দু’য়ের কোটাও এখনও পূর্ণ করেনি তৈমুর আলি খান। অন্য দিকে তৈমুরের বান্ধবী হিসেবে যাকে কল্পনা করা হচ্ছে ফেব্রুয়ারিতে সবেমাত্র একের কোটা পেরিয়েছে সেও। আর ইতিমধ্যেই তাদের দু’জনকে ভবিষ্যত্ প্রেমিক-প্রেমিকার আসনে বসিয়ে ফেললেন মেয়ের বাবা! বললেন, মেয়ে বড় হয়ে তৈমুরের সঙ্গে ডেট করবে আর সে জন্য তিনি চান না তৈমুরকে দাদা সম্বোধন করুক তাঁর মেয়ে। বলতে পারেন এক বছরের খুদের এমন দূরদর্শী পিতা কে?

তিনি কর্ণ জোহর। রেডিও শো ‘কলিং কর্ণ’-য়ে অন এয়ার এমন সম্ভাবনার কথা বলেছেন তিনি। কিন্তু হঠাৎ এমন কথা বলতে গেলেন কেন? বিষয়টা তা হলে একটু খুলেই বলা যাক।

এই শো-এ কলার ফোন করে বিভিন্ন বিষয় কর্ণের সঙ্গে শেয়ার করেন। তাঁদের সমস্যার কথা বলেন এবং কর্ণ তা যথাসাধ্য সমাধানের চেষ্টা করেন। সম্প্রতি এক কলার ফোন করে কর্ণকে তাঁর কিছু সমস্যার কথা জানান। সমস্যাটা এরকম, এক ছেলেবেলার বন্ধুর সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক হয়েছে। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত ছোট থেকেই তাঁরা দু’জন একে অপরকে দাদা এবং বোন বলে সম্বোধন করে আসছেন। কারণ তাঁদের বাবা-মা ছোট থেকে তাঁদের এমনই সম্বোধন করতে শিখিয়েছেন। এখন কোনওভাবেই সম্পর্কের কথা তাঁরা পরিবারে জানাতে পারছেন না।

আরও পড়ুন: দেশি গার্লদের বিদেশি বয়ফ্রেন্ড

সমস্যার সমাধান কী ভাবে করা যেতে পারে তার একটা পরামর্শ কর্ণ জোহর তাঁকে দিয়েছেন। তার পাশাপাশি নিজের মেয়ে রুহি জোহর আর তৈমুরের প্রসঙ্গ টেনে তাদের ডেট করা নিয়ে ওই মন্তব্য করেছেন। কর্ণ জানান, তিনি কখনও চান না যে রুহি আর তৈমুর একে-অপরকে দাদা-বোন বলে ডাকুক। কারণ কে বলতে পারে, তারা হয়ত বড় হয়ে ডেট করবে। যদি এমন হয় তা হলে তাঁর খারাপ লাগারও কিছু নেই বলে জানান কর্ণ।