শিল্প সংস্থাগুলির বহু দিনের দাবি মেনে সম্প্রতি কর্পোরেট করের হার কমিয়েছে কেন্দ্র। আশা, এর ফলে তাদের হাতে বাড়তি টাকা থাকবে। ফলে বিনিয়োগ, উৎপাদন ও কর্মসংস্থান বাড়বে। কিন্তু শিল্পপতি আদি গোদরেজের বক্তব্য, ঝিমিয়ে থাকা বৃদ্ধিকে চাঙ্গা করতে দরকার আরও ত্রাণ। এর জন্য রাজকোষ ঘাটতির সঙ্গেও কিছুটা আপস করতে হতে পারে। পাশাপাশি, ব্যক্তিগত আয়করের হার ছাঁটাইয়ের পক্ষেও সওয়াল করেছেন তিনি। নীতি আয়োগের সিইও অমিতাভ কান্ত অবশ্য শিল্পকে আশ্বস্ত করার চেষ্টা করেছেন। বলেছেন, বৃদ্ধিতে গতি আনতে অদূর ভবিষ্যতেই আরও বেশ কিছু পদক্ষেপ ঘোষণা করবে কেন্দ্র। 

গত কয়েক মাসে বেসরকারি লগ্নি কমেছে। কমেছে পণ্যের চাহিদাও। প্রথম ত্রৈমাসিকে বৃদ্ধির নেমেছে ৫ শতাংশে। বেকারত্বের হার সাড়ে চার দশকের সর্বোচ্চ। এই অবস্থায় শিল্প মহলকে কিছুটা স্বস্তি দিতে কর্পোরেট কর কমানো-সহ একগুচ্ছ পদক্ষেপ করেছে কেন্দ্র। সুদ কমিয়েছে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক। কিন্তু শিল্পের একাংশের বক্তব্য, এতে পুঁজির সমস্যা কিছুটা মিটলেও চাহিদা বাড়া কঠিন। তার জন্য দরকার বাড়তি কিছু পদক্ষেপ। 

বৃহস্পতিবার ইন্ডিয়া ইকনমিক সামিটের ফাঁকে গোদরেজ বলেন, ‘‘বৃদ্ধির হার কমেছে। একে চাঙ্গা করা দরকার। সরকারের উচিত (শিল্পকে) আরও ত্রাণ সরবরাহ করা। এতে রাজকোষ ঘাটতি কিছুটা বাড়লেও সমস্যা হবে না। ব্যক্তিগত আয়করের হারও কমানো প্রয়োজন।’’ 

কান্তের অবশ্য আশ্বাস, সরকার বেশ কিছু পদক্ষেপ করেছে। তাঁর বিশ্বাস, কাঠামোগত সংস্কারের জন্য শীঘ্রই আরও পদক্ষেপ ঘোষণা করা হবে। তবে উৎপাদন ক্ষমতাও বাড়া দরকার বলে বার্তা কান্তের।