গত শুক্রবার চিনের ২০,০০০ কোটি ডলারের পণ্যের উপরে আমদানি শুল্ক ১০% থেকে বাড়িয়ে ২৫% করেছিল আমেরিকা। প্রত্যুত্তরে সোমবার আমেরিকার ৬,০০০ কোটি ডলারের পণ্যের উপরে শুল্ক বাড়ায় চিন। যার ফলে দু’দেশের মধ্যে কার্যত পুরোদস্তুর শুল্ক যুদ্ধ শুরু হয়ে গিয়েছে। কিন্তু এর মধ্যেও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প অনড়। তাঁর কথায়, ‘‘কিছু প্রত্যাঘাত আসতেই পারে। কিন্তু সেটা তুলনামূলক ভাবে খুবই কম। আমরা যে বিপুল শুল্ক পাচ্ছি তার একটা অংশ কৃষকদের জন্য খরচ করা হবে।’’ তবে দু’পক্ষই জানিয়েছে, পরিস্থিতি সহজ করার প্রক্রিয়া চলবে। 

মার্কিন শীর্ষ ব্যাঙ্ক ফেডারেল রিজার্ভের নিউ ইয়র্কের প্রেসিডেন্ট জন উইলিয়ামসের যদিও হুঁশিয়ারি, শুল্ক ঘিরে এই পরিস্থিতি চললে আর্থিক বৃদ্ধি কমবে। মাথাচাড়া দেবে মূল্যবৃদ্ধি। 

শুল্ক যুদ্ধের আতঙ্ক ছড়িয়েছে ভারতেও। ইস্পাত শিল্পের আশঙ্কা, আমেরিকা শুল্ক বাড়ানোর ফলে ভারতে সস্তায় ইস্পাত রফতানির পরিমাণ বাড়াতে পারে চিন। তা রুখতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে কেন্দ্রের কাছে আবেদন জানিয়েছে তারা। পাশাপাশি সূত্রের খবর, আমেরিকা থেকে আমদানি করা ২৯টি পণ্যের উপরে শুল্ক কার্যকরের সময় ফের পিছিয়ে ১৬ জুন করেছে দিল্লি। ভারতের উপর থেকে রফতানির সুবিধা (জিএসপি) বন্ধের কথা বললেও, তা এখনও কার্যকর করেনি আমেরিকা। তাই এই সিদ্ধান্ত বলে মনে করা হচ্ছে।