়ানকেও ছাড় দেওয়া হবে। কিন্তু, পাকিস্তানের মাটি না ছুঁলে কোনও আন্তর্জাতিক উড়ানকে পাকিস্তানের আকাশ ব্যবহার করতে দেওয়া হবে না। সোমবার দুপুরে নোটিস টু এয়ারমেন (নোটাম) করে মঙ্গলবার দুপুর দেড়টা পর্যন্ত মাথার উপর দিয়ে উড়ে যাওয়া সংক্রান্ত সেই নিষেধাজ্ঞার সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে।

ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে সমস্যা দেখা দেওয়ায়, গত বুধবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তান তার আকাশপথ সম্পূর্ণ বন্ধ করে দেয়। নোটিস দিয়ে জানিয়ে দেয়, পাকিস্তানের আকাশ শুধুমাত্র সেখানকার বায়ুসেনা ব্যবহার করবে। সেই নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ ২৮ ফেব্রুয়ারি রাতে বাড়ানো হয়।

Advertisement

এর ফলে, বেশ কিছু আন্তর্জাতিক উড়ান বাতিল করতে হয়। সমস্যায় পড়েন বহু যাত্রী। ভারত ও পাকিস্তানের আকাশ দিয়ে বহু আন্তর্জাতিক উড়ান প্রতিদিন উড়ে যায়। দক্ষিণ পশ্চিম এশিয়া থেকে মূলত ইউরোপে যাতায়াত করা এই উড়ানগুলির জন্য গত বুধবার থেকে পাকিস্তানের আকাশপথ বন্ধ হয়ে যায়। বাধ্য হয়ে অনেকটা ঘুরে ওমানের উপর দিয়ে যাতায়াত করতে হচ্ছে তাদের। অতিরিক্ত জ্বালানি পোড়ার আশঙ্কায় অনেক উড়ান সংস্থা নিয়মিত উড়ান বাতিলও করছে।

সোমবার কলকাতার এয়ার ট্রাফিক ম্যানেজমেন্ট-এর জেনারেল ম্যানেজার কল্যাণ চৌধুরী বলেন, ‘‘এখন চাপ পড়ছে মুম্বই এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল-এর উপরে। এত দিন যে দু’টি রুট দিয়ে দিনে ৭০০ আন্তর্জাতিক উড়ান যেত, এখন সেই দু’টি রুট দিয়ে আরও ৫০০ অতিরিক্ত উড়ান যাচ্ছে।’’

আরও পড়ুন

Advertisement