জেট এয়ারওয়েজের অন্যতম ঋণদাতা স্টেট ব্যাঙ্কের আশা, আগামী সপ্তাহেই তৈরি হয়ে যাবে সংস্থার পুনরুজ্জীবন প্রকল্প। আর্থিক সঙ্কটে তারা পায়ের নীচের জমি পুরোপুরি হারানোর আগেই। কিন্তু শুক্রবারই সমস্যা আরও গভীর হওয়ার ইঙ্গিত মিলেছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রের খবর, বকেয়া টাকা ফেরত না পেয়ে লিজ চুক্তি বাতিল করে জেটের অন্তত পাঁচটি বিমানকে ভারত থেকে সরাতে চেয়ে নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ ডিজিসিএর কাছে আর্জি জানিয়েছে বিমান ভাড়া দেওয়ার কিছু সংস্থা।

সূত্রের দাবি, ১১৯টি বিমানের মধ্যে ৩৭টিকে বসিয়েছে জেট। লিজ চুক্তি বাতিল হলে পরিষেবা দিতে আরও সমস্যা হবে। বিশেষত যাত্রীদেরও যখন সংস্থার বিরুদ্ধে ক্ষোভ বাড়ছে। উড়ান বাতিলের পরে নতুন করে টিকিট বুকিংয়ে সমস্যার কথা বলছেন অনেকে। অভিযোগ তুলছেন, জেট এ জন্য দুঃখপ্রকাশ করেনি বা ক্ষমাও চায়নি। যা হতাশাজনক ও অপেশাদার মনোভাবের পরিচয়।

আর্থিক সঙ্কটে পাইলটদের বেতন বাকি পড়েছে। তাঁদের ইউনিয়ন সুদ-সহ বকেয়ার দাবিতে শ্রমমন্ত্রীকে চিঠি দিয়ে কেন্দ্রের হস্তক্ষেপ চেয়েছে।

 দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