প্রস্থানম
পরিচালনা: দেবা কাট্টা
অভিনয়: সঞ্জয় দত্ত, আলি ফজ়ল, জ্যাকি শ্রফ, সত্যজিৎ দুবে
৬/১০

রাজনীতির চক্রব্যূহে আটকে পড়া একটি পরিবারের সবক’টি চরিত্র। তাদের ধর্ম সংকটের সময়টা মনে পড়ায় রামায়ণ-মহাভারতকে। উত্তর প্রদেশের রাজনীতির প্রেক্ষাপট, বংশ পরম্পরায় বয়ে নিয়ে যাওয়া পারিবারিক ‘লেগাসি’, ভালবাসা, ঘৃণা, ইমানদারি আর বিশ্বাসভঙ্গের চেনা ছকে বাঁধা গল্প নিয়েই ‘প্রস্থানম’। অনেক ত্রুটি-বিচ্যুতি থাকা সত্ত্বেও সঞ্জয় দত্তের ছবিটি আপনাকে আটকে রাখবে আড়াই ঘণ্টা।

২০১০’এ নিজেরই তৈরি তেলুগু ছবির হিন্দি রিমেক করেছেন পরিচালক দেবা কাট্টা। শুরু থেকেই গল্প গতি নিয়ে নেয়, ফলে প্রথমার্ধ বেশ টানটান। রাজনৈতিক টক্কর, প্রতিহিংসার তুলনায় পারিবারিক টানাপড়েনকে বেশি জায়গা দেওয়া হয়েছে স্ক্রিপ্টে। অ্যাকশন দৃশ্যগুলো বেশ জমজমাট। কাহিনির অনেক মোচড় চেনা হলেও ফ্ল্যাশব্যাকের কয়েক জায়গায় রয়েছে চমক। যদিও মসনদের লোভ ও পিঠে ছুরি মারার খেলায় অহেতুক জটিলতা আনা হয়েছে কয়েক জায়গায়। পৌরাণিক রেফারেন্স ও উপদেশের অংশগুলিও ক্লিশেড। দ্বিতীয়ার্ধ তুলনায় একটু দীর্ঘ। সম্পাদনা আরও ঝরঝরে হতে পারত। মূল ছবিটি তিন ঘণ্টার হলেও হিন্দি ছবিটিকে কেটেছেঁটে আড়াই ঘণ্টার কমে নামাতে পারেননি নির্মাতারা। ক্যামেরার কাজও কিছু জায়গায় দুর্বল। রোম্যান্টিক সং, ভক্তিগীতি ও আইটেম নাম্বারগুলি গুঁজে দেওয়া হয়েছে যেখানে-সেখানে।

তবে এসব সত্ত্বেও উপভোগ করার মতো ছবি ‘প্রস্থানম’। শুধু ছবির মুখই নন, সঞ্জয় দত্ত এ ছবির পিছনে টাকাও ঢেলেছেন। ‘প্রস্থানম’কে আক্ষরিক অর্থেই সঞ্জয় দত্তের ছবি বলা চলে। পাঠ্যবইয়ের চরিত্রের মতো করে লেখা এ ছবির চরিত্রগুলির প্রতি সুবিচার করেছেন আলি ফজ়ল, জ্যাকি শ্রফ, চাঙ্কি পাণ্ডেরা। প্রশংসনীয় অভিনয়ে চমকে দিয়েছেন প্রায়-নবাগত সত্যজিৎ দুবেও। তবে মনীষা কৈরালাকে তেমন জায়গাই দেওয়া হয়নি স্ক্রিপ্টে। অথচ গল্পের প্রতিটি চরিত্রের যোগসূত্রটি তিনিই। আলি ফজ়লের প্রেমিকা হিসেবে অমাইরা দস্তুরের চরিত্রটিরও প্রয়োজন ছিল না। সারা ছবিতে জ্যাকি শ্রফের প্রায় কোনও সংলাপই নেই। অথচ বাঙ্ময় অভিব্যক্তির জোরে সঞ্জুবাবার যোগ্য সঙ্গত করেছেন জগ্গুদাদা। এ ছবির প্রাপ্তি আলি ফ‌জ়লের অভিনয়। বড় পর্দা, ওয়েব সিরিজ় সব মাধ্যমেই নিজের জাত চেনাচ্ছেন এই অভিনেতা। কাহিনিতে একমাত্র এই চরিত্রটিই সবচেয়ে মানবিক, অথচ ভীষণ ভাবে ‘ভালনারেব্‌ল’।

দক্ষিণী ছবির পরিচিত মশলায় রাঁধা বলিউড ফ্লেভারের ডিশ বলা চলে এই ছবিকে। বিনোদন জোগানোর ক্ষেত্রে তাই পিছিয়ে থাকবে না ‘প্রস্থানম’।