×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

০৭ মার্চ ২০২১ ই-পেপার

ডোকলামে চিনা সেনার অনুষ্ঠানে যোগ দিল ভারত

কৌশিক চৌধুরী
শিলিগুড়ি ০২ অগস্ট ২০১৯ ১৩:১৮
অঙ্গীকার: দুই বাহিনী।—নিজস্ব চিত্র।

অঙ্গীকার: দুই বাহিনী।—নিজস্ব চিত্র।

সিকিমের চিন সীমান্তে ডোকলাম অঞ্চলে দু’বছর আগে দু’দেশের মধ্যে রীতিমতো উত্তেজনার পরিস্থিতি তৈরি হয়। দেশের সেনাপ্রধান পর্যন্ত পরিস্থিতির গুরুত্ব বুঝে সীমান্তে ঘুরে গিয়েছিলেন। সেই অতীতকে পিছনে রেখে বৃহস্পতিবার সকালে সেই চিন সীমান্তের নাথুলায় চিনের পিপলস লিবারেশন আর্মির (পিএলএ) প্রতিষ্ঠা দিবসে অংশ নিলেন ভারতীয় সেনাবাহিনীর অফিসারেরা। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সীমান্তকে সুরক্ষিত রাখা, শান্তি বজায় রাখার অঙ্গীকার নিল দুই বাহিনী।

এ দিন দুপুরে ভারতীয় সেনা বাহিনীর এ অঞ্চলের ৩৩ কোরের সদর দফতর থেকে দু’দেশের অনুষ্ঠানের কথা সরকারি ভাবে জানানো হয়েছে। সেনাবাহিনী সূত্রের খবর, চিনের পিএলএ ১ অগস্ট ৯২ বছরে পা দিল। সম্প্রতি তাদের এই প্রতিষ্ঠা দিবসের অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার জন্য ভারতীয় সেনাবাহিনীকে আমন্ত্রণ জানানো হয়। চিনের এই আমন্ত্রণে সাড়া দিয়েছে ভারত। নাথুলার সঙ্গে সঙ্গে উত্তর সিকিমের কংরালা-তেও দুই বাহিনীর অফিসারেরা মিলিত হয়েছেন। ভারতের তরফে সেনার ব্রিগেডিয়ার পদমর্যাদার অফিসারেরা এ দিন চিনে গিয়েছিলেন।

সেনাবাহিনী জানিয়েছে, চিনের তরফে আতিথিয়তায় কোনও খামতি ছিল না। সেখানে যে সব সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়েছে, তাতে ভারতীয়রা শামিল হন। পরে দুই বাহিনীর অফিসারেরা বৈঠকও করেন। সেখানে সীমান্তের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথাবার্তা হয়েছে। ভারতীয় সেনার তরফে সুকনার মুখপাত্র কর্নেল এসজে তিওয়ারি জানান, সীমান্তে শান্তি বজায় রেখে আগামী দিনে দু’তরফের সম্পর্ক মজুবত করার পথে এ দিনের অনুষ্ঠানের গুরুত্ব যথেষ্ট।

Advertisement

২০১৭ সালের অগস্টে সিকিম সীমান্তের ডোকলাম দেশের খবরে জায়গা করে নেয়। ভারতীয় সেনাবাহিনী অভিযোগ করে, চিন নিয়ম লঙ্ঘন করে ডোকলাম সীমান্ত ঘেঁষে রাস্তা তৈরি শুরু করেছে। সেনার তরফে আপত্তি জানিয়ে তা বন্ধ করানো হয়। সেই সময়ে ওই সীমান্তে উত্তেজনাও তৈরি হয়। দু’দেশের বিদেশ মন্ত্রকের মধ্যে আলোচনায় সমস্যা মেটে। তবে সীমান্তে টানাপড়েন রয়েছেই। ২০১৮ সালেও পিএলএ ওয়েস্টার্ন থিয়েটার কম্যান্ডের একজন উচ্চ পদ মর্যাদার ডেপুটি কম্যান্ড্যারের নেতৃত্বে ১০ সেনা অফিসার ভারতে আসেন। দিল্লি, আগরা, কলকাতা হয়ে তাঁরা শিলিগুড়িতে এসেছিলেন। এখানে সুকনার ৩৩ কোরের অফিসারদের সঙ্গে চিনের বাহিনীর দীর্ঘ বৈঠকও হয়। দু’তরফে সীমান্তে শান্তি বজার রাখার কথা জানানো হয়েছিল।

Advertisement