Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

০৫ অক্টোবর ২০২২ ই-পেপার

URL Copied
Something isn't right! Please refresh.

জাতীয় সঙ্গীত অবমাননা, দুই কাশ্মীরি সাংবাদিককে বার করে দিল সেনা

জাতীয় সঙ্গীত এবং জাতীয় পতাকার অবমাননার অভিযোগে সেনাবাহিনীর অনুষ্ঠান থেকে বার করে দেওয়া হল দুই সাংবাদিককে। জম্মু-কাশ্মীর লাইট ইনফ্যান্ট্রি রে

সংবাদ সংস্থা
২৬ মে ২০১৬ ১৫:০৩
Save
Something isn't right! Please refresh.
Popup Close

জাতীয় সঙ্গীত এবং জাতীয় পতাকার অবমাননার অভিযোগে সেনাবাহিনীর অনুষ্ঠান থেকে বার করে দেওয়া হল দুই সাংবাদিককে। জম্মু-কাশ্মীর লাইট ইনফ্যান্ট্রি রেজিমেন্টের একটি অনুষ্ঠানে এই ঘটনা ঘটেছে।

লাইট ইনফ্যান্ট্রি রেজিমেন্ট নতুন নিয়োগ করা হয়েছে যাঁদের, তাঁদের পাসিং আউট প্যারেড অনুষ্ঠান আয়োজিত হয়েছিল রেজিমেন্টের সদর দফতরে। অনুষ্ঠানে রাজ্যের রাজস্ব, ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রী তথা প্রভাবশালী পিডিপি নেতা সৈয়দ বাশারাত আহমেদও উপস্থিত ছিলেন। ছিলেন গুরুত্বপূর্ণ আমলারাও। অনুষ্ঠানে যখন জাতীয় পতাকা উত্তোলন হচ্ছিল এবং জাতীয় সঙ্গীত বাজছিল, তখন উপস্থিত সকলকে উঠে দাঁড়াতে দেখা গেলেও ‘কাশ্মীর রিডার’ এবং ‘রাইজিং কাশ্মীর’ নামে দু’টি পত্রিকার প্রতিনিধিকে উঠে দাঁড়াতে দেখা যায়নি। তাঁরা বসেই ছিলেন। জাতীয় সঙ্গীত শেষ হতেই এক সেনা আধিকারিক ওই দুই সাংবাদিকের দিকে এগিয়ে যান এবং তাঁদের অনুষ্ঠান ছেড়ে বেরিয়ে যেতে বলেন।

দুই সাংবাদিকের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ উঠেছে, তা যে মিথ্যা নয়, জম্মু-কাশ্মীর সরকারের প্রকাশ করা ছবিতেই তা স্পষ্ট। তথ্য দফতরের প্রকাশিত সেই ছবিতেও দেখা গিয়েছে, পতাকা উত্তোলনের সময় সকলে দাঁড়িয়ে রয়েছেন। কিন্তু বসে রয়েছেন ওই দুই সাংবাদিক।

Advertisement

আরও পড়ুন:

২০০০ পরমাণু বোমা বানাতে পারে ভারত, রিপোর্টে উদ্বিগ্ন পাকিস্তান

অভিযুক্ত সাংবাদিকরা নিজেরাও কিন্তু অস্বীকার করেননি যে তাঁরা উঠে দাঁড়াননি। ‘কাশ্মীর রিডার’-এর প্রতিনিধি জুনেইদ বজাজ বলেন, ‘‘সেনাবাহিনী আমাদের নিমন্ত্রণ করেছিল অনুষ্ঠানের খবর সংগ্রহ করার জন্য। অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করার জন্য নিমন্ত্রণ করেনি। যখন জাতীয় সঙ্গীত বাজছিল, তখন আমি আমার প্রতিবেদনের জন্য নোট নিচ্ছিলাম।’’ জুনেইদ জানান, জাতীয় সঙ্গীত শেষ হতেই এক সেনা আধিকারিক এসে বলেন, ‘‘জাতীয় সঙ্গীত ও জাতীয় পতাকার জন্য সবাই উঠে দাঁড়ালেন শুধু আপনারা ছাড়া। আপনাদের মতো মানুষকে আমাদের দরকার নেই, আপনারা চলে যান।’’

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)


Something isn't right! Please refresh.

Advertisement