• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

মুম্বইয়ে কোয়রান্টিনে পাঠানো হল সুশান্ত-রহস্যের তদন্তকারী অফিসারকে, নিন্দায় নীতীশ কুমার

Nitish Kumar
বিএমসি-র ভূমিকার নিন্দায় নীতীশ কুমার।

সুশান্ত সিংহ রাজপুতের মৃত্যুকে ঘিরে বিহার এবং মহারাষ্ট্রের মধ্যে সঙ্ঘাতের পারদ ক্রমশ চড়ছে। রবিবার সুশান্তের অস্বাভাবিক মৃত্যু-কাণ্ডে নতুন পর্বের অবতারণা হয় মুম্বইয়ে। সেই ঘটনাকে কেন্দ্র করেই বৃহন্মুম্বই মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন (বিএমসি)-র বিরুদ্ধে তদন্তে অসহযোগিতার অভিযোগ তুলেছে বিহার পুলিশ। ওই রাজ্যের ডিরেক্টর জেনারেল অব পুলিশ (ডিজিপি) গুপ্তেশ্বর পাণ্ডে অভিযোগ করেছেন, সুশান্তের মত্যুর তদন্তে মুম্বইয়ে যাওয়া পটনার আইপিএস অফিসারকে জোর করে কোয়রান্টিনে পাঠিয়েছে বিএমসি। সোমবার ওই ঘটনার নিন্দা করেছেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারও। তার জেরে স্বাভাবিক ভাবেই বিষয়টি ভিন্ন মাত্রা পেয়েছে।

সুশান্ত সিংহ রাজপুতের অস্বাভাবিক মৃত্যু নিয়ে বিহারে মামলা দায়ের করেছেন প্রয়াত অভিনেতার বাবা। বিহার পুলিশের তরফে সেই অভিযোগের তদন্তভার দেওয়া হয় আইপিএস অফিসার তথা পটনা পূর্বের পুলিশ সুপার বিনয় তিওয়ারিকে। বিহার পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, তদন্তকারী দল মুম্বই গিয়েছিল আগেই। রবিবার বাণিজ্য নগরীতে পৌঁছন বিনয়। আর তার পরেই বিতর্কের সূত্রপাত। বিহার পুলিশের অভিযোগ, বিএমসি ওই তদন্তকারী দলের সঙ্গে অসহযোগিতা করছে। বিনয় তিওয়ারিকে ‘জোর করে’ কোয়রান্টিনে পাঠানো হয়েছে। এ নিয়ে টুইটারে অভিযোগ করেন বিহারের ডিজিপি গুপ্তেশ্বর পাণ্ডে। তাঁর দাবি, আইপিএস অফিসার বিনয় তিওয়ারি সরকারি কাজে মুম্বই গেলেও তাঁকে ‘‘রাত ১১টার সময় কোয়রান্টিনে যেতে বাধ্য করেন বিএমসির আধিকারিকরা।’’ তাঁর আরও অভিযোগ, ‘‘বার বার অনুরোধ করলেও আইপিএস অফিসারদের মেসে ঠাঁই হয়নি বিনয় তিওয়ারির। তিনি গোরেগাঁওয়ের একটি গেস্ট হাউসে রয়েছেন।’’

সুশান্ত সিংহ রাজপুতের মৃত্যুকে কেন্দ্র করে রাজনীতির হাওয়া প্রথমে গরম হতে শুরু করেছিল মুম্বইয়ে। কিন্তু রাজনৈতিক তৎপরতার সেই ভরকেন্দ্র এখন ক্রমশ সরে যাচ্ছে সুশান্তের নিজের রাজ্য বিহারে। মুম্বই পুলিশের তদন্তে বিশ্বাস নেই, তদন্ত করাতে হবে সিবিআই-কে দিয়ে— এই দাবিতে এখন গলা মেলাতে শুরু করেছে বিহারের প্রায় সব রাজনৈতিক দল। এর মধ্যেই রবিবার রাতের ওই ঘটনায় শোরগোলের পারদ বেশ খানিকটা চড়ে গিয়েছে। বিষয়টি নিয়ে মুখ খুলেছেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারও। তিনি বলেন, ‘‘তাঁর (আইপিএস অফিসার বিনয় তিওয়ারি) সঙ্গে যা ঘটেছে তা ঠিক হয়নি। এটা রাজনৈতিক কোনও বিষয় নয়। বিহার পুলিশ তার কর্তব্য পালন করছে। আমাদের ডিজিপি তাঁদের সঙ্গে কথা বলবে।’’ নীতীশের প্রতিক্রিয়া সংক্ষিপ্ত। কিন্তু বিহারের আইপিএস অফিসারকে কোয়রান্টিনে পাঠানোর ঘটনায় তিনি যে ক্ষুব্ধ তা স্পষ্ট করে দিয়েছেন ওই মন্তব্যে।

আরও পড়ুন: মনোবিদকে নিশানা সুশান্তের জামাইবাবুর

টুইটারে ওই আইপিএস অফিসারের ছবিও শেয়ার করেছেন ডিজিপি গুপ্তেশ্বর। তাতে দেখা গিয়েছে, ওই অফিসারের হাতে কোয়রান্টিনে থাকার স্ট্যাম্প দিয়েছে বিএমসি। তাতে ১৫ অগস্ট পর্যন্ত তারিখ দেওয়া। অর্থাৎ ১৫ অগস্ট পর্যন্ত কোয়রান্টিনে থাকতে হবে ওই আইপিএস অফিসারকে। বিএমসি পাল্টা জানিয়েছে, এখন কেউ বিমানে চড়ে মুম্বই পৌঁছলে তাঁকে এই গাইডলাইনই মানতে হবে। মুম্বই পুলিশ সূত্রে অবশ্য দাবি করা হয়েছে, বিহার পুলিশকে পূর্ণ সহযোগিতা করতে চাইলেও ওই দলটি নাকি বিধিনিষেধ এবং সৌজন্য মানতে রাজি হয়নি। মুম্বই পুলিশ সূত্রে আরও জানা গিয়েছে, বিহারের ওই তদন্তকারী দল কাদের জেরা করতে চায় সে সম্পর্কেও তাদের কিছু জানানো হয়নি।

আরও পড়ুন: করোনাকে হারিয়ে ফিরলেন অমিতাভ

গত ১৪ জুন বান্দ্রায় নিজের বাড়িতে ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায় বলিউড অভিনেতা সুশান্ত সিংহ রাজপুতের দেহ। তার পর থেকে গোটা দেশ জুড়ে শোরগোল পড়ে গিয়েছে। এর মাঝেই অভিনেত্রী তথা সুশান্তের বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেওয়ার অভিযোগ দায়ের করেন প্রয়াত বলিউড অভিনেতার বাবা। সুশান্ত মৃত্যু-রহস্যের তদন্তে নেমেছে মুম্বই পুলিশও। ইতিমধ্যেই প্রায় ৪০ জনের বয়ান রেকর্ড করে ফেলেছে তারা। তার মধ্যে সুশান্তের বাড়ির কর্মচারি থেকে শুরু করে রয়েছেন মহেশ ভট্ট, সঞ্জয় লীলা ভন্সালি, আদিত্য চোপড়ার মতো পরিচালকও।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন