×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

২৫ জুন ২০২১ ই-পেপার

সিনেমার পাশাপাশি অন্য পেশাও রয়েছে এই তারকাদের

নিজস্ব প্রতিবেদন
০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ ০০:২২

কৃতী শ্যানন

নিজের ব্র্যান্ডের প্রচারে কলকাতায়ও ঘুরে গিয়েছিলেন কৃতী শ্যানন। অন্ত্রেপ্রেনর অঞ্জনা রেড্ডির সঙ্গে টিম-আপ করে পোশাকের ব্র্যান্ড বানিয়েছেন তিনি। কলেজপড়ুয়া বা তরুণী অফিসকর্মীদের জন্যই মূলত তাঁর পোশাক। কৃতীর বিজনেস পার্টনার অঞ্জনার সঙ্গে আবার জোট বেঁধেছেন বিরাট কোহালিও। পোশাকের ব্র্যান্ড খুলেছেন এই ক্রিকেটারও।

Advertisement

আলিয়া ভট্ট

তাঁর স্টাইল সেন্স নিয়ে মিডিয়ার পাগলামি অসীম। এমনিতে তাঁর স্টাইলিস্ট রয়েছেই। কিন্তু আলিয়া নিজেও স্টাইলিংয়ে কম যান না। একটি অনলাইন পার্সোনাল স্টাইলিং প্ল্যাটফর্মের সঙ্গে পার্টনারশিপও রয়েছে তাঁর। আলিয়ার কথায়, ‘‘শুধু তারকাদের কেন? স্টাইলিস্টদের ইনপুট নেওয়ার দরকার পড়তে পারে সাধারণ মেয়েদেরও। তাঁদের জন্যই এই প্ল্যাটফর্ম। এখানে আমার স্টাইলিস্টকেও পাবেন তাঁরা!’’

দীপিকা পাড়ুকোন

নিজে একটা সময়ে অবসাদের শিকার হয়েছিলেন। সেই কারণে ২০১৫ সালে একটি সংস্থা খোলেন দীপিকা পাড়ুকোন। মনোরোগ বা অবসাদের বিভিন্ন উপসর্গের সঙ্গে লড়াই করার সাপোর্ট জোগায় এই সংস্থা। দীপিকা নিজেও প্রকাশ্যে তাঁর ডিপ্রেশন নিয়ে কথা বলেছেন, সাহস জুগিয়েছেন আক্রান্তদের। পাশাপাশি এই ফ্যাশনিস্তা একটি অনলাইন রিটেল স্টোরের সঙ্গে চুক্তি করে সেখানে লঞ্চ করেছেন নিজের পোশাকের ব্র্যান্ডও।

সানি লিওনি

জামাকাপড় নয়, তিনি আছেন পারফিউমে। নিজের সুগন্ধির ব্র্যান্ড খুলেছেন সানি লিওনি। সাধ্যের মধ্যে তার দাম। ফলে বিভিন্ন মেট্রো শহরের রিটেল স্টোরগুলোয় ভালই বিক্রি হচ্ছে সানির ব্র্যান্ডের পারফিউম। নিজের কসমেটিক লাইন খোলারও পরিকল্পনা রয়েছে সানির। এ ছাড়াও তিনি সামলান একটি রিয়্যালিটি ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ও একটি অনলাইন গেমিং পোর্টাল।



অনুষ্কা শর্মা

অনুষ্কাই বা বাদ যাবেন কেন? গত বছরই জামাকাপড়ের একটি লাইন শুরু করেছেন তিনি। তবে সেখানেই নেহাত থেমে থাকেননি। অনুষ্কাই তরুণ প্রজন্মের মধ্যে প্রথম নায়িকা যিনি প্রযোজনা সংস্থাও খুলেছেন (ক্লিনস্লেট ফিল্মস) এবং সেখান থেকে একের পর এক প্রশংসনীয় ছবি করে যাচ্ছেন। ‘এনএইচ টেন’, ‘ফিল্লৌরি’র পর সামনেই মুক্তি পাবে তাঁর অভিনীত ও প্রযোজিত নতুন ছবি ‘পরি’। প্রতি ছবিতেই ছকভাঙা প্লট উপহার দিচ্ছেন দর্শককে।

