• স্রবন্তী বন্দ্যোপাধ্যায়
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

সাহেবের সঙ্গে কতটা ঘনিষ্ঠ শ্রাবন্তী?

শর্ট স্কার্ট, টপ জ্যাকেট আর বুট। চিলেকোঠায় হাজির শ্রাবন্তী। ব্ল্যাক কফি সহযোগে আনন্দবাজার ডিজিটালের সঙ্গে শুরু হল আড্ডা।

Uraan
‘উড়ান’ ছবির পোস্টারে শ্রাবন্তী ও সাহেব। —ফাইল চিত্র।

আপনি ব্ল্যাক কফি খাচ্ছেন?আপনার শাশুড়ি তো দারুণ রান্না করেন?

প্রথমেই এই প্রশ্ন!

টাচউড!খুব সুন্দর মানিয়ে নিয়েছেন পঞ্জাবি শ্বশুরবাড়ির সঙ্গে? সে কথা একটু বলুন না...

ওঁরা পুরোপুরি মাছে-ঝোলে বাঙালি। আমার স্বামীর তো এখানেই জন্ম। আর আমার শাশুড়ি যা ভাল মাছের ঝোল রান্না করে, যে কোনও বাঙালিকে হার মানাবে।

বর আসছে ‘উড়ান’-এর প্রিমিয়ারে?

আসবে নিশ্চয়ই। তবে আমার থাকা নিয়ে অনিশ্চয়তা আছে। আমার ঢাকায় শুট আছে। ভিসাও হয়ে গিয়েছে।

‘উড়ান’-এ শ্রাবন্তী কতটা উড়বেন?

সেটা দর্শক বলবে। তবে এরকম চরিত্রে আমি এই প্রথম। এখন অভিনেতাদের সময়। অভিনয় আমার প্যাশন। সেই ’৯৭ থেকে অভিনয় করছি। কাজের অভিজ্ঞতা থেকে বুঝেছি এখন ভাঙার সময়।

সেই কারণেই একেবারে সামাজিক সচেতনতার ছবি?

দেখুন, আর্সেনিকের ভয়াবহতা নিয়ে আমরা সবাই জানি। কিন্তু বিষয়টাকে গভীরে দেখা এবং সেখান থেকে একটা মেয়ের লড়াই— এই বিষয়টা প্রথম কোনও বাংলা ছবিতে এল। বিষয়ের জন্যই ত্রিদিব রমনের পরিচালনায় এই ছবি করলাম।

জিৎ থেকে দেব, মিমি থেকে নুসরত, সকলেই তথাকথিত কমার্শিয়াল ছবি থেকে বেরিয়ে অন্য ধারার ছবি করছেন...

সব ধরনের ছবিতে স্বচ্ছন্দ শ্রাবন্তী।ছবি: ইনস্টাগ্রাম থেকে সংগৃহীত।

আসলে আমরা দুটোই পারি। কমার্শিয়াল ছবি, আবার কনটেন্ট নির্ভর ছবি। এই দু’দিকেই যাতায়াত সবাই পারে না কিন্তু। (হাসি) যে পাত্রে রাখবেন সেই পাত্রের আকার ধারণ করে ফেলব। আমরা এমনই অভিনেতা। আমাকে নায়িকা তৈরি করেছে আমার দর্শকেরা। কিন্তু আমি নিজেকে অভিনেতা হিসেবেই দেখতে চাই।

এই পারার জায়গা থেকেই ‘উড়ান’-এ প্রেমের গানে আপনি নাকি সাহেবকে প্রেম করতেও শিখিয়েছেন?

হ্যাঁ, ওই ‘জেগে জেগে’গানটায় বিশেষ করে শেখাতে হয়েছে। সাহেবকে বলেছিলাম রোম্যান্টিক দৃশ্যগুলো যদি ওই ভাবে করা যায়। গানটা তো খুব জনপ্রিয় হয়েছে। জয় সরকার সুর দিয়েছে। শ্রেয়া গেয়েছে। অনেক মানুষ এই গানের কথা বলেছে আমায়।

ছবিতে আপনি স্টার নন। সাধারণ মেয়ে যে একা লড়াই করে। এরকম চরিত্রে আপনার ফ্যানরা নেবে আপনাকে?

