Advertisement
১২ জুলাই ২০২৪

অনিল অম্বানীকে বেছেছি আমরাই, রাফালে নিয়ে মোদীর পাশে দাসোর কর্তা

এক সংবাদসংস্থাকে আজ দীর্ঘ সাক্ষাৎকার দেন দাসোর সিইও এরিক ত্রাপিয়ে। তিনি বলেন, মিথ্যা বলার বদনাম তাঁর নেই। হ্যাল অফসেটে রাজি ছিল না, অনিল অম্বানীকে তিনিই বেছেছেন। সঙ্গে আরও ত্রিশটি সংস্থা। ইউপিএ এবং এনডিএ— দুই সরকারের বিমান এক, কিন্তু অস্ত্র চুক্তি আলাদা। ভারত ও ফ্রান্স সরকারের মধ্যে সমঝোতার কারণে ৯% কম দামে আপস করতে হয়েছে। তবে রাফালের দাম জানালেন না তিনিও।  

দাসোর সিইও এরিক ত্রাপিয়ে এবং নরেন্দ্র মোদী।

দাসোর সিইও এরিক ত্রাপিয়ে এবং নরেন্দ্র মোদী।

নিজস্ব সংবাদদাতা
নয়াদিল্লি শেষ আপডেট: ১৪ নভেম্বর ২০১৮ ০৫:৩২
Share: Save:

রাফালের দুর্নীতি নিয়ে নিরন্তর প্রধানমন্ত্রীর জবাব চাইছেন রাহুল গাঁধী। প্রধানমন্ত্রী এখনও চুপ। তবে জবাব দিতে এগিয়ে এলেন দাসোর সিইও। তা-ও সুপ্রিম কোর্টের শুনানির ঠিক আগে।

আর তাঁকেই মাথায় তুলে আজ সারা দিন বিজেপি বোঝাল, যেন এটিই নরেন্দ্র মোদীর জবাব। সুপ্রিম কোর্টকে প্রভাবিত করতেই রাহুল গাঁধী অনর্গল মিথ্যা বলেন। নাছোড় রাহুল বললেন, নরেন্দ্র মোদী তো সুপ্রিম কোর্টে চুরি কবুল করে বসে আছেন। আর তাঁর দল বলল, দাসোর সিইও নিজেই যেখানে অভিযুক্ত, তিনি কী করে বিচারক হন?

অনিল অম্বানীকে সঙ্গে নিয়ে মোদী যে দিন ফ্রান্সে ৩৬টি রাফাল যুদ্ধবিমান কেনার কথা ঘোষণা করেন, তার দশ দিন আগেও ত্রাপিয়ে বলেছিলেন ‘হ্যাল’-এর সঙ্গে রফা প্রায় চূড়ান্ত। সম্প্রতি লোকসানে চলা অনিল অম্বানীর সংস্থায় দাসো ২৮৪ কোটি টাকা লগ্নি করেছে বলে অভিযোগ করেন রাহুল। দাবি করেন, মোদীকে বাঁচাতে মিথ্যা বলছেন দাসোর সিইও।

এক সংবাদসংস্থাকে আজ দীর্ঘ সাক্ষাৎকার দেন দাসোর সিইও এরিক ত্রাপিয়ে। তিনি বলেন, মিথ্যা বলার বদনাম তাঁর নেই। হ্যাল অফসেটে রাজি ছিল না, অনিল অম্বানীকে তিনিই বেছেছেন। সঙ্গে আরও ত্রিশটি সংস্থা। ইউপিএ এবং এনডিএ— দুই সরকারের বিমান এক, কিন্তু অস্ত্র চুক্তি আলাদা। ভারত ও ফ্রান্স সরকারের মধ্যে সমঝোতার কারণে ৯% কম দামে আপস করতে হয়েছে। তবে রাফালের দাম জানালেন না তিনিও।

আর এই জায়গাতেই চেপে ধরলেন রাহুল। ছত্তীসগঢ়ের সভায় বললেন, ‘‘৫২৬ কোটি টাকা দরে ১২৬টি রাফাল কেনার কথা ছিল। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী চুক্তি বদলে দেন। ফ্রান্সের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ফ্রান্সোয়া ওলাঁদ সাফ জানান, অনিল অম্বানীকে বরাত দিতে বলা হয়েছে তাঁকে।’’

এই অবস্থায় রাতে আসরে নেমে বিজেপি সভাপতি অমিত শাহের দাবি, সমঝোতা করে সস্তায় রাফাল কিনেছে ভারত। দাসোকে অন্য দেশেও রাফাল বেচতে হয়। তাই প্রকাশ্যে তার দাম বলা উচিত নয়। তা ছাড়া, রাফাল চুক্তিতে গোপনীয়তার শর্তও রয়েছে।

ভোট বাজারে রাহুলের রাফাল-অস্ত্র ভোঁতা কী করে করা যায়, তা নিয়ে চিন্তায় বিজেপি। তার উপর সুপ্রিম কোর্টে কী হয়, তা নিয়েও ঘোর দুশ্চিন্তা। কংগ্রেস বলছে, সেই কারণেই বিজেপি দাসোর সিইও-কে সামনে হাজির করেছে। মোদী সরকার রাফালের বরাত না-দিলে দাসোর দেউলিয়া হত। তাই এখন মোদীর ভাষাই বলছেন ত্রাপিয়ে। কংগ্রেস নেতা রণদীপ সিংহ সুরজেওয়ালা বলেন, ‘‘এ তো মোদী আর ত্রাপিয়ের গড়াপেটা ম্যাচ। অভিযুক্তই এখন নিজের বিচার করছেন! তা সত্ত্বেও দুর্নীতি ধামাচাপা দেওয়া যাবে না।’’

অরুণ জেটলির পাল্টা আক্রমণ, ‘‘সস্তায় রাফাল কেনা হয়েছে বলেই কি খুঁত ধরছেন রাহুল? বায়ুসেনার প্রয়োজন সত্ত্বেও রাফাল কিনতে দেরি করেছিল ইউপিএ।’’

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE