০১ মার্চ ২০২৪
Sunidhi Chauhan

শ্রেয়ার সঙ্গে সম্পর্ক কেমন, রেষারেষি না বন্ধুত্ব? অকপটে জানালেন সুনিধি চৌহান

কলকাতায় সুনিধি চৌহান। কেকে থেকে শ্রেয়া ঘোষাল, অরিজিৎ সিংহ, বলিউডের সঙ্গীত জগতের আলো-অন্ধকারের নানা প্রসঙ্গ উঠে এল আলাপচারিতায়।

Picture of Singer Sunidhi chauhan

কলকাতায় অনুষ্ঠানের আগে খোলা মনে কথা বললেন সুনিধি চৌহান। ফাইল চিত্র।

সম্পিতা দাস
কলকাতা শেষ আপডেট: ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ১৭:৫৬
Share: Save:

রবিবার নেতাজি ইন্ডোরে মেগা শো সুনিধি চৌহানের। ‘ফোরাম ফর দুর্গোৎসব’-এর উদ্যোগেই শহরে এসেছেন সুনিধি। তবে এ বার একা নয়, সঙ্গে রয়েছে তাঁর ছেলে তেঘ। শো-এর আগে আনন্দবাজার অনলাইনের সঙ্গে খোলামেলা আড্ডায় সুনিধি।

প্রশ্ন: কলকাতায় অনেক দিন বাদে আপনার শো হচ্ছে।

সুনিধি: হ্যাঁ। অনেক দিন বাদেই এলাম। কলকাতায় আসতে সব সময় ভাল লাগে। এখানকার দর্শক প্রচণ্ড সঙ্গীত অনুরাগী। সব ধরনের গান শোনেন তাঁরা। যার ফলে এখানে গান নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা যায়। কলকাতার দর্শকের কারণেই বার বার ফিরে আসি।

প্রশ্ন: কলকাতার দর্শকদের থেকে বিশেষ কোনও প্রত্যাশা রাখেন?

সুনিধি: আমি দর্শকদের কাছে কোনও প্রত্যাশা রাখি না। তাঁরা যে আমাকে শুনতে এসেছেন, তাতেই আমি কৃতজ্ঞ। আমি শুধু পারফরম্যান্সে নিজের ১০০ শতাংশ দিতে চাই।

প্রশ্ন: প্রায় ২৫ বছরের কেরিয়ার আপনার। এই দীর্ঘ সময় ধরে প্রাসঙ্গিক থাকা কিংবা সেই একই জনপ্রিয়তা ধরে রাখা কতটা কঠিন?

সুনিধি: উত্তরটা একটু অন্য ভাবে দিতে চাই। আমার মতে, প্রাসঙ্গিক হয়ে থাকতে চাওয়াটা বিভ্রান্তিকর। আমি কোথা থেকে শুরু করেছি, সেটা কখনও ভুলিনি। এই ভাবনা বেয়ে আমি আমার ছোটবেলায় চলে যাই। বলতে পারেন, এই ভাবনা আমাকে সতেজ রাখে। আমি মনে করি, প্রতিটা শো আমার প্রথম শো। প্রতি বার মঞ্চে ওঠার আগে ভাবি, আজকে দারুণ মজা করব।

প্রশ্ন: এ বার তো সঙ্গে ছেলেকেও নিয়ে এসেছেন। ওকে কলকাতার কোথায় কোথায় ঘুরতে নিয়ে যাবেন?

সুনিধি: এই নিয়ে আমার ছেলে কলকাতায় পাঁচ বার এল। কলকাতায় আসতে হবে শুনলেই ও ভীষণ চনমনে হয়ে ওঠে। তবে কলকাতাকে কখনও ‘ক্যালকাটা’ কখনও ‘কলকাত্তা’ বলে। ভেবেছি এ বার ওকে নিয়ে আলিপুর চিড়িয়াখানায় যাব।

প্রশ্ন: মা হওয়ার পর জীবন কতটা পাল্টেছে?

সুনিধি: আসলে মা হওয়ার পর জীবনটা সন্তানকেন্দ্রিক হয়ে যায়। তবে জীবন অনেকটাই নিয়মে এসেছে। যেটা আগে ছিল না।

প্রশ্ন: মা হওয়ার পর মেয়েদের একাধিক শারীরিক পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে যেতে হয়। আপনার ক্ষেত্রে জার্নিটা কেমন ছিল?

সুনিধি: আসলে আমি চাই না যে, মঞ্চে আমার দম ফুরিয়ে যাক। আর আমি যে ভাবে পারর্ফম করি, তাতে দমের প্রয়োজন। তাই ছেলে একটু বড় হতেই অনুশীলন শুরু করলাম। মনে হল, আমাকে এ বার আমার নিজের জায়গায় ফিরতে হবে। তবে মাতৃত্ব জীবনের সব থেকে সুন্দর অনুভূতি। প্রত্যেকের এই অনুভূতির মধ্যে দিয়ে যাওয়া উচিত। আর শরীরে যে পরিবর্তন ঘটে, সেটাকে নিজের মতো করে গড়ে নেওয়ার সঠিক সময় এটাই। সন্তান ভূমিষ্ঠ হওয়ার পরের সময়টা ইচ্ছে মতো নিজের শরীরকে গড়ে নেওয়ার জন্য সেরা সময়। আমি সে ক্ষেত্রে নিজের জন্যেই মস্ত উদাহরণ।

sunidhi chauhan with her son

মাতৃত্ব জীবনের সব থেকে সুন্দর অনুভূতি জানালেন সুনিধি চৌহান। ছবি: সংগৃহীত।

প্রশ্ন: মুম্বইয়ে অভিনয় জগতের স্ট্রাগলের কথা কম-বেশি সকলের জানা। সঙ্গীত জগতের স্ট্রাগলটা কেমন?

