• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

এ বছরেই ২,৫০০ কোটির শেয়ার ছাড়তে পারে ইন্ডিগো

1

বাজারে ২৫০০ কোটি টাকার শেয়ার ছাড়তে চলেছে ভারতের প্রথম সারির বিমান সংস্থা ইন্ডিগো। এই প্রথম তারা বাজারে আসছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রের খবর।

সবকিছু ঠিকঠাক চললে আগা়মী সপ্তাহেই এ ব্যাপারে বাজার নিয়ন্ত্রক সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ বোর্ড অব ইন্ডিয়া (সেবি)-র কাছে তাদের প্রস্তাবনাপত্র বা প্রসপেকটাস দাখিল করার কথা। তার খসড়াই এখন চূড়ান্ত করতে ব্যস্ত ইন্ডিগো-র পরিচালন সংস্থা ইন্টার গ্লোব এন্টারপ্রাইজেস।

সংস্থার সঙ্গে যুক্ত একটি সূত্রের খবর, অগস্টের মধ্যেই সেবি-র কাছ থেকে মিলতে পারে প্রয়োজনীয় অনুমোদন। সে ক্ষেত্রে তার পরে এ বছরের মধ্যেই বাজারে আসবে ইন্ডিগো শেয়ার। তবে ঠিক কখন সংস্থার শেয়ার ছাড়া হবে, তা নির্ভর করবে সেই সময়ে বাজারের পরিস্থিতির উপর। বাজার কতটা চাঙ্গা থাকবে এবং নতুন ইস্যু কতটা সাফল্য পাবে, তা খতিয়ে দেখে দিনক্ষণ স্থির করবে ইন্ডিগো। তবে এ ব্যাপারে সংস্থার মুখপাত্রের মন্তব্য এ দিন পাওয়া যায়নি।

বাজার দখলের দিক থেকে এই মুহূর্তে ভারতে প্রথম স্থানে রয়েছে ইন্ডিগো। মে মাসে সংস্থার যাত্রী সংখ্যা ছিল ২৭.৬৯ লক্ষ, যা ভারতে ওই সময়ে মোট বিমান যাত্রীর ৩৩ শতাংশ। দেশে এখন মাত্র যে-দু’টি বিমান পরিষেবা সংস্থা মুনাফা করছে, তার মধ্যে রয়েছে ইন্ডিগো। অপর সংস্থাটি হল গোএয়ার। পর্যটন শিল্পের উদ্যোগী রাহুল ভাটিয়া এবং ইউ এস এয়ারওয়েজ-এর প্রাক্তন চিফ এগ্‌জিকিউটিভ রাকেশ গাঙ্গোয়ালের হাত ধরে ২০০৬ সালে তৈরি হয় ইন্ডিগো। কম খরচের বিমান পরিষেবা সংস্থা হিসেবেই বাজারে জায়গা করে নিয়েছে সংস্থা। প্রথম থেকেই এই মডেল মেনে যাত্রী সংখ্যা বাড়িয়ে ব্যবসায় সাফল্য ছিনিয়ে নিয়েছে তারা। বিমান পরিষেবা সংক্রান্ত গবেষণা সংস্থা সিডনি ভিত্তিক সেন্টার ফর এশিয়া প্যাসিফিক অ্যাভিয়েশন  এ মাসের গোড়াতেই সফল বিমান পরিষেবা সংস্থাগুলির একটি তালিকায় জানিয়েছে, গত ২০১৪-’১৫ অর্থবর্ষে ইন্ডিগোর মুনাফা ছুঁয়েছে ১৫ থেকে ১৭.৫ কোটি ডলার। টাকার অঙ্কে যা প্রায় ৯৬০ থেকে ১১০০ কোটি।

এত দিন একই ধরনের কিছুটা সরু বিমানেই যাত্রী পরিবহণ করে আসছে ইন্ডিগো। বাজার বাড়াতে অক্টোবরেই এক লপ্তে ২৫০টি এয়ারবাস এ৩২০নিও-র প্রাথমিক বরাত দিয়েছে সংস্থা। এর আগে কোনও সংস্থা একসঙ্গে এত বেশি সংখ্যায় এয়ারবাসের বরাত দেয়নি। এ বছরেই ওই বরাত চূড়ান্ত হওয়ার কথা বলে ইঙ্গিত শিল্পমহলের।

তার আগেই অবশ্য ২৮০টি এ৩২০ ফ্যামিলি জেটের চূড়ান্ত বরাত দেয় সংস্থা, যার ১০০টি ইতিমধ্যেই সংস্থার হাতে এসে গিয়েছে। শিল্পমহল সূত্রের ইঙ্গিত, ইন্ডিগোর ব্যবসায়িক সাফল্যের অন্যতম চাবিকাঠি, এক লপ্তে অনেক বিমানের বরাত দিয়ে সেগুলি লিজ দিয়ে খরচ তুলে নেওয়া। তার পরে আবার ভাড়া নিয়ে সেগুলিই ব্যবহার করে ইন্ডিগো। এই কৌশলই ভারতের অন্যান্য বিমান পরিষেবা সংস্থার থেকে ইন্ডিগোকে আলাদা করে দিয়ে মুনাফার দিকে এগিয়ে দিয়েছে কি না, সে ব্যাপারে অবশ্য মুখ খোলেনি তারা।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন