রণবীরের কপূরের বাবার নাম জানেন তো?

না! কোনও কুইজ কনটেস্ট নয়। রণবীরের বাবার নাম যে ঋষি কপূর তা সকলেই জানেন। তবে নামটা বদলে ঋষি ‘কন্ট্রোভার্সি’ কপূর হলে কি খুব অত্যুক্তি হবে? প্রশ্নটা উঠছে ইন্ডাস্ট্রির অন্দরেই।

আরও পড়ুন, ফিরিয়ে দাও সৌরভের সেই সেলিব্রেশন, মিতালিদের নিয়ে টুইটে ট্রোলড ঋষি

ঋষির লেটেস্ট বিতর্কিত টুইটের মধ্যমণি ভারতীয় মহিলা ক্রিকেট দল। গত রবিবার মেয়েদের ওয়ার্ল্ড কাপ ফাইনালে চোখ আটকে ছিলেন প্রায় গোটা ভারত। আবেগে, উচ্ছ্বাসে এমন দিন যে আসতে পারে তাই বোধহয় অনেকে কল্পনা করেননি। সেই ক্লাইম্যাক্সের আবহে রীতিমতো বারুদের কাজ করেছিল ঋষির টুইট।

২০০২ সালে ন্যাটওয়েস্ট ট্রফির ফাইনাল জেতার পর লর্ডসের ব্যালকনিতে দাঁড়িয়ে জার্সি উড়িয়েছিলেন তদানীন্তন টিম ইন্ডিয়া অধিনায়ক সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। সৌরভের সেই জার্সি ওড়ানোর ছবি পোস্ট করে ঋষি টুইটারে লেখেন, “২০০২ সালে ইংল্যান্ডকে লর্ডসে হারিয়ে যে ভাবে সেলিব্রেট করেছিলেন সৌরভ, তার পুনরাবৃত্তি দেখার অপেক্ষায় রয়েছি।” আর এর পরেই সোশ্যাল মিডিয়ায় একের পর এক কটাক্ষ উড়ে আসতে থাকে ঋষি কাপুরের দিকে। কেউ লেখেন, “ভারতীয় দলের অধিনায়ক হিসেবে লর্ডসে জার্সি উড়িয়ে ছিল সৌরভ, কিছু মনে করবেন না স্যর, তবে মহিলাদের বিশ্বকাপের সময় এই মন্তব্যটি করার আগে অন্তত দু’বার ভাবা উচিত ছিল।” কেউ তাঁকে টুইটার অ্যাকাউন্ট ডিলিট করে দেওয়ারও পরামর্শ দেন।

তোপের মুখে ড্যামেজ কন্ট্রোলে নামেন ঋষি। নিজের প্রথম টুইটের ব্যাখ্যা দেন তিনি। নতুন টুইটে তিনি বলেন, “আমি কী এমন ভুল লিখেছি? আমি বলিনি সৌরভ যা করেছেন তা কোনও ভারতীয় মহিলা ক্রিকেটার করবেন। আমি বলেছি, সৌরভ যা করেছিল, তা আরও একবার করা উচিত সৌরভের। আমার কথার ভুল ব্যাখ্যা হচ্ছে।”

ঋষি যতই ক্ষতে প্রলেপ লাগানোর চেষ্টা করুন না কেন, সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রোলিং চলছে সমানতালে। অনেকেই বলছেন, এ তো প্রথম নয়। এহেন মন্তব্য করে বিতর্কিত শিরোনাম তৈরি করাটা নাকি এখন ঋষির অভ্যেসে দাঁড়িয়েছে। একবার এক সাক্ষাত্কারে রণবীর বলেছিলেন, ‘‘বাবা খুব স্ট্রেট ফরোয়ার্ড। তাই ওঁর অনেক মন্তব্য নিয়ে বিতর্ক হয়।’’ কিন্তু তাতেও চিঁড়ে ভেজেনি। ঋষি ‘কন্ট্রোভার্সি’ কপূর নামটাই এখন সোশ্যাল ওয়ার্ল্ডের পয়লা পছন্দ।