সুনিধি: আসলে যে কোনও ক্ষেত্রেই কষ্ট রয়েছে। সাধারণ চাকরি থেকে শুরু করে সঙ্গীত, অভিনয়— সব জায়গাতেই কষ্ট রয়েছে। কষ্ট না থাকলে জীবনটা একঘেয়ে হয়ে যায়। সাফল্য পাওয়ার পর মানুষ তাঁর কষ্টের দিনগুলোকেই উদ্‌যাপন করবেন।

প্রশ্ন: জীবনে কঠিন সময়ে নিজেকে উজ্জীবিত করেন কী ভাবে?

সুনিধি: নিজের উপর খারাপ সময়ের প্রভাব পড়তেই দিই না। ঠিক তেমনই আবার ভাল সময়ে খুব বেশি উচ্ছ্বসিত হই না। আমি আসলে মুহূর্তকে নিয়ে বাঁচি।

প্রশ্ন: একটা সময় সুনিধি আর শ্রেয়া ঘোষালকে নিয়ে সারাক্ষণ তুলনা চলত। আপনাদের পারস্পরিক রেষারেষির খবর অহরহ শোনা যেত। আপনাদের ব্যক্তিগত সম্পর্ক কেমন?

সুনিধি: (হেসে) আসলে আমরা দু’জনেই পরস্পরের গায়কীর ভক্ত। আমরা যে 'বন্ধু', তা বলছি না। আমরা সহকর্মী। গানের জন্য দেখাসাক্ষাৎ হয়। সেই সম্পর্কটাই ভীষণ সুন্দর মনে হয়। বন্ধুর সঙ্গে তো আমরা কাজ করি না। ওর সঙ্গে ভাল সময় কাটে। আমরা বাইরে দেখা করার পরিকল্পনা করি। কিন্তু কখনই হয়ে ওঠে না। মানুষের অধিকার রয়েছে তুলনা করার, তাঁরা মজা পান এ সব করে। আর আমরা কাজ করে মজা পাই।

picture of shreya ghoshal and sunidihi chauhan

শ্রেয়া বন্ধু নয়, সহকর্মী, তবে যখনই দেখা হয় সময় ভাল কাটে। ছবি: সংগৃহীত।

প্রশ্ন: এই সুদীর্ঘ কেরিয়ারে কোনও আক্ষেপ রয়েছে?

সুনিধি: আমার সঙ্গে যা যা হয়েছে, ভাল-মন্দ... সব কিছু নিয়েই আজকের সুনিধি। অতীত অভিজ্ঞতাই তো আজকের সুনিধির ভিত। তাই আক্ষেপ নেই। আমি গর্বিত।

প্রশ্ন: মঞ্চে সুনিধি উঠলে কোন গানের অনুরোধ আসবেই আসবে?

সুনিধি: বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন গান জনপ্রিয় হয়। তবে ‘বিড়ি জ্বালাই লে’ সব জায়গায় সমান জনপ্রিয়। ‘সাকি সাকি’, ‘সজনা জি ওয়ারি ওয়ারি’ গাইতেই হয়।

প্রশ্ন: মুম্বই মিউজিক ইন্ডাস্ট্রিতে নাকি ‘মাফিয়া’দের দাপট! আপনার সমসাময়িক শিল্পীরা বিভিন্ন সময়ে এই নিয়ে অভিযোগ এনেছেন। আপনার কী মত?

সুনিধি: আসলে আমি যে সময় এই জগতে ঢুকেছি, এ রকম কোনও অভিজ্ঞতার সাক্ষী হতে হয়নি। ইন্ডাস্ট্রি আমার প্রতিভার কদর করেছে। আমাকে দারুণ দারুণ গান দিয়েছে। আগে যখন কোনও খারাপ অভিজ্ঞতা হয়নি, আগামী দিনেও সম্ভবত সেটা হবে না। কারণ আমার নিজের একটা জায়গা তৈরি হয়ে গিয়েছে। কেউ হয়তো তেমন কিছু চেষ্টা করবেন না।

প্রশ্ন: সমাজমাধ্যমে অনেকেই অরিজিৎ সিংহকে ‘গোট’ (গ্রেটেস্ট অফ অল টাইম) অ্যাখ্যা দিয়েছেন। আপনি কি ওঁর গান শোনেন?

সুনিধি: যদি শ্রোতাদের মনে হয়, তা হলে ভাল তো। আর অরিজিৎ এত বেশি গান গায় যে, চাইলেও আপনি ওর গানের থেকে পালাতে পারবেন না। আমি ওঁর সাফল্যে খুবই আনন্দিত।

প্রশ্ন: গত বছর এই শহরেই অনুষ্ঠান করতে এসে প্রয়াত হন কেকে। আপনিও সেই কলকাতাতেই রবিবার পারফর্ম করবেন। ওঁকে মিস করেন?

সুনিধি: নাহ্‌, ওকে মিস করি না। মঞ্চে ওঁর গান গেয়ে নিই। আক্ষেপ একটাই, খুব দ্রুত হারিয়ে ফেললাম ওকে। তবে ওঁর গানের মাধ্যমেই কেকে রয়ে যাবেন আজীবন।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:

Share this article

CLOSE