বাজেটের পর থেকেই শেয়ার বাজারে পতনের প্রবণতা অব্যাহত। সপ্তাহের শুরুতে সোমবারও সেই প্রবণতা লক্ষ্য করা গেল। এ দিন বাজার খুলতেই ৭৭৮ পয়েন্ট পড়ে সেনসেক্স দাঁড়ায় ৩৮,৭৩৫.১৩ অঙ্কে দাঁড়ায়। অন্য দিকে, নিফটি ২৪৫ পয়েন্ট পড়ে দাঁড়ায় ১১,৫৫৬.৬০ অঙ্কে।  বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়। দুপুরের দিকে এক ধাক্কায় ৯০০ পয়েন্ট নেমে যায় সেনসেক্স। যা এখনও পর্যন্ত বছরের সবচেয়ে খারাপ প্রবণতা বলে মনে করা হচ্ছে। কোনও একদিনে সূচকের সর্বোচ্চ পতনের নিরিখে ভারতীয় শেয়ার বাজারের ইতিহাসে এটি প্রথম দশটি পতনের মধ্যে একটি। যদিও বাজার বন্ধের সময় সামান্য ওঠে শেয়ার সূচক। ৭৯২.৮৫ পয়েন্ট নেমে সেনসেক্স দাঁড়ায় ৩৮,৭২০.৫৭ এবং নিফটি ২৫২.৫৫ পয়েন্ট নেমে ১১,৫৫৮.৬০ পয়েন্টে দাঁড়ায়।

এই প্রবণতা কেন চলছে তাঁর ব্যাখ্যা দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। তাঁদের মতে, বিনিয়োগকারীদের কাছে বাজেট খুব একটা সন্তোষজনক হয়নি। ফলে তার একটা প্রভাব পড়ছে শেয়ার বাজারে। শুধু তাই নয়, কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন বাজেটে ঘোষণা করেছিলেন এনএসই-র তালিকভুক্ত সংস্থাগুলোয় পাবলিক শেয়ার হোল্ডিং ২৫ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ৩৫ শতাংশ করার জন্য সেবিকে প্রস্তাব দেবেন।

এ ছা়ড়া বছরে ২-৫ কোটি টাকা বা তার বেশি আয়ের উপর সারচার্জ বাড়ানোর কথাও ঘোষণা করেছিলেন অর্থমন্ত্রী। এটাকেও শেয়ার পতনের একটা কারণ হিসেবে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। অটো এবং ব্যাঙ্কিং শেয়ারগুলির সঙ্গে  এ দিন শেয়ার বাজারের পতনে লোকসান হয়েছে ওনএসজিসি, বাজাজ ফিনান্স, ইন্ডিয়ান অয়েল, এসবিআই, লারসেন অ্যান্ড টুবরো-র মতো নামকরা সংস্থাগুলির।

আরও পড়ুন: রাতভর ট্যাঙ্ক ধ্বংসকারী ‘নাগ’-এর সফল পরীক্ষা করল ভারত

আরও পড়ুন: বিদ্রোহীদের জায়গা করে দিতে কর্নাটকে কংগ্রেসের সব মন্ত্রীর পদত্যাগ