Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২০ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

পরিযায়ী শ্রমিকদের শীঘ্রই ফেরানো শুরু হবে, ঘোষণা কর্নাটক সরকারের

সংবাদ সংস্থা
বেঙ্গালুরু ০৭ মে ২০২০ ২১:৫৬
পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা করল কর্নাটক সরকার।—ছবি এএফপি।

পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা করল কর্নাটক সরকার।—ছবি এএফপি।

প্রবল সমালেচনার মুখে পড়ে শেষমেশ পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য বিশেষ ট্রেনের ব্যবস্থা করল কর্নাটক সরকার। জানিয়ে দিল, খুব শ্রীঘ্রই শ্রমিকদের ফেরানো শুরু হবে।

বিতর্ক দানা বেঁধেছিল বুধবার কর্নাটক সরকারের ট্রেন বাতিল করার সিদ্ধান্তকে ঘিরে। শ্রমিকদের ফেরানোর জন্য বিশেষ ট্রেন চালানো যাবে না, ঘোষণা করেছিল কর্নাটক সরকার। ৪০ দিন আটকে থাকা শ্রমিকরা যখন ফেরার প্রত্যাশায় মুখিয়ে ছিলেন, তখনই ইয়েদুরাপ্পা সরকারের এমন সিদ্ধান্তে চরম বিপাকে পড়েন তাঁরা। সমাজের নানা স্তর থেকে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া আসতে শুরু করে। ইয়েদুরাপ্পা সরকারের প্রবল সমালোচনা করে বিরোধী দলগুলো।

সম্প্রতি কয়েক হাজার শ্রমিক নিয়ে বেঙ্গালুরু থেকে বিশেষ ট্রেন ছাড়ার কথা ছিল। ওই রাজ্যে কাজ করতে যাওয়া শ্রমিকদের বেশির ভাগই উত্তরপ্রদেশ, বিহার এবং পশ্চিমবঙ্গের মতো রাজ্যের বাসিন্দা। কিন্তু বুধবার ইয়েদুরাপ্পা সরকার ট্রেন স্থগিত রাখার অনুরোধ জানায় রেলের কাছে। সরকারের দাবি, রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে ফের নির্মাণকাজ শুরু হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে শ্রমিকরা বাড়ি ফিরে গেলে সেই কাজে বিঘ্ন ঘটবে।

Advertisement

আরও পড়ুন: করোনা রোগীদের পাশেই সাত-আটটি মৃতদেহ, মুম্বইয়ের হাসপাতালের ছবি নিয়ে তোলপাড়

সরকারের এমন সিদ্ধান্তে ক্ষোভ জন্মায় শ্রমিকদের মধ্যে। উত্তরপ্রদেশ থেকে আসা এক শ্রমিক বলেন, “আমাদের মাথার উপর ছাদ নেই। মালিক ঘর খালি করে দিতে বলেছেন। পুলিশ বাইরে বেরতে দিচ্ছে না। হাতে টাকা নেই। খাবার নেই। এমন সঙ্কটময় পরিস্থিতিতে বাড়িতে ফিরতে চাইছি। কিন্তু তাতেও অনুমতি দিচ্ছে না সরকার। কী ভাবে বাঁচব আমরা?”

আরও পড়ুন: জুন-জুলাইয়ে চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছবে করোনা পরিস্থিতি, আশঙ্কা এমস ডিরেক্টরের

সরকারের এই সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রশ্ন তোলে কর্নাটকের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা কংগ্রেস নেতা সিদ্দারামাইয়া। তাঁর প্রশ্ন, এই সব শ্রমিক কি চুক্তিভিত্তিক যে সরকার তাঁদের এ ভাবে আটকে রাখার পরিকল্পনা করছে? লকডাউনের পর থেকে বেশির ভাগ শ্রমিকেরই কাজ নেই। হাতের টাকা ফুরিয়ে এসেছে। বাড়ি ভাড়া দিতে না-পারায় অনেকেই সেখান থেকে উৎখাত হয়েছেন। এই অবস্থায় তাঁদের বাড়ি ফেরা আটকে সরকার আরও হয়রানির মুখে ফেলতে চলেছে বলে অভিযোগ করেছে কংগ্রেস। প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি ডি শিবকুমারের আবার বলেছেন, ‘‘এ ভাবে ওই শ্রমিকদের বন্দি করে রাখতে পারি না।’’

(অভূতপূর্ব পরিস্থিতি। স্বভাবতই আপনি নানান ঘটনার সাক্ষী। শেয়ার করুন আমাদের। ঘটনার বিবরণ, ছবি, ভিডিয়ো আমাদের ইমেলে পাঠিয়ে দিন, feedback@abpdigital.in ঠিকানায়। কোন এলাকা, কোন দিন, কোন সময়ের ঘটনা তা জানাতে ভুলবেন না। আপনার নাম এবং ফোন নম্বর অবশ্যই দেবেন। আপনার পাঠানো খবরটি বিবেচিত হলে তা প্রকাশ করা হবে আমাদের ওয়েবসাইটে।)

আরও পড়ুন

Advertisement