Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৫ মে ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

বস্তায় ছিল শুকনো মাছের গুঁড়োই, দাবি ব্যবসায়ীদের

শুঁটকি মাছ বস্তায় ঢুকিয়ে সে গুলি মাছের গুঁড়ো হিসেবে বাংলাদেশে রফতানির চেষ্টা করে বিপাকে পড়লেন ব্যবসায়ী সংস্থার সদস্যরা। বাজারে ৩০০ টাকা কি

নিজস্ব সংবাদদাতা
করিমগঞ্জ ১৩ জুলাই ২০১৫ ০৩:১৩
Save
Something isn't right! Please refresh.
Popup Close

শুঁটকি মাছ বস্তায় ঢুকিয়ে সে গুলি মাছের গুঁড়ো হিসেবে বাংলাদেশে রফতানির চেষ্টা করে বিপাকে পড়লেন ব্যবসায়ী সংস্থার সদস্যরা। বাজারে ৩০০ টাকা কিলোগ্রাম দরের শুঁটকি মাছ এ ভাবে ৩০ টাকা কিলোগ্রাম দামে বাংলাদেশে রফতানি করা হচ্ছিল। করিমগঞ্জের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা তাতে আপত্তি তোলে। অভিবাসন (কাস্টমস) বিভাগের কর্তার কাছে লিখিত অভিযোগও জানায়।

তার জেরে গত কাল সাংবাদিক বৈঠক করে জেলা আমদানি-রফতানি সংস্থা। সভাপতি অমরেশ রায় জানান, করিমগঞ্জের দু’টি কাস্টমস বন্দর দিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে তাঁদের ব্যবসা চলছে। নিয়ম অনুযায়ী, বন্দরে কোনও সংস্থা সামগ্রীর ওজন বা গুণগত মান পরীক্ষা করতে পারে না। কিন্তু ওই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা কালীবাড়ি ফেরি কাস্টমসে গিয়ে অনৈতিক ভাবে ওই কাজ করেছে।

তিনি বলেন, ‘‘উত্তর পূর্বাঞ্চলে করিমগঞ্জের সুতারকান্দি বন্দর দ্বিতীয় শ্রেষ্ঠ রাজস্ব সংগ্রহ বন্দর হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। সুতারকান্দি বন্দরটি আরও উন্নত করা হচ্ছে।’’ কালীবাড়ি ফেরি কাস্টমস দিয়ে শুঁটকি মাছ বাংলাদেশে রফতানি হওয়ার অভিযোগ উড়িয়ে তিনি বলেন, ‘‘বস্তায় মাছের খাবারই ছিল।’’ সাংবাদিকরা অবশ্য তাঁকে পাল্টা প্রশ্ন করেন। কেউ কেউ রফতানি হওয়া মাছের ছবি তুলে ধরে বলেন, ‘‘কী ভাবে ভাল শুঁটকি মাছ ৩০ টাকা কিলোগ্রাম দরে বাংলাদেশে রফতানি করা হচ্ছে তা দেখুন।’’ এর পর বিষয়টি দেখে উপযুক্ত পদক্ষেপের আশ্বাস দেন অমরেশবাবু। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন সংস্থার পূর্বতন সভাপতি আবুসালেহ ফকরুদ্দিন, জমিরউদ্দিন, আব্দুল হামিদ, আলি মিঞা, কুবাদ ওয়াহিদ, আব্দুল সুক্কুর।

Advertisement

এ নিয়ে স্বেচ্ছাসেবী ওই সংস্থার সদস্য তমাল দাস বলেন, ‘‘দীর্ঘ দিন ধরে এ ভাবেই মাছের গুঁড়োর নামে শুঁটকি মাছ বাংলাদেশে রফতানি করা হচ্ছে। কাস্টমসের কয়েক জন কর্মীও এই চক্রে জড়িত। এতে রাজস্ব ফাঁকি দেওয়া হচ্ছে। ভারতে আসছে অনেক কম বিদেশি মুদ্রা’’ তিনি জানান, এ বিষয়ে প্রশাসনিক স্তরে দ্রুত কোনও ব্যবস্থাগ্রহণ না করা হলে তাঁরা অতিরিক্ত আয়ুক্তের কার্যালয়ের সামনে ধর্নায় বসবেন।



Something isn't right! Please refresh.

আরও পড়ুন

Advertisement