টুইঙ্কল খন্না

অভিনয় না করলেও প্রযোজনা সংস্থা খুলে ফেলেছেন টুইঙ্কল খন্না। প্রথম প্রযোজনা আর বালকির ‘প্যাডম্যান’। বরাবরই স্পষ্টবক্তা তিনি। ‘মিসেস ফানিবোনস’ নাম নিয়ে যে বইগুলি লিখেছেন, সেখানেই তাঁর স্পষ্ট কথার উদাহরণ মিলে যাবে হাতেনাতে। ‘প্যাডম্যান’-এর প্রচারে মেনস্ট্রুয়েশন সংক্রান্ত বিভিন্ন সংস্কার ভাঙতে বক্তৃতাও দিচ্ছেন টুইঙ্কল। তাঁর ইন্টিরিয়র ডিজাইনের সংস্থাও রয়েছে বহু দিন ধরে।



সোনম কপূর

বোন রিয়া কপূরের সঙ্গে মিলে একটি পোশাকের ব্র্যান্ড খুলেছিলেন সোনম কপূর। তার পর থেকে দুই বোনকে প্রায়ই কোনও ইভেন্টে বা ছবির প্রচারে নিজেদের ব্র্যান্ডের পোশাকেই দেখা যায়! সোনমের ফ্যাশনিস্তা ইমেজটাও ব্র্যান্ড ভ্যালু বাড়িয়েছে।

হুমা কুরেশি

সদ্যই হুমা ঘোষণা করেছেন তাঁর নিজের ব্র্যান্ডের কথা। সেটিও পোশাকের ব্র্যান্ড। তবে তার নাম ঠিক হয়নি এখনও। হুমা জানিয়েছেন, অল্পবয়সি মেয়েদের জন্যই পোশাক রাখবেন তাঁর লাইনে। যে মেয়েরা সাজতে-গুজতে ভালবাসে, অথচ বড় ব্র্যান্ডের পোশাক কেনার সামর্থ্য নেই, তাদের কথাই মাথায় রাখছেন হুমা।

প্রিয়ঙ্কা চোপড়া

ইনি তো এখন আন্তর্জাতিক তারকা! শুধু অভিনয়ে থেমে না থেকে অনেক কিছুই করেছেন। গানের সিঙ্গলস বের করা, নিজের প্রযোজনা সংস্থা ‘পার্পল পেবল পিকচার্স’ চালানো— সব করছেন। দুঃস্থ শিশুদের জন্য পড়াশোনা ও স্বাস্থ্য সংক্রান্ত অনুদান জোগানোর একটি সংস্থাও রয়েছে তাঁর নামে।

বাংলাতেও যাঁরা

প্রথমেই যাঁর কথা মাথায় আসে, তিনি ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। অভিনয়ের পাশাপাশি ছবি প্রযোজনা করেছেন। নিজের নাচের দলও রয়েছে তাঁর। তা ছাড়াও থ্যালাসেমিয়া আক্রান্ত শিশুদের জন্য বিভিন্ন রকম সহযোগিতা করে থাকেন তিনি।

অর্পিতা চট্টোপাধ্যায়ও নয়়ডায় নিজের কোম্পানি খুলেছিলেন, অ্যাপ-নির্ভর ভিস্যুয়াল কনটেন্ট বানানোর। সেই সূত্রে তাঁকে একটা সময়ে কলকাতা-নয়ডা যাতায়াতও করতে হতো। আপাতত কলকাতাতেই আছেন শুটিংয়ের জন্য।

তনুশ্রী চক্রবর্তী খুলে ফেলেছিলেন দু’টি রেস্তোরাঁ। তার মধ্যে নিউ আলিপুরের রেস্তোরাঁটি এখনও চলছে রমরমিয়ে।

Advertisement