Advertisement
২৮ জানুয়ারি ২০২৩

নিহতের সংখ্যা গুনি না, আমরা শুধু লক্ষ্যে আঘাত করি, বললেন বায়ুসেনা প্রধান

বায়ুসেনার হামলায় কত জঙ্গির মৃত্যু হয়েছে এই প্রশ্নে ধানোয়ার জবাব, ‘‘আমরা মৃতদেহ গুণে দেখি না। শুধু দেখা হয়, নির্দিষ্ট করে দেওয়া লক্ষ্যমাত্রায় নিখুঁত হামলা করা সম্ভব হয়েছে কি না। সেই দিক থেকে এই অভিযান সফল। আমরা নির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রায় আঘাত হানতে পেরেছি। তবে কত জনের মৃত্যু হয়েছে বা কত জন আহত হয়েছে, সে বিষয়ে সরকার তথ্য দিতে পারবে।’’

সাংবাদিক সম্মেলনে বায়ুসেন প্রধান বি এস ধানোয়া। ছবি: টুইটার থেকে নেওয়া

সাংবাদিক সম্মেলনে বায়ুসেন প্রধান বি এস ধানোয়া। ছবি: টুইটার থেকে নেওয়া

সংবাদ সংস্থা
নয়াদিল্লি শেষ আপডেট: ০৪ মার্চ ২০১৯ ১৩:১৯
Share: Save:

পাকিস্তানের মাটিতে ভারতীয় বায়ু সেনার অভিযানে কত জনের মৃত্যু হয়েছে— তা নিয়ে জল্পনার অন্ত নেই। চলছে রাজনৈতিক তরজাও। বিরোধীরা প্রমাণ চাইছেন। এই পরিস্থিতিতে হামলার পাঁচ দিন পর মুখ খুলল ভারতীয় বায়ু সেনা। তবে তাতেও স্পষ্ট হল না হতাহতের সংখ্যা। সরকারের কোর্টে বল ঠেলে দিয়ে বায়ু সেনা প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল বীরেন্দ্র সিংহ ধনোয়ার দাবি, যে লক্ষ্য ছিল, তাতে নিখুঁত আঘাত হানতে সক্ষম হয়েছেন তাঁরা।

Advertisement

গত ২৬ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানের আকাশসীমায় ঢুকে বালাকোটে ব্যাপক বোমাবর্ষণ করে ফিরে আসে ভারতীয় বায়ু সেনা। সেই হামলার পর থেকেই কত জন জঙ্গির মৃত্যু হয়েছে, কতগুলি জঙ্গি ঘাঁটি ধ্বংস হয়েছে, লক্ষ্যে আঘাত হানতে পেরেছে কি না ভারতীয় বায়ুসেনা— সে সব নিয়ে নানা জল্পনা, নানা পরিসংখ্যান, সংখ্যাতত্ত্ব সামনে আসছিল। এই পরিস্থিতিতেই সোমবার সাংবাদিক বৈঠক করেন এয়ার চিফ মার্শাল বি এস ধনোয়া। বায়ু সেনার যুদ্ধবিমান ও অন্যান্য প্রযুক্তিগত উন্নয়ন নিয়ে সাংবাদিক বৈঠক হলেও স্বাভাবিক ভাবেই উঠে আসে ২৬ ফেব্রুয়ারির হামলার প্রসঙ্গ।

বায়ুসেনার হামলায় কত জঙ্গির মৃত্যু হয়েছে এই প্রশ্নে ধানোয়ার জবাব, ‘‘আমরা মৃতদেহ গুণে দেখি না। শুধু দেখা হয়, নির্দিষ্ট করে দেওয়া লক্ষ্যমাত্রায় নিখুঁত হামলা করা সম্ভব হয়েছে কি না। সেই দিক থেকে এই অভিযান সফল। আমরা নির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রায় আঘাত হানতে পেরেছি। তবে কত জনের মৃত্যু হয়েছে বা কত জন আহত হয়েছে, সে বিষয়ে সরকার তথ্য দিতে পারবে।’’ অর্থাৎ সংখ্যাটা স্পষ্ট হল না বায়ুসেনার বক্তব্যেও।

ভারতীয় বায়ু সেনার দক্ষতা, ক্ষমতা সম্পর্কে আপিনি কতটা জানেন?

Advertisement

আরও পড়ুন: যুদ্ধবিমান থেকে ইজেক্ট করেছিলেন অভিনন্দন, এতে কতটা প্রাণের ঝুঁকি জানলে চমকে উঠবেন

বায়ু সেনা মহলে ‘উড়ন্ত কফিন’ বলেই পরিচিত মিগ যুদ্ধবিমানগুলি। এই বছরই মিগ-২১ যুদ্ধবিমানগুলি বাতিল করে দিচ্ছে বায়ু সেনা। অথচ ২৭ ফেব্রুয়ারি পাক বায়ুসেনা যে হামলা চালিয়েছিল, তার মোকাবিলায় সেই মিগ-২১ যুদ্ধবিমান নিয়েই প্রতিরোধে নেমেছিলেন উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমান। এ নিয়েও নানা মহলে প্রশ্ন ওঠে। এ দিন এই প্রশ্নের জবাবে বায়ু সেনা প্রধান বলেন, ‘‘অভিনন্দন বর্তমান যে যুদ্ধবিমান নিয়ে ‘ডগ ফাইট’-এ নেমেছিলেন সেটি থার্ড জেনারেশন মিগ-২১। অনেক উন্নত প্রযুক্তির।’’

পাকিস্তানের যুদ্ধবিমান ধাওয়া করতে গিয়েই পাক অধিকৃত কাশ্মীরে ভারতীয় বায়ুসেনার হাতে ধরা পড়েছিলেন অভিনন্দন। তাঁকে ফিরিয়ে দিয়েছে পাক সরকার। তার পর থেকেই তিনি দিল্লির আর আর হাসপাতালে ভর্তি। তাঁর চিকিৎসা এবং শারীরিক পরীক্ষা চলছে। কবে ফের ককপিটে বসতে পারবেন অভিনন্দন, এই প্রশ্নের উত্তরে ধনোয়া বলেন, ‘‘সেটা উইং কমান্ডারের শারীরিক অবস্থার উপর নির্ভর করছে। চিকিৎসকরা ‘ফিট’ ঘোষণা করলেই অভিনন্দন ফের বায়ু সেনার কাজে যোগ দেবেন।’’

আরও পড়ুন: আড়ি পাতার পাক যন্ত্র নেই অভিনন্দনের শরীরে, মারের চোট পাঁজরে-মেরুদণ্ডে

বায়ু সেনার যুদ্ধবিমান ও প্রযুক্তিগত আধুনিকীকরণের বিষয়ে ধানোয়া বলেন, ‘‘এটি একটি নিরন্তর প্রক্রিয়া। সব সময়ই উন্নততর প্রযুক্তি গ্রহণ করা হয়।’’ যে ৩৬টি রাফাল যুদ্ধবিমানের বরাত দেওয়া হয়েছে, সেগুলি সেপ্টেম্বরেই বায়ুসেনা হাতে পাবে বলেও জানান ধানোয়া।

(ভারতের রাজনীতি, ভারতের অর্থনীতি- সব গুরুত্বপূর্ণ খবর জানতে আমাদের দেশ বিভাগে ক্লিক করুন।)

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, Twitter এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE
Popup Close
Something isn't right! Please refresh.