Advertisement
২০ এপ্রিল ২০২৪
Indian Railways

Indian Railways: ট্রেনে ফিসফিস স্বরে কথা চাই, যাত্রীদের ‘সৌজন্য’ শেখাতে কড়া পথ নিচ্ছে রেল

ট্রেনকে বাড়ির বৈঠকখানা বানানো চলবে না। রাত পর্যন্ত চিৎকার করে কথা বলা, আলো জ্বেলে রেখে খাওয়া দাওয়া করা এ সব বন্ধ করে দিতে চাইছে ভারতীয় রেল।

প্রতীকী ছবি।

প্রতীকী ছবি।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা শেষ আপডেট: ২১ জানুয়ারি ২০২২ ১৫:০৫
Share: Save:

ট্রেনকে বাড়ির বৈঠকখানা বানানো চলবে না। রাত পর্যন্ত চিৎকার করে কথা বলা, আলো জ্বেলে রেখে খাওয়া দাওয়া করা এ সব বন্ধ করে দিতে চাইছে ভারতীয় রেল। তার বদলে রেলযাত্রীদের সৌজন্যের পাঠ নিতে হবে। নির্দিষ্ট সময়ে আলো নিভিয়ে ফেলা, জোরে কথা বলা বন্ধ করার শিক্ষা নিতে হবে। মেনে চলতে হবে কড়া নিয়ম। সব মিলিয়ে কোনও ভাবেই সহযাত্রীদের সমস্যার কারণ তৈরি করা যাবে না।

সম্প্রতি রেল মন্ত্রকের পক্ষে একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করে বলা হয়েছে যাত্রীরা যাতে তিনটি নিয়ম মেনে চলেন সে ব্যাপারে সতর্ক হতে হবে রেলকর্মীদের। প্রথমত, জোরে জোরে ফোনে কথা বলা যাবে না। জোরে গান চালানো যাবে না সফরের সময়। দ্বিতীয়ত, রাত ১০টা বেজে গেলে কামরার ভিতরে কোনও আলো জ্বেলে রাখা যাবে না। খেয়াল রাখতে হবে আলোর জন্য অন্য কোনও যাত্রীর যেন সমস্যা না হয়। তৃতীয়ত, রাত ১০টার পরে নিজেদের মধ্যে জোরে জোরে কথাও বলা যাবে না। সাধারণ কথাবার্তা যতটা সম্ভব ফিসফিস স্বরে সারতে হবে।

এই নিয়ম ভাঙলে কি জরিমানা হতে পারে? গত ৬ জানুয়ারি রেলের সব জোনের কাছে রেলবোর্ডের পক্ষ থেকে যে নির্দেশ এসেছে তাতে সে কথাও বলে দেওয়া হয়েছে। এখনও পর্যন্ত রেলের যা সিদ্ধান্ত, যাত্রীদের সৌজন্যের শিক্ষা দেওয়ার জন্য কোনও রকম জরিমানা থাকছে না। সেই সঙ্গে রেলকর্মীদের এমন নির্দেশও দেওয়া হয়েছে যে যাত্রীদের এই সব নিয়ম মানতে যেন বিনয়ের সঙ্গে অনুরোধ করা হয়। খেয়াল রাখতে হবে কোনও যাত্রী যেন অভিযোগ জানাতে না পারেন। সেই সঙ্গে রেলকর্মীদের খেয়াল রাখতে হবে যাতে প্রবীণ, শারীরিক ভাবে অক্ষম, রোগী এবং একলা সফর করা মহিলা যাত্রীদের যাতে কোনও রকম সমস্যা না হয়।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)

অন্য বিষয়গুলি:

Indian Railways trains Etiquette
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement
Advertisement

Share this article

CLOSE