×

আনন্দবাজার পত্রিকা

Advertisement

১৬ এপ্রিল ২০২১ ই-পেপার

ফরিদাবাদের হোটেলে হানা পুলিশের, আগের মুহূর্তে পালিয়ে গেল গ্যাংস্টার বিকাশ

সংবাদ সংস্থা
ফরিদাবাদ ও কানপুর ০৮ জুলাই ২০২০ ১২:০৪
হোটেলের সিসিটিভি ফুটেজে ধরা পড়ল বিকাশ দুবের ছবি। টুইটার থেকে নেওয়া

হোটেলের সিসিটিভি ফুটেজে ধরা পড়ল বিকাশ দুবের ছবি। টুইটার থেকে নেওয়া

তার খোঁজে হন্যে পুলিশ। মাথার দাম বাড়িয়ে করা হয়েছে আড়াই লক্ষ টাকা। এ বার কার্যত পুলিশের নাকের ডগা দিয়ে পালিয়ে গেল কানপুরে ৮ পুলিশকর্মী-অফিসার হত্যাকাণ্ডের মূল অভিযুক্ত গ্যাংস্টার বিকাশ দুবে। মঙ্গলবার দুপুরে হরিয়ানার ফরিদাবাদে দিল্লির অদূরে একটি হোটেলে অভিযান চালিয়ে তার দু’জন সঙ্গীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। কিন্তু অভিযানের ঠিক আগেই পালিয়ে যায় ধুরন্ধর বিকাশ। অন্য দিকে উত্তরপ্রদেশ পুলিশের তদন্তে উঠে এসেছে, বিকাশ দুবে সম্পর্কে রাজ্যের ডিআইজি অনন্ত দেও-কে চিঠি দিয়ে সাবধান করেছিলেন ঘটনার দিন নিহত ডিএসপি দেবেন্দ্র মিশ্র। কিন্তু ডিআইজি তাতে গুরুত্ব দেননি। এই অনন্ত দেওয়ের বিরুদ্ধেও বিকাশ দুবেকে তথ্য পাচারের অভিযোগ রয়েছে এবং তাঁকে সাসপেন্ড করেছে উত্তরপ্রদেশ প্রশাসন। অন্য দিকে বিকাশের মাথার দাম ফের আড়াই লাখ থেকে বাড়িয়ে করা হয়েছে পাঁচ লক্ষ টাকা।

বৃহস্পতিবার রাতে বিকাশকে ধরতে গিয়ে গুলিবৃষ্টিতে নিহত হন কানপুর পুলিশের ৮ কর্মী-অফিসার। সেই ঘটনার পর থেকেই বেপাত্তা গ্যাংস্টার। তার এক শাগরেদকে গ্রেফতার করার পর উঠে আসে, পুলিশের অভ্যন্তরেই কেউ বিকাশকে অভিযানের খবর দিয়েছিল। ঘটনার পর থেকেই বিকাশকে হন্যে হয়ে খুঁজছে পুলিশ। স্পেশাল টাস্ক ফোর্স গড়ে চলছে অভিযান। তার মধ্যেই গোপন সূত্রে পুলিশ খবর পায়, ফরিদাবাদের একটি হোটেলে রয়েছে বিকাশ। সেই অনুযায়ী মঙ্গলবার দুপুরে ওই হোটেলে হানা দেয় পুলিশ। দু’জনকে গ্রেফতার করলেও পালিয়ে যায় বিকাশ।

কিন্তু পুলিশ কী ভাবে জানতে পারল যে, বিকাশ ছিল ওই হোটেলে। দু’জনকে গ্রেফতারের পাশাপাশি হোটেলের ম্যানেজারকেও জিজ্ঞাসাবাদ করেন তদন্তকারী অফিসাররা। ম্যানেজার জানান, কিছুক্ষণ আগেই এক ব্যক্তি হোটেল ছেড়েছেন। তার পর বিভিন্ন সূত্রে এবং হোটেলের সিসিটিভি ফুটেজ দেখে পুলিশ নিশ্চিত হয় যে, পালিয়ে যাওয়া ওই ব্যক্তিই ছিল বিকাশ দুবে। হোটেলের সিসিটিভি ফুটেজেও গ্যাংস্টারের ছবি ধরা পড়েছে। তবে ওই ছবিতে বিকাশ মাস্ক পরে রয়েছে। ওই ব্যক্তিই বিকাশ বলে নিশ্চিত তদন্তকারীরা। অন্য দিকে হোটেল থেকে গ্রেফতার দু’জনের মধ্যে অঙ্কুর নামে এক ব্যক্তি বিকাশকে গা ঢাকা দিতে সাহায্য করেছিল। অন্য জন প্রভাত। সে বিকাশের গ্রামেরই বাসিন্দা।

Advertisement

আরও পড়ুন: পুলিশের গুলিতে নিহত গ্যাংস্টার বিকাশ দুবের ‘ডানহাত’ অমর

অন্য দিকে ঘটনার পর থেকেই উত্তরপ্রদেশ পুলিশে তোলপাড়। বিকাশের সঙ্গে যোগসাজশের অভিযোগে সাসপেন্ড করা হয়েছে একাধিক পুলিশ অফিসার-কর্মীকে। তার মধ্যেই উঠে এসেছে নয়া তথ্য। ঘটনার বেশ কিছু দিন আগে নিহত ডিএসপি দেবেন্দ্র মিশ্র উত্তরপ্রদেশ পুলিশের ডিআইজি অনন্ত দেওকে একটি চিঠি লিখেছিলেন। তাতে বিকাশ দুবে সম্পর্কে সাবধান করে তিনি লিখেছিলেন, যে কোনও দিন বড় কোনও ঘটনা ঘটতে পারে। নিজে সংলগ্ন বিভিন্ন থানা থেকে অন্তত ৫০ জন অফিসার নিয়ে বিকাশকে ধরতে টিম বানিয়েছিলেন। কিন্তু ডিআইজি ওই চিঠিকে পাত্তা দেননি বলে অভিযোগ। এ বার সেই চিঠি সামনে চলে আসায় অস্বস্তি আরও বেড়েছে উত্তরপ্রদেশ পুলিশের। সোশ্যাল মিডিয়াতেও সেই চিঠি ছড়িয়ে পড়েছে। যদিও উত্তরপ্রদেশ প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, এই ধরনের কোনও চিঠি পাওয়া যায়নি। তবে চিঠির খোঁজ চলছে।

আরও পড়ুন: বেড়েই চলেছে সংক্রমণ, ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ২২৭৫২, সুস্থ ৪.৫৬ লক্ষ

ফলে বিকাশের সঙ্গে পুলিশের একটা বড় অংশের যোগসাজশ যে ছিল, তা কার্যত ইতিমধ্যেই প্রামাণিত। মঙ্গলবারের অভিযানেও হাত ফস্কে পালিয়ে যাওয়ার পর ফের সেই প্রশ্ন সামনে চলে এসেছে। অর্থাৎ ২ জুন রাতে অভিযানের রাতে যে ভাবে পুলিশের মধ্যে থেকেই গ্যাংস্টারকে খবর দিয়ে দেওয়া হয়েছিল, ফরিদাবাদের হোটেলে হানার খবরও তাকে আগাম কেউ জানিয়ে দিতে পারেন। সেই সম্ভাবনাও খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

Advertisement