• প্রজ্ঞানন্দ চৌধুরী ও দেবপ্রিয় সেনগুপ্ত
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

অর্থবর্ষ বদলালে লাভই দেখছে শিল্প

Industry
প্রতীকী ছবি।

Advertisement

বাজেটের দিনক্ষণ এগিয়ে আনার পরে অর্থবর্ষও বদলাতে চায় কেন্দ্র। পরিকল্পনা, আগামী দিনে আর্থিক বছর আর ক্যালেন্ডার বছরের মধ্যে ফারাক না-রাখার। অর্থবর্ষ জানুয়ারি-ডিসেম্বরে করতে সিদ্ধান্ত নেওয়া প্রায় সারা। ২০১৮ না কি ২০১৯ থেকে তা কার্যকর হবে, সেটিই শুধু ঠিক করা বাকি। আর কেন্দ্রের এই উদ্যোগকেই স্বাগত জানাচ্ছে শিল্পমহল। তাদের মতে, এতে হিসেবের ঝক্কি কমবে। সাযুজ্য রাখতে সুবিধা হবে বাইরের দুনিয়ার সঙ্গে। সব মিলিয়ে, নিজেদের ব্যবসার এবং দেশে লগ্নি আসার ক্ষেত্রে এতে লাভই হবে বলে মনে করছে তারা। একই মতের শরিক হিসেবরক্ষকরাও।

তবে তাদের আর্জি, এক ব্যবস্থা থেকে আর একটিতে যাওয়ার জন্য যাতে যথেষ্ট সময় দেয় কেন্দ্র। নইলে রাতারাতি নতুন ব্যবস্থায় মানাতে অসুবিধায় পড়তে হবে বলে আশঙ্কা।

গোড়া থেকেই মোদী সরকারের পরিকল্পনা ছিল ক্যালেন্ডার ইয়ারের সঙ্গে অ্যাকাউন্টিং বা ফিনান্সিয়াল ইয়ারকে এক করার। বিশেষজ্ঞদের মতে, এখন বহু উন্নত দেশ এই দু’য়ের ফারাক মুছে ফেলেছে। ভারতেও সেই বদল ঘটলে, বাইরের দুনিয়ার সঙ্গে তাল মেলাতে সুবিধা হবে। বিশ্বায়নের জমানায় যা একান্ত জরুরি।

কেন এমন ভাবছেন বিশেষজ্ঞরা?

তাঁদের মতে, এখন ভারতে এমন অনেক বহুজাতিক রয়েছে, যাদের ব্যবসা এমন বহু জায়গায় ছড়িয়ে, যেখানে ক্যালেন্ডার বর্ষকেই হিসাববর্ষ হিসেবে গণ্য করা হয়। তাই তারা যখন এখানে বছর শেষে লাভ, ক্ষতি-সহ ব্যবসার হিসাব কষে, তখন সমস্যায় পড়তে হয়। এ দেশে দুই বছর এক হয়ে গেলে সেই সমস্যা থাকার কথা নয়।

সুবিধা হতে পারে কোনও বিদেশি সংস্থা একটি ভারতীয় সংস্থায় লগ্নি করতে চাইলেও। কারণ, সে ক্ষেত্রেও লগ্নিকারী সংস্থার দেশের সঙ্গে এখানকার হিসাববর্ষ মিললে সুবিধা।

বিশ্বব্যাঙ্ক, আন্তর্জাতিক অর্থভাণ্ডারের মতো প্রতিষ্ঠানগুলি অর্থনীতির নানা বিষয়ে পূর্বাভাস দেয়। পরামর্শ দেয় উন্নয়নের। তার প্রায় সবই কিন্তু করা হয় ক্যালেন্ডার ইয়ারের ভিত্তিতে। আইনি উপদেষ্টা সংস্থা খেতান অ্যান্ড কোম্পানির সিনিয়র পার্টনার তথা ভারত চেম্বারের ভাইস প্রেসিডেন্ট এন জি খেতান ও মার্চেন্টস চেম্বারের প্রেসিডেন্ট হেমন্ত বাঙ্গুরের মতে, বিশ্বের অধিকাংশ উন্নত দেশ ওই রীতি মেনে চলে। খেতানের বক্তব্য, একই অর্থবর্ষে দু’বছরের মাসের হিসেবের ঝক্কি সে ক্ষেত্রে থাকবে না। বাঙ্গুর বলেন, ‘‘গোড়ায় কিছুটা সমস্যা হলেও, পরে তা থাকবে না।’’ ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টস অব ইন্ডিয়ার প্রাক্তন চেয়ারম্যান অনির্বাণ দত্ত বলেন, ‘‘নতুন ব্যবস্থার সঙ্গে খাপ খাওয়াতে তা চালুর আগে অন্তত মাস ছয়েক সময় দেওয়া প্রয়োজন। নইলে সমস্যা হতে পারে।’’ অনেকে আবার বলছেন, লোকসভা ভোটের বছরে সরকারকে ভোট-অন-অ্যাকাউন্ট পেশ করতে হয়। কিন্তু অর্থবর্ষ বদলে গেলে, মোদী সরকার ভোটের অনেক আগে বাজেট পেশ করতে পারবে।

 

সহ প্রতিবেদন: প্রেমাংশু চৌধুরী

সবাই যা পড়ছেন

Advertisement

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন