এই প্রথম নয়। গার্হস্থ্য হিংসার অভিযোগেই ২০০৭ সালে প্রথম স্বামী রাজা চৌধরিকে ডিভোর্স দিয়েছিলেন টেলিভিশনের অভিনেত্রী শ্বেতা তিওয়ারি। দ্বিতীয় স্বামী অভিনব কোহালির বিরুদ্ধেও একই অভিযোগ আনলেন অভিনেত্রী।

মদ্যপ অবস্থায় শ্বেতাকে মারধর করা ছাড়া শ্বেতার মেয়ে পালককে অশালীন ছবি দেখানোরও অভিযোগ উঠেছে অভিনবের বিরুদ্ধে। পালককেও মারধরের অভিযোগ রয়েছে শ্বেতার স্বামীর বিরুদ্ধে। যার জেরে মুম্বইয়ের সামতা নগর পুলিশ অভিনবকে গ্রেফতার করেছে বলে খবর।

২০১৩ সালে অল্প কয়েক দিনের আলাপের পরেই অভিনবকে বিয়ে করেন শ্বেতা। তাঁদের দু’বছরের একটি ছেলেও রয়েছে। এর আগেও শ্বেতা-অভিনবের দাম্পত্যে সমস্যা খবরের শিরোনামে এসেছে। তবে প্রশ্ন করা হলে, দু’জনেই সংবাদমাধ্যমকে এড়িয়ে যান।