তাঁর ‘পদ্মাবত’ নিয়ে বিতর্ক চলছেই। অভিনেত্রী স্বরা ভাস্করের খোলা চিঠি ভাইরাল হওয়ার পরে নানা দিক থেকে বিতর্ক ধেয়ে আসছে— ছবিতে জহর ব্রত ও সতী প্রথাকে মহৎ করে দেখিয়েছেন তিনি। অবশেষে মুখ খুললেন সঞ্জয় লীলা ভন্সালী। একটি ওয়েবপত্রিকাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘‘ছবিতে কোথাও জহর ব্রতের সমর্থনে কিছু বলিনি।’’ আত্মপক্ষ সমর্থনে তুলে আনলেন তিন বাঙালি পরিচালকের নামও— ঋত্বিক ঘটক, সত্যজিৎ রায় এবং হৃষিকেশ মুখোপাধ্যায়।

ভন্সালী বলেন, ‘‘সত্যজিৎ রায়ের ‘দেবী’ ছবিতে শর্মিলা ঠাকুরকে অন্ধ ধর্মীয় বিশ্বাসের শিকার হিসেবে দেখানো হয়েছিল। তার মানে কি, অন্ধ বিশ্বাসের সমর্থনে ছবিটি বানিয়েছিলেন মানিকদা?’’ তাঁর কথায়, ‘‘সে যুগের সাহসী মহিলারা আক্রমণকারীর সামনে নতিস্বীকার না-করে নিজেদের বিনাশ করেছিলেন। ইতিহাসের এই অধ্যায়টি শুধু ছবিতে তুলে ধরেছি। জহর ব্রতকে সমর্থন করিনি।’’ ভন্সালীর মন্তব্য, ‘‘মেঘে ঢাকা তারা-র
নায়িকা যক্ষ্মা রোগে মারা গিয়েছিলেন।
‘আনন্দ’-এর নায়ক ক্যানসারে। এগুলো ছবির গল্প। তার মানে তো এই নয় যে, ঋত্বিক ঘটক বা হৃষিকেশ মুখোপাধ্যায় যক্ষ্মা ও ক্যানসারকে মহৎ করে দেখিয়েছেন।’’  

ভন্সালীরই ‘গুজারিশ’ ছবির অভিনেত্রী স্বরা দিন কয়েক আগে পরিচালককে খোলা চিঠিতে লেখেন, ‘‘পদ্মাবত দেখে মনে হল, যোনিটাই সব।’’ বুধবার একটি অনুষ্ঠানে অবশ্য স্বরা বলেন, ‘‘আমি কাউকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করিনি। কেউ যদি আমার সঙ্গে একমত না হন, তাতে অসুবিধা নেই। এটাই গণতন্ত্র।’’

এ দিকে গুজরাতে ‘পদ্মাবত’-এর মুক্তিকে কেন্দ্র করে হলেতে পুলিশি নিরাপত্তার দাবিতে হাইকোর্টে আবেদন জানিয়েছেন ছবিটির প্রযোজকেরা।