• নিজস্ব সংবাদদাতা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

চতুর্থ দফায় লকডাউনের পর শুটিং কী ভাবে শুরু হবে? বৈঠকে বসল টলিপাড়া

Tollywood
—প্রতীকী ছবি। সৌজন্য: শাটারস্টক।

করোনা আতঙ্কে স্তব্ধ ইন্ডাস্ট্রি। টান পড়েছে রুজি-রোজগারে। কাজ হারিয়ে কার্যত বেকার লাখ খানেক পেট। করোনা আবহের মধ্যে কী ভাবে পুনরায় শুটিং শুরু করা যায় তা নিয়ে আলোচনা অব্যাহত। দিন কয়েক আগে বলি ইন্ডাস্ট্রির তরফে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরের সঙ্গে  বৈঠকে বসেছিল ব্রডকাস্টার অ্যান্ড টেলিভিশন প্রোডিউসার্স গিল্ড। প্রোডিউসার্স গিল্ডের তরফে টুইটারে ৩৭ পাতার একটি অ্যাকশন প্ল্যানও প্রকাশ করা হয়েছিল। টলিউডের অবস্থাও তথৈবচ। ইতিমধ্যেই এক চ্যানেল চারটে ধারাবাহিক বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ভবিষ্যৎ কী হবে সেই চিন্তায় ঘুম উড়েছে কলাকুশলী-টেকনিশিয়ানদের। এ ভাবে আর কতদিন? শুটিংয়ে ফিরতে মরিয়া সবাই। কিন্তু সুরক্ষার কথাও তো মাথায় রাখাতে হবে। তাই করোনাকালেই আবারও শুটিং শুরু করা নিয়ে আলোচনায় বসল টলিপাড়া।

বৃহস্পতিবার মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসের তত্ত্বাবধানে আর্টিস্ট ফোরাম, ইম্পা, ফেডারেশন, প্রোডিউসার্স গিল্ড এবং বিভিন্ন চ্যানেলের উপস্থিতিতে একটি বৈঠকের ডাক দেওয়া হয়। সেই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন আর্টিস্ট ফোরামের সাধারণ সম্পাদক অরিন্দম গঙ্গোপাধ্যায়, কার্যকরী সভাপতি শঙ্কর চক্রবর্তী, মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসসহ বিভিন্ন চ্যানেলের কর্মকর্তারা। সুরক্ষা বিধি মেনে কী ভাবে শুটিং পুনরায় শুরু করা যায়, মূলত সেই বিষয়েই আলোচনা হয় এ দিন। 

আর্টিস্ট ফোরামের তরফ থেকে অরিন্দম গঙ্গোপাধ্যায় জানান, ওই বৈঠকে প্রত্যেক সংগঠনকেই কী ভাবে সতর্কতা মেনে কাজ করা যায়, সে বিষয়ে আগামী ২ জুন তাঁদের পরিকল্পনা জানানোর আবেদন করা হয়েছে।  ২ জুন আবারও মিটিংয়ে বসবে ইম্পা, আর্টিস্ট ফোরাম সহ সকল সংগঠন। সেই মিটিংয়ে যা সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে তাতে সকলে একমত হলে আগামী ৪ জুন মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসের কাছে তা পেশ করা হবে। এর পর মন্ত্রীর সম্মতিক্রমে প্রস্তাবিত সেই পরিকল্পনা পাঠান হবে রাজ্য সরকারের কাছে। সেখান থেকে সবুজ সংকেত পাওয়া গেলেই যত দ্রুত সম্ভব ইতিবাচক সম্ভবনার দিকে হাঁটবে টলিউড।

আরও পড়ুন: মা শুনল না, ঘরোয়া খাবারেই কাটল এ বারের জামাই ষষ্ঠী​

আরও পড়ুন: খারাপ লাগছে, আম্মুর হাতে শুঁটকি ভর্তা আর সর্ষে ইলিশ এ বার খাওয়া হল না সৃজিতের​

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন