টানা কয়েক মাস দেশে গাড়ি বিক্রিতে ভাটা। প্রায় ২৫০ জন ডিলার ঝাঁপ বন্ধ করেছেন গত দেড় বছরে। কাজ গিয়েছে অন্তত ১৭,০০০ মানুষের। গত বছরের এপ্রিলের সঙ্গে এ বারের এপ্রিলে গাড়ি বিক্রির তুলনা করতে গিয়ে গাড়ি শিল্পের সংগঠন সিয়ামের পরিসংখ্যানে উঠে আসছে বছর দশেক আগের মন্দার ছবি। সেই সময় এক সঙ্গে সব ধরনের গাড়ি বিক্রিই কমেছিল। তার পরে এ বার ফের একই ঘটনা ঘটল। এ বছরের দ্বিতীয়ার্ধের আগে পরিস্থিতির উন্নতির আশা করছে না সিয়াম। সংশ্লিষ্ট মহলের বক্তব্য, গাড়ি শিল্পে ধাক্কার ফলে সামগ্রিক ভাবেই দেশের আর্থিক পরিস্থিতি নিয়ে প্রশ্ন উঠবে। 

প্রতি মাসে বিভিন্ন গাড়ি বিক্রির পরিসংখ্যান প্রকাশ করে সিয়াম। সঙ্গে দেয় এক বছর আগের বিক্রির তুলনা। আলাদা ভাবে পরিসংখ্যান প্রকাশ করে গাড়ি সংস্থাগুলিও। তবে সেগুলি সবই পাইকারি ব্যবসার তথ্য। সাধারণ ক্রেতার গাড়ি কেনার ছবিটা স্পষ্ট হয় ডিলারদের পরিসংখ্যান থেকে। গত কয়েক মাসে সেই ছবিও বেশ মলিন। 

সোমবার সিয়াম জানিয়েছে, গত বছরের এপ্রিলের তুলনায় এ বছর যাত্রি গাড়ির বিক্রি কমেছে ১৭.০৭%। প্রায় আট বছরের মধ্যে গাড়ি বিক্রিতে এটিই সবচেয়ে বড় ধাক্কা। এর আগে ২০১১ সালের অক্টোবরে এই ধরনের গাড়ির বিক্রি কমেছিল ১৯.৮৭%। 

সিয়ামের তথ্য বলছে, ইউটিলিটি ভেহিকল ও ভ্যান বাদে এপ্রিলে শুধু যাত্রী গাড়ির বিক্রি কমেছে ১৯.৯৩%। এ ছাড়া বাণিজ্যিক, দু’চাকা ও তিন চাকার গাড়ির বিক্রি কমেছে যথাক্রমে ৫.৯৮%, ১৬.৩৬% ও ৭.৪৪%। সিয়ামের ডেপুটি ডিরেক্টর জেনারেল সুগত সেন বলেন, ‘‘সব ধরনের গাড়ি বিক্রি এক সঙ্গে কমছে, দশ বছরে এমন হয়নি। অর্থবর্ষের শুরুটা ভাল হল না।’’ সিয়ামের ডিজি বিষ্ণু মাথুর বলেন, ‘‘শুধু গাড়ি নয়, ভোগ্যপণ্য ক্ষেত্রও ধাক্কা খেয়েছে। কেন্দ্রে স্থায়ী সরকার তৈরি হলে বছরের দ্বিতীয়ার্ধে হয়তো পরিস্থিতির উন্নতি হবে।’’