এ এক সম্পূর্ণ অজানা ফ্রেম!

নাসিরুদ্দিন শাহ লড়াই চালাচ্ছেন ধর্মনিরপেক্ষ এক মননের জন্য। অন্য দিকে সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের ভাবাদর্শের পক্ষে তর্ক করে চলেছেন নাসিরের বিরুদ্ধে।

প্রতিপক্ষ আর বিপক্ষের পাল্টা যুক্তিতে প্রখর বৈশাখে ঠান্ডা হয়ে আছে চারপাশ।

কী হয়! কী হয়!

নাসিরের দরাজ আত্মবিশ্বাসী স্বর কখনও বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছে সৌমিত্রের ‘অবজেকশন’-এ।

এ ভাবেই পরিচালক শৈবাল মিত্রের ‘দেবতার গ্রাস’-এর এই জোরদার সংলাপ ফ্লোরে আছড়ে পড়ছে। বাকি সব স্তব্ধ!

চিন্তিত কঠিন মুখ কৌশিক সেনের। সাংবাদিকের চরিত্রে তিনি এই ছবিতে। ফ্লোরের বাইরে নাসিরুদ্দিন বলেছেন, ‘ওপেনটি বায়োস্কোপ’ দেখেছেন তিনি। ‘কৌশিক আর ঋদ্ধির অভিনয় খুব ভাল লাগে।’

আরও পড়ুন, ক্যানসারের লড়াই অন্য এক অভিনেত্রীর জন্য সহজ হয়েছে, বললেন সোনালি

কোর্টরুম ড্রামার দৃশ্যে অভিনয় করছেন অমৃতা চট্টোপাধ্যায়। একটা কান্নার দৃশ্যে নাসিরের উল্টো দিকে দাঁড়িয়ে তাঁর অভিনয়। ভাঙছেন অমৃতা। অন্য দিকে শুভ্রজিৎকে আলাদা করে ডেকে শুটের আগেই সংলাপ ঝালিয়েছেন নাসির। সঙ্গে আছেন অনসূয়া মজুমদার আর প্যারিস থেকে আগত আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত মাইম শিল্পী বাংলাদেশের পার্থপ্রতিম মজুমদার।

‘‘এ রকম দু’জন লেজেন্ডের সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতা কী সেটা ভাষায় প্রকাশ করা শক্ত। এই কাজ করতে করতে আমিও মুভি অ্যাক্টিং নিয়ে অনেক কিছু শিখছি,’ বললেন পরিচালক শৈবাল মিত্র।

আরও পড়ুন, মা হবেন কবে? উত্তরে প্রিয়ঙ্কা বললেন...

কালো কোটে ঢাকা এই দুই তার্কিক ফ্লোরে যতই বাগযুদ্ধে অবতীর্ণ হোন না কেন, দু’জন শট দিয়ে হঠাৎ হঠাৎ জড়িয়ে ধরছেন দু’জনকে।

কখনও বা আবেগে চোখের কোণে জল...

বাংলা ছবি কৃতজ্ঞ রইল এই চোখের জলের কাছে।

(সিনেমার প্রথম ঝলক থেকে টাটকা ফিল্ম সমালোচনা - রুপোলি পর্দার বাছাই করা বাংলা খবর জানতে পড়ুন আমাদের বিনোদনের সব খবর বিভাগ।)

ভিডিয়ো সৌজন্য: নির্মলেন্দু চট্টোপাধ্যায়