টুইটার থেকে নিজেকে সরিয়ে নিলেন বিখ্যাত বলিউড পরিচালক অনুরাগ কাশ্যপ। তাঁর বাবা-মাকে ফোন করে হুমকি দেওয়া হচ্ছে, মেয়েকে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভয় দেখানো হচ্ছে—এই সব কারণেই এমন সিদ্ধান্ত বলে জানিয়েছেন অনুরাগ।

শনিবার অনুরাগ দু’টি টুইট করেন। প্রথম টুইটে তিনি লেখেন, ‘যখন আপনার বাবা মা-কে লাগাতার ভয় দেখানো হবে, সন্তানকে অনলাইনে হুমকি দেওয়া হবে, আপনাকে বুঝতে হবে আপনি কথা বলুন, এমনটা কেউ চায় না। হিংসার রাজ শুরু হয়েছে। নতুন ভারতে সকলকে শুভেচ্ছা।’এর কিছুক্ষণ পরেই বিদায়ী টুইটটিতে তিনি লেখেন, ‘প্রত্যেককে শুভকামনা জানাই। এটাই আমার শেষ টুইট। কারণ টুইটার ছাড়ছি আমি।নির্ভয়ে মনের কথা বলতেই যদি না পারি, তাহলে কথা না বলাই ভাল। বিদায়।’


আরও পড়ুন: জাতীয় পুরস্কারের খবরই জানে না শিশু অভিনেতা
আরও পড়ুন:জাতীয় পুরস্কারজয়ী আয়ুষ্মানের কবিতায় বুঁদ সোশ্যাল মিডিয়া

সোশ্যাল মিডিয়ায় বরাবরই নিজের রাজনৈতিক মত প্রকাশ করে এসেছেন অনুরাগ। মাসুলও গুণতে হয়েছে মতপ্রকাশের জন্যে। জম্মু-কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা রদ করার কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধেও মুখ খুলেছিলেন অনুরাগ। নিজের টুইটে তিনি সরাসরি কারও নাম না করে লেখেন, ‘১২০ কোটি মানুষের ভাল কী ভাবে হবে সেই সিদ্ধান্ত একজন একা নিলেন, এই ঘটনা ভয়ের।’এর পরেই শুরু হয় তাঁকে ট্রোল করা, আসতে থাকে হুমকি। যার জেরে একপ্রকার বাধ্য হয়েই এমন সিদ্ধান্ত ‘গুলাল’, ‘দেব ডি’, ‘সেক্রেড গেমস’ খ্যাত পরিচালকের।


অনুরাগের সেই টুইট। ছবি: সংবাদ সংস্থা



দেশ জুড়ে ‘ধর্মীয় অসহিষ্ণুতা’ এবং রামের নামে ‘উস্কানিমূলক রণহুঙ্কার’ বন্ধের অনুরোধে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে দেশের বিশিষ্ট নাগরিকদের একাংশ গত ২৩ জুলাই যে চিঠি দেন, তাদের মধ্যে ছিলেন অনুরাগও। এর জেরে টুইটার-এ প্রাণনাশের হুমকি পান। নিজের টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে অনুরাগের উদ্দেশে এক ব্যক্তি লেখেন,  কিছুদিন আগেই তিনি নিজের রাইফেল এবং শটগান পরিষ্কার করে রেখেছেন। অনুরাগের সঙ্গে সামনাসামনি হওয়ার জন্যও অপেক্ষা করে রয়েছেন তিনি।
মতপ্রকাশের স্বাধীনতা হারিয়ে, লাগাতার এই হিংসার সঙ্গে মোকাবিলা করতে একপ্রকার ব্যর্থ হয়ে টুইটার থেকে সরে যাওয়াকেই আপাতত শ্রেয় মনে করছেন, বিখ্যাত বলিউড পরিচালক।