×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৬ জুন ২০২১ ই-পেপার

মিনিটে ৬০০ রাউন্ড, রুশ প্রযুক্তির কালাশনিকভ এ বার তৈরি হবে ভারতেই

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা ০৩ মার্চ ২০১৯ ১৫:০৮
এই কালাশনিকভই তৈরি করবে ভারত।—নিজস্ব চিত্র।

এই কালাশনিকভই তৈরি করবে ভারত।—নিজস্ব চিত্র।

দেশের মাটিতেই প্রায় আট লক্ষ অত্যাধুনিক মডেলের কালাশনিকভ বা একে সিরিজ রাইফেল তৈরি করবে ভারত। রবিবার উত্তর প্রদেশের অমেঠির করওয়ার অর্ডন্যান্স ফ্যাক্টরিতে ওই রাইফেল তৈরি করার প্রকল্প উদ্ধোধন করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর।

সূত্রের খবর, রাশিয়ার প্রযুক্তি ব্যবহার করে সেখানকার কালাশনিকভ রাইফেল এ দেশে বানানোর পরিকল্পনা আগেই নিয়েছিল মোদী সরকার। ২০১৮ সালে এপ্রিল মাসে প্রতিরক্ষামন্ত্রী নির্মলা সীতারমনের রাশিয়া সফরের সময় গোটা বিষয়টি বাস্তবায়িত হয় এবং চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। চুক্তি অনুসারে রুশ প্রযুক্তি ব্যবহার করে এ দেশের অস্ত্র কারখানাতেই কালাশনিকভ রাইফেলের সর্বাধুনিক মডেল বানানোর অনুমতি পায় ভারত।

গত এক বছরে একাধিক বার ভারতের অর্ডন্যান্স ফ্যাক্টরি বোর্ডের শীর্ষ কর্তারা রাশিয়ায় রুশ কর্তাদের সঙ্গে কথা বলে গোটা প্রক্রিয়া চূড়ান্ত করেন এবং পাশাপাশি রুশ বিশেষজ্ঞরা এ দেশে সরকারি অস্ত্র কারখানা ঘুরে দেখে যৌথভাবে সিদ্ধান্ত নেন কোন কারখানায় ওই রাইফেল তৈরি করা যাবে।

Advertisement

আরও পড়ুন: ‘জয় হিন্দ’ বলায় প্রিয়ঙ্কার বিরুদ্ধে পিটিশন পাকিস্তানে​

উত্তর প্রদেশের করওয়া অর্ডন্যান্স প্রজেক্ট শেষ পর্যন্ত এই অস্ত্র তৈরির বরাত পায়। একে-২০৩ সিরিজের অটোমেটিক অ্যাসল্ট রাইফেল গোটা দুনিয়ার সর্বাধুনিক অ্যাসল্ট রাইফেলের মধ্যে প্রথম সারির হিসাবে গণ্য করা হয়। রুশ স্পেশ্যাল ফোর্স এই রাইফেল ব্যবহার করে। চিরাচরিত একে৪৭-এর মূল নক্সার উপর সময়োপযোগী করে আধুনিকীকরণ করা হয়েছে ওই রাইফেলের মডেলে।

কালাশনিকভের ওয়েবসাইটে দাবি করা হয়েছে, এই রাইফেলের বাট অন্যান্য আধুনিক রাইফেলের মতই ভাঁজ করে বা লম্বা দু’ভাবেই ব্যাবহার করা যায়। যুক্ত করা হয়েছে ‘এরগোনোমিক’ পিস্তল ট্রিগার, যার ফলে ব্যবহারকারীর স্বাচ্ছন্দ্য আরও বাড়বে। সেই সঙ্গে ব্যবহারকারীর উপরের এবং নীচের হাতের গার্ড বা রক্ষাকারী অংশের সঙ্গে ‘পিকাটিনি’ রেল সংযুক্ত করার সুযোগ। সোজা ভাষায় এই রাইফেলের সঙ্গে দু’টি স্ট্যান্ড যুক্ত করা যায়, যাতে টেলিস্কোপ থেকে শুরু করে অন্য সাহায্যকারী যন্ত্র ওই রাইফেলের সঙ্গে যুক্ত করা যায়।

কালাশনিকভের নিজস্ব ওয়েবসাইট অনুযায়ী, প্রতি মিনিটে ওই রাইফেল থেকে ৬০০ রাউন্ড গুলি চালানো সম্ভব। ৭.৬২ বোরের ৩০ রাউন্ড গুলির ম্যাগাজিন। গুলি ছাড়া ওই রাইফেলের ওজন ৪ কিলোগ্রাম ১০০ গ্রাম। দৈর্ঘ ৯০০ মিলিমিটার।

আরও পড়ুন: বিমানবন্দরে জওয়ানের দেহ, মোদীর সভা বলে গেলেন না নীতীশ-সহ এনডিএ নেতারা​

প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞদের দাবি, ওই রাইফেল ভারতে সফল ভাবে উৎপাদন করা সম্ভব হলে আধাসেনা এবং সেনাবাহিনীতে বর্তমানে ব্যবহৃত পুরনো মডেলের একে সিরিজের রাইফেল বাতিল করে নতুন রাইফেল তুলে দেওয়া যাবে। ফলে বাহিনীর ‘ফায়ার পাওয়ার’ অনেকটাই বেড়ে যাবে।

(দেশজোড়া ঘটনার বাছাই করা সেরা বাংলা খবর পেতে পড়ুন আমাদের দেশ বিভাগ।)

Advertisement