Advertisement
২৯ নভেম্বর ২০২২
Agnipath Scheme

Agnipath Scheme: ‘বীর হলেও অগ্নিবীর নন’, আবেদনকারী আইনজীবীকে বললেন বিচারপতি চন্দ্রচূড়

অগ্নিবীর নিয়োগ সংক্রান্ত বিভিন্ন মামলা শুনানির জন্য দিল্লি হাই কোর্টকে মঙ্গলবার ক্ষমতা দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি চন্দ্রচূড়।

গ্রাফিক: শৌভিক দেবনাথ।

গ্রাফিক: শৌভিক দেবনাথ।

সংবাদ সংস্থা
নয়াদিল্লি শেষ আপডেট: ১৯ জুলাই ২০২২ ১৭:০৩
Share: Save:

বিভিন্ন রাজ্যে অগ্নিবীর নিয়োগ সংক্রান্ত মামলাগুলি শুনানির জন্য দিল্লি হাই কোর্টকে ক্ষমতা দিল সুপ্রিম কোর্ট। শীর্ষ আদালতের বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়ের বেঞ্চ মঙ্গলবার জানিয়েছে, বিভিন্ন রাজ্যের হাই কোর্ট এ সংক্রান্ত মামলাগুলির শুনানি স্থগিত রাখতে পারে বা সেগুলি দিল্লি হাই কোর্টে স্থানান্তর করতে পারে।

Advertisement

অগ্নিপথ প্রকল্পের বিরোধীদের অভিযোগ, দেশের যুবকদের চাকরির বড় ভরসা হল ভারতীয় সেনা। চাকরিতে স্থায়িত্বের কারণে গরিব ও নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের তরুণরা সেনার চাকরি বেছে নেন। কিন্তু অগ্নিপথ প্রকল্পে নিয়োজিত চুক্তিভিত্তিক ‘অগ্নিবীর’দের চাকরি পাওয়ার চার বছরের মধ্যেই অবসর নিতে হবে। এককালীন কিছু টাকা মিললেও থাকবে না পেনশনের ব্যবস্থা। সে ক্ষেত্রে তাঁদের আবার নতুন করে চাকরির সন্ধান করতে হবে। অনিশ্চিত হয়ে পড়বে ভবিষ্যৎ।

এই পরিস্থিতিতে অগ্নিপথ প্রকল্পের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্ট এবং বিভিন্ন রাজ্যের হাই কোর্টে একাধিক জনস্বার্থ মামলা দায়ের হয়েছে। মঙ্গলবার এ সংক্রান্ত প্রথম জনস্বার্থ মামলার শুনানিতে বিচারপতি চন্দ্রচূড় বলেন, ‘‘হাই কোর্টের এক্তিয়ারে হস্তক্ষেপ করা উচিত নয়।’’ তাই এ সংক্রান্ত মামলাগুলি শুনানির অধিকার দিল্লি হাই কোর্টের হাতে থাকা উচিত বলে জানান তিনি। নির্দেশ ঘোষণার পরে আবেদনকারী আইনজীবী এমএল শর্মার উদ্দেশে হালকাচ্ছলে বিচারপতি চন্দ্রচূড় বলেন, ‘‘আপনি বীর হতে পারেন, কিন্তু অগ্নিবীর নন।’’

Advertisement
(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.