মাঝেরহাট সেতু বিপর্যয়ের দায় কার সেই বিতর্কের মাঝেই আরও বিতর্ক উস্কে দিল পূর্ব রেল।

শুক্রবার রেল সূত্র থেকে একটি চিঠি প্রকাশ্যে এসেছে। যে চিঠি রাজ্য সরকারের নগোরন্নয়ন দফতরকে পাঠানো হয়েছে পূর্ব রেলের মুখ্য ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারের অ্ফিস থেকে।

জুলাই মাসের শেষ সপ্তাহে লেখা এই চিঠিতে মাঝেরহাট রেল ওভারব্রিজ (আরওবি)-র খারাপ অবস্থার কথা জানানো হয়েছে রাজ্য সরকারকে। সেখানে বলা হয়েছে অবিলম্বে ওই সেতুর মেরামতি প্রয়োজন।

কী লেখা আছে ওই চিঠিতে?

২৭ জুলাই এই চিঠিই নগরোন্নয়ন দফতরকে দিয়েছিল পূর্বরেল। নিজস্ব চিত্র। 

২৭ জুলাই ওই চিঠি লিখেছেন পূর্ব রেলের মুখ্য ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারের পক্ষ থেকে চিঠি লিখেছেন ডেপুটি চিফ ইঞ্জিনিয়ার সুজিত কুমার। নগরোন্নয়ন দফতরের সুপারিন্টেডেন্ট ইঞ্জিনিয়ারকে লেখা চিঠিতে বলা হয়েছে, আরওবি বি-১১ (মাঝেরহাট ব্রিজের রেলের সাঙ্কেতিক পরিচয়) এর কংক্রিট কাঠামোর একাধিক জায়গায় অবস্থা বেশ খারাপ। ট্রেন লাইন সংলগ্ন একটি অংশে ইস্পাতের বিম দিয়ে ঠেকাও দেওয়া হয়েছে রেলের তরফে।

আরও পড়ুন: শিয়ালদহ সেতুর নীচে পুরসভাকে ভাড়া দিয়েই কারবার, মেরামতি কী ভাবে?

চিঠিতে বলা হয়েছে, খালের ঠিক উপরের অংশ (যে অংশ মঙ্গলবার ভেঙে পড়েছে)— সেখানে সেতুর যে কংক্রিটের ডেস্ক স্ল্যাব রয়েছে তার স্থানচ্যুতি পরিস্কার ভাবে দেখা যাচ্ছে। সেই অংশের অবিলম্বে পরিদর্শন করে ব্যবস্থা নেওয়া দরকার। চিঠিতে এটাও বলা হয়েছে যে বিভিন্ন জায়গায় কংক্রিটের আস্তরণ সরে গিয়ে ভেতরের ইস্পাতের কাঠামো বেরিয়ে পড়েছে।

পূর্ব রেলের এক শীর্ষ আধিকারিক দাবি করেন, “ রাজ্য সরকার নিজেদের দায়  যতই অস্বীকার করুক না কেন, এই চিঠি প্রমান করে দেয় যে আমরা তাঁদের সতর্ক করেছিলাম। তারপরও তাঁরা কিছু করেননি।”

আরও পড়ুন: করবটা কী? ওতো বামেদের পরিষদ, ফাঁসিদেওয়া নিয়েও দায় এড়াল শাসকদল

নগরোন্নয়ন দফতরের কাছ থেকে এ বিষয়ে কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমকে একাধিকবার ফোন করলেও তিনি ফোন তোলেননি। মেসেজ করা হলেও কোনও উত্তর পাওয়া যায়নি। তবে রেলও এই প্রশ্নের উত্তর এড়িয়েছে, কেন তাঁরা রাজ্য সরকারের পুর্ত দফতরকে চিঠি না দিয়ে নগরোন্নয়ন দফতরকে চিঠি দিল। 

(শহরের সেরা খবর, শহরের ব্রেকিং নিউজ জানতে এবং নিজেদের আপডেটেড রাখতে আমাদের কলকাতা বিভাগ পড়ুন।)