পৌলমীর চরিত্র করার মধ্যে নিশ্চয়ই একটা চ্যালেঞ্জ আছে। কিন্তু এখন তো নিজের অভিনয়কে এক্সপ্লোর করার সময়। আয়ুষ্মান খুরানার ছবি দেখলাম ‘ড্রিম গার্ল’,কেমন মেয়েদের গলায় কথা বলেছে। ভাবা যায়? দেখতে দেখতে মনে হল, আরে আমিও তো ছেলেদের গলায় কথা বলতে পারি। এই ধরনটা যদি কোথাও ব্যবহার করতে পারতাম!এরকম চরিত্র পেতাম! (বলেই ছেলেদের গলা করে কথা বলে উঠলেন) এখন বাংলা ছবি দুটো দিক দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে বলে আমার মনে হয়। একটা ভাল গল্প আর একটা প্রমোশন। ‘উড়ান’-এর প্রমোশনে আমি খুব খুশি। লোকে বলছে, এই তোমার ‘উড়ান’আসছে। পোস্টার দেখলাম। আপনি ‘গোত্র’-র প্রমোশনের কথা ভাবুন। রঙ্গবতী গানের চ্যালেঞ্জ, ধরনটা খুব ভাল লেগেছিল আমার। ওম আমার খুব বন্ধু। ওকে তো আমার বর রঙ্গবতী বলেই ডাকে। ভাবুন, একটা গানকে এমন ভাবে প্রমোট করা হয়েছে যে সেটা মানুষের নাম হয়ে গিয়েছে।

চোখ ভিজলেও, লক্ষ্মী অধরাই আরও পড়ুন  

শিবপ্রসাদের ছবিতে কাজ করার ইচ্ছে আছে?

খুব আছে। কথাও হয়েছে কতবার। উভয় তরফে সময় মেলেনি। মিলবে, একবার না একবার নিশ্চয়ই মিলবে।

(কথা বলতে বলতে সাহেবের দিকে তাকান। তারপর বলেন, ‘‘ও খুব ভাল কথা বলে। আচ্ছা আমার সম্পর্কে ভাল ভাল কথা বলেছে নিশ্চয়ই।’’)

আপনি টেনশন করছেন ‘উড়ান’ নিয়ে?

টেনশন তো হবেই। এত খেটে কাজ। অনসম্বল কাস্ট। প্রত্যেকটা চরিত্র এত ভাল করেছে। আশা করি দর্শকের ভাল লাগবে।

আপনি ছবির প্রমোশন ছাড়া কথা বলেন না কেন?

ছবি নিয়ে কথা বলাই তো আমার কাজ।তবে এখন শীতকাল তো, মাচা নিয়ে খুব ব্যস্ত।অসম গেলাম, নর্থ বেঙ্গল। আর মেদিনীপুর তো মাচার হাব।

স্বামী রোশনের সঙ্গে শ্রাবন্তী। ছবি: ইনস্টাগ্রাম থেকে সংগৃহীত।

মাচার অবস্থা আগের চেয়ে ভাল হয়েছে?

হ্যাঁ। মাচাটা আমাদের মতো অভিনেতাদের কাছে খুব জরুরি। মানুষের কাছে পৌঁছনো যায়। এখন অবশ্য সিরিয়ালের লোকজনেরও একটা বিশেষ জায়গা তৈরি হয়েছে মাচায়।

নতুন বছরে আর কী ছবি আসছে?

শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে একটা ছবি করলাম ‘ছবিয়াল’বলে। আর আসছে রোম্যান্টিক কমেডি ছবি‘হুল্লোড়’। শুটিং চলছে রাজা চন্দের ছবি ‘আজব প্রেমের গল্প’। চ্যানেল আর হল, দুটোতেই এই ছবি রিলিজ হবে।

‘উড়ান’-এ সাহেবের সঙ্গে কেমন প্রেম? কতটা ঘনিষ্ঠ হয়েছেন?

এক্কেবারে গদগদ প্রেম...বাকিটা ছবি বলবে!

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন