×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৮ জুন ২০২১ ই-পেপার

দেশ

বেন্টলি, হামারের মতো মহার্ঘ্য গাড়ি তো বটেই, সিরাম কর্তার গ্যারাজে রয়েছে এই ব্যাটমোবাইলও!

নিজস্ব প্রতিবেদন
০৬ জানুয়ারি ২০২১ ০৯:৩০
সুপারহিরো ব্যাটম্যানের সুপারকার ব্যাটমোবাইল। কুচকুচে কালো রঙের অদ্ভুতদর্শন গাড়ি। অন্যায়ের বিরুদ্ধে এই গাড়ি নিয়েই রুখে দাঁড়ায় ব্যাটম্যান।

পরবর্তীকালে ব্যাটম্যানের সেই গাড়ির রেপ্লিকা বাস্তবের মাটি ছুঁয়ে ছুটে বেরিয়েছে বারবারই। কখনও মস্কোর রাস্তাতে তার দেখা মিলেছে তো কখনও ভারতের পুণেতেও পথচারীদের অবাক করে চক্কর কেটেছে।
Advertisement
পুণের রাস্তায় গল্পকথার সেই গাড়ি নিয়ে চক্কর কেটেছিলেন আর কেউ নন, সিরাম ইনস্টিটিউটের সিইও আদার পুনাওয়ালা।

২০১৫ সালে ছেলের ছ’বছরের জন্মদিনে তাকে ওই গাড়িতে চড়িয়েই এক পাক ঘুরিয়ে আনতে গিয়েছিলেন আদার। দিনদুপুরে রাস্তায় অমন অদ্ভুতদর্শন গাড়িকে চক্কর কাটতে দেখে চমকে গিয়েছিলেন পুণের মানুষ। মুহূর্তে সে ছবি ভাইরাল হয়েছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়।
Advertisement
চল্লিশ ছুঁইছুঁই আদারের জীবনযাত্রা যেন আক্ষরিক অর্থেই রূপকথার পাতা থেকে তুলে আনা রাজকুমারের গল্প।

রোলস রয়েস, ফেরারি, মার্সিডিজ়, বেন্টলি, ল্যাম্বরঘিনি, হামারের মতো মহার্ঘ ব্র্যান্ডের আধুনিকতম গাড়িতে ঠাসা তাঁর গ্যারেজ। সঙ্গে রয়েছে ‘ভিন্টেজ’ গাড়ির চোখ কপালে তোলা সম্ভার।

‘ব্যাটম্যান ভার্সেস সুপারম্যান’ এবং ‘সুইসাইড স্কোয়াড’ সিনেমায় ব্যাটম্যানের যেমন গাড়ি দেখানো হয়েছিল, সেই ব্যাটমোবাইলের মতো হুবহু দেখতে গাড়িও রয়েছে তাঁর সংগ্রহে।

পুনাওয়ালার ওই গাড়িটি আসলে বহুমূল্য মার্সিডিজ় বেঞ্জ (এস ক্লাস)। এটি মার্সিডিজ এস৩৫০। যার দাম প্রায় ৯ কোটি টাকা। এর উপরে আরও ৪০ লাখ টাকা খরচ করে ছেলের জন্য গাড়িটির মডিফিকেশন করিয়েছিলেন তিনি।

সচরাচর গাড়িটি নিয়ে রাস্তায় বার হন না তিনি। বন্ধুবান্ধবের সঙ্গে এবং ছেলের আবদারেই গাড়িটি নিয়ে বার হন। এই গাড়ি চালানোর সময় চালক ব্যাটম্যানের মতে পোশাকও পরেন।

আমেরিকায় এর আগে এরকম দেখতে কয়েকটি গাড়ি প্রস্তুত করা হলেও এই দেশে সম্ভবত পুনাওয়ালাদের গাড়িশালেই এরকম গাড়ির দেখা মিলবে।

পুনাওয়ালার ব্যাটমোবাইলের সামনে, পিছনে এবং দু’পাশে মিলিয়ে মোট ৪টি এইচডি ক্যামেরা লাগানো রয়েছে। ফিল্মের মতোই মাথার ছাদ স্লাইড করে খুলে দেওয়া যায়।

চাকাগুলোও আকারে ছোট করা হয়েছে। ব্যাটমোবাইল লুক আনার জন্যই এই পরিবর্তন।

গাড়িটি ডিজাইন করার সময় ইঞ্জিনিয়ারদের মাথায় রাখতে হয়েছে ভারতের বিভিন্ন প্রান্তের রাস্তার কথা। ভারতের রাস্তায় যাতে গাড়িটির চলতে কোনও অসুবিধা না হয়, সেটিই গুরুত্ব পেয়েছে সবচেয়ে বেশি।

গাড়িটি অবশ্য বাইরে থেকেই দেখতে ব্যাটমোবাইলের মতো। ভিতরে পুরোদস্তুর মার্সিডিজ। বাইরের লুক ছাড়া তার কোনও বদল করা হয়নি।

চারজন বসতে পারবেন এই গাড়িতে। বডি বানানো হয়েছে ফাইবার গ্লাসের সঙ্গে মেটাল ফ্রেমিংয়ের দ্বারা।

গাড়িটি তৈরি করেছে মুম্বইয়ের একটি গাড়ি প্রস্তুতকারক সংস্থা। গাড়িটি এক্সক্লুসিভ। অর্থাৎ শুধুমাত্র পুনাওয়ালার জন্য সেটি বানানো হয়েছিল। আর কোনও গ্রাহকের জন্য তাই তারা এই মডেল বানাতে রাজি নয়।