Advertisement
২৭ মার্চ ২০২৩

নারী কাহিনি

টেকনিশিয়ান থেকে পরিচালক, সকলেই মেয়ে। মেয়েদের এই নতুন ছবিতে ঋতাভরী চক্রবর্তী ও তনুশ্রী চক্রবর্তীছবিতে মা-মেয়ের এই গল্প বুনেছেন গায়ক সুরজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের স্ত্রী কমলিনী। ছবির ‘তিস্তা’ কিন্তু ঋতাভরীর মতো স্মার্ট কোনও চরিত্র নয়। ‘‘তিস্তা খুব লাজুক, এমন একটা চরিত্র, যে ক্রমশ লড়াই করতে-করতে পরিণত মহিলা হয়ে ওঠে,’’ জানাচ্ছেন ঋতাভরী।

ঋতাভরী চক্রবর্তী

ঋতাভরী চক্রবর্তী

স্রবন্তী বন্দ্যোপাধ্যায়
শেষ আপডেট: ০৭ জুন ২০১৭ ০১:০৫
Share: Save:

পরিচালক থেকে প্রযোজক সকলেই মহিলা। এমনকী, যিনি স্ক্রিপ্ট লিখেছেন তিনিও মহিলা। মা ও মেয়ের সম্পর্ক নিয়ে পম্পি ঘোষ মুখোপাধ্যায়ের ছবির শুরুতেই চমক। ছবির নাম ‘তিস্তা তিয়াষা’। ছবিতে ঋতাভরী চক্রবর্তীকে দেখা যাবে এক ভিন্ন চরিত্রে। তিনি বললেন,‘‘এই ছবিতে আমি সমাজে কোণঠাসা হয়ে পড়া এক মায়ের মেয়ে। যে মায়ের সঙ্গে এই সমাজ ব্যবস্থার বিরুদ্ধে লড়াই করে। এ ছবির প্রোডাকশনে সকলেই মেয়ে। সুরজিৎদা’র সঙ্গে আমার মা শতরূপা সান্যালও এ ছবিতে সুর দিয়েছেন।’’

Advertisement

গল্পের ভাবনা শুনেই ছবিটি মনে ধরেছিল তনুশ্রী চক্রবর্তীর। ‘‘এই ছবিতে এক মহিলার পঁচিশ বছর থেকে পরিণত বয়স অবধি লড়াইয়ের গল্প বলা হচ্ছে। অভিনয়ের জায়গাটা অনেক বড়, তাই কাজের আগ্রহ দেখিয়েছি আমি’’ বলছেন তনুশ্রী।

ছবিতে মা-মেয়ের এই গল্প বুনেছেন গায়ক সুরজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের স্ত্রী কমলিনী। ছবির ‘তিস্তা’ কিন্তু ঋতাভরীর মতো স্মার্ট কোনও চরিত্র নয়। ‘‘তিস্তা খুব লাজুক, এমন একটা চরিত্র, যে ক্রমশ লড়াই করতে-করতে পরিণত মহিলা হয়ে ওঠে,’’ জানাচ্ছেন ঋতাভরী।

পঁচিশে পা দিয়েই এ বছর হাতে তাঁর পাঁচখানা ছবি। প্রেম থেকে ছবির কাজ, ২০১৭ বেশ ভরিয়েই রাখছে ঋতাভরীকে। গত আট বছর ইন্ডাস্ট্রিতে অল্প সংখ্যক ছবি ও মডেলিং করে কাটিয়ে দিলেও, ‘ওগো বধূ সুন্দরী’ যেন এই দিনগুলোর অপেক্ষাতেই ছিলেন! এর আগেও অনেক ছবির অফার পেয়েছেন তিনি। কিন্তু যে সব ছবি দর্শকদের কাছে পৌঁছনোর আগেই হল থেকে চলে যায়, সেই ছবি কোনও দিনই করতে চাননি।

Advertisement

‘তিস্তা তিয়াষা’ ছাড়াও পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে জুটি বেঁধে ঋক বসুর ছবিতে এক মহিলা পুলিশ অফিসারের চরিত্রে দেখা যাবে তাঁকে। পরমের মতো অভিনেতার সঙ্গে কাজ করবেন বলে যারপরনাই খুশি ঋতাভরী। পরমের হিন্দি ছবি শেষ হলে সেপ্টেম্বরে এ ছবির শ্যুট শুরু হবে সিকিম ও কলকাতায়। হাতে আছে অরিন্দম শীলের ইন্দো-বাংলাদেশ ছবির কাজ। সমরেশ মজুমদারের গল্প নিয়ে এই ছবিতে ভারত থেকে তিনি আর আবীর চট্টোপাধ্যায় অভিনয় করবেন।

তনুশ্রী চক্রবর্তী

এত কাজের মধ্যেও চাইল্ড মলেস্টেশন নিয়ে গল্প লিখেছেন তিনি। তা নিয়ে পনেরো মিনিটের একটি শর্ট ফিল্ম পরিচালনা করছেন শতরূপা সান্যাল। ‘‘প্রোটাগনিস্ট ডেফ অ্যান্ড ডাম বাচ্চার ভূমিকায় দেখা যাবে সকলের প্রিয় ভুতুকে,’’ বললেন ঋতাভরী। একজন ড্রয়িং টিচারের ভূমিকায় দেখা যাবে তাঁকে। এই প্রথম শর্ট ফিল্মের জন্য গল্প লিখলেন তিনি।

কখনও স্বাধীনচেতা নিজের মর্জিতে বাঁচা দক্ষ পুলিশ অফিসারের চরিত্র, কখনও লাজুক, কম কথা বলা, ক্যারাটে দিয়ে নিজের অভিব্যক্তি প্রকাশ করা এক লড়াকু মহিলা, কখনও ঠিক পাশের বাড়ির মেয়ে... চরিত্রের বিভিন্ন শেডে নিজের অভিনয় সত্তা দর্শকদের কাছে পৌঁছে দিতে চাইছেন তিনি।

পরিচালক বন্ধু সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের কাছ থেকে টিপস নিচ্ছেন না? খুব হেসে বললেন, ‘‘সৃজিত কিন্তু বন্ধু। প্লিজ এটাই লিখবেন। সম্পর্ক নিয়ে এর চেয়ে বেশি কিছু বলার নেই। তবে সৃজিত খুব মুডি, একদিন ও আমার আঁকা ছবি দেখে আমাকে আর্টিস্ট হতে বলে, তো আর একদিন ঘর সাজানো দেখে হোম মেকার। দেখলাম, ও নিজেই একটা ছবিতে আমায় যিশুর স্ত্রীর চরিত্রে কাস্ট করেছে! ’’

কাজ-প্রেম সব কিছুর মতোই এ বারের জন্মদিনও আলাদা। ঠিক হয়েছে সুইৎজারল্যান্ডে সেলিব্রেশন হবে। সঙ্গে পছন্দের পুরুষ সৃজিত মুখোপাধ্যায়!

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.