Advertisement
০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩
Unemployment

দেশে ফের চড়ল বেকারত্ব, ৯% ছুঁইছুঁইয়ে উদ্বিগ্ন শহর

উপদেষ্টা সংস্থা সিএমআইই-র রিপোর্ট বলছে, নভেম্বরে দেশে বেকারত্বের হার ফের ৮%। গ্রামে তা ৮.০৪% থেকে ৭.৫৫ শতাংশে নামলেও, শহরে ৭.১২% থেকে বেড়ে হয়েছে ৯% ছুঁইছুঁই।

দুশ্চিন্তা বাড়ল শহর নিয়ে।

দুশ্চিন্তা বাড়ল শহর নিয়ে। প্রতীকী ছবি।

নিজস্ব প্রতিবেদন
কলকাতা শেষ আপডেট: ০২ ডিসেম্বর ২০২২ ০৬:১৯
Share: Save:

দেশের গ্রামাঞ্চলে বেকারত্বের হার মাথা তুলতে থাকায় উদ্বেগ বাড়ছিল সমস্ত মহলে। সম্প্রতি তা সামান্য কমলেও, দুশ্চিন্তা বাড়ল শহর নিয়ে। আর তার হাত ধরেই গোটা দেশে তিন মাসের সর্বোচ্চ হল বেকারত্ব। প্রশ্ন উঠছে, আর্থিক কর্মকাণ্ড বাড়লেও কাজের বাজার চাঙ্গা হচ্ছে না কেন?

Advertisement

উপদেষ্টা সংস্থা সিএমআইই-র রিপোর্ট বলছে, নভেম্বরে দেশে বেকারত্বের হার ফের ৮%। গ্রামে তা ৮.০৪% থেকে ৭.৫৫ শতাংশে নামলেও, শহরে ৭.১২% থেকে বেড়ে হয়েছে ৯% ছুঁইছুঁই। ওয়াকিবহাল মহলের বক্তব্য, পরিস্থিতি সুবিধার নয় আঁচ করেই গ্রামাঞ্চলে কর্মসংস্থান বাড়াতে মাঠে নামতে চাইছে কেন্দ্র। সরকারি সূত্রের ইঙ্গিত, ১০০ দিনের কাজের আর্থিক বরাদ্দ বৃদ্ধির কথা ভাবছে তারা। এরই মধ্যে রবিশস্যের চাষ শুরু হওয়ায় কিছুটা হলেও কাজ এসেছে মানুষের হাতে। কিন্তু শহরের অবস্থা আলাদা। সেখানে মূলত পরিষেবা ক্ষেত্রের কাঁধে চেপে আর্থিক কর্মকাণ্ডে গতি এলেও কর্মী নিয়োগের ঝুঁকি নিতে চাইছে না বহু সংস্থা। কারণ, আর্থিক অনিশ্চয়তা। সম্প্রতি দেশের মূল আটটি পরিকাঠামো ক্ষেত্রে উৎপাদন শ্লথ হওয়ার ছবিও স্পষ্ট হয়েছে কেন্দ্রের অক্টোবরের রিপোর্টে। সেখানে বৃদ্ধির হার নামমাত্র (০.১%)। সব মিলিয়ে ডামাডোল বেড়েছে কাজের বাজারেও।

আর্থিক বিশেষজ্ঞ অনির্বাণ দত্ত বলেন, চড়া মূল্যবৃদ্ধি চাহিদা কমিয়েছে। আর সুদের হার বৃদ্ধি রুখেছে শিল্পের সম্প্রসারণ। উৎপাদনেও ধাক্কা লাগছে। ফলে বাড়ছে না কর্মসংস্থান। দক্ষ এবং আধা-দক্ষ কর্মী নিয়োগ করতে পারে এমন বড় মাপের নতুন সংস্থা তৈরি হয়নি বহু দিন। উল্টে অ্যামাজন, টুইটার-সহ অনেক পরিষেবা সংস্থা কর্মী ছাঁটাই করেছে। অথচ কাজের খোঁজ বেড়েছে। ফলে চড়া বেকারত্ব।

অনেকে মনে করিয়ে দিচ্ছেন, সম্প্রতি জাতীয় পরিসংখ্যান দফতরের (এনএসও) রিপোর্টেও শহরাঞ্চলের কাজের মলিন পরিস্থিতির ছবিই ফুটে উঠেছে। সেখানে জানানো হয়েছে, গত জুলাই-সেপ্টেম্বরে শহরে ১৫ বছর কিংবা তার বেশি বয়সিদের মধ্যে বেকারত্বের হার ছিল ৭.২%। পুরুষদের তুলনায় মহিলাদের অবস্থা অনেকটাই খারাপ (সারণিতে)।

Advertisement
(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.