Advertisement
১৫ জুলাই ২০২৪
Facebook Friend Raped

নাবালিকাকে অপহরণ করে দু’বছর ধরে ‘ধর্ষণ’! লাতুর থেকে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করল পুলিশ

অভিযুক্ত পুলিশের কাছে কবুল করেছেন, গত দু’বছর ধরে নাবালিকাকে বাড়িতে আটকে রেখে ধর্ষণ করে গিয়েছেন তিনি। উত্তরপ্রদেশ পুলিশ ধৃতকে ট্রানজিট রিমান্ডে গোরক্ষপুর নিয়ে গিয়েছে।

representational image

ফেসবুক বন্ধুকে ডেকে পাঠিয়ে দু’বছর ধরে ধর্ষণের অভিযোগ। — প্রতীকী ছবি।

আনন্দবাজার অনলাইন ডেস্ক
গোরক্ষপুর শেষ আপডেট: ৩০ মে ২০২৩ ১৫:০৭
Share: Save:

উত্তরপ্রদেশের গোরক্ষপুরের এক ১১ বছরের নাবালিকাকে আটকে রেখে দু’বছর ধরে ধর্ষণের অভিযোগে মহারাষ্ট্রের লাতুর থেকে গ্রেফতার এক যুবক। ফেসবুকে দু’জনের বন্ধুত্ব হয়েছিল। তার পরে নাবালিকাকে মহারাষ্ট্রে ডেকে এনে দু’বছর ধরে এই কাণ্ড ঘটান অভিযুক্ত।

২০২১-এর ২৪ ডিসেম্বর গোরক্ষপুরে নাবালিকা নিখোঁজের অভিযোগ দায়ের হয়। বাড়ির লোকেরা নাবালিকার ঘরে তল্লাশি চালিয়ে দু’টি মোবাইল নম্বর খুঁজে পান। তার একটি নম্বরে ফোন করা হয় নাবালিকার বাড়ি থেকে। পরিবারের দাবি, ফোন ধরেন এক যুবক। নিজেকে হায়দরাবাদের শেখ বলে পরিচয় দিয়ে তিনি জানান, নাবালিকা তাঁর সঙ্গেই রয়েছেন এবং সে আর বাড়ি ফিরতে চায় না। তাই পরিবারের লোকেদের নাবালিকাকে ফিরে পাওয়ার আশা ছেড়ে দিতেও বলা হয় ফোনে।

এর পরেই বাড়ির লোকের অভিযোগের ভিত্তিতে অপহরণের মামলা রুজু করে তদন্তে নামে পুলিশ। ওই মোবাইল নম্বরের লোকেশন ট্র্যাক করে দেখা যায়, মহারাষ্ট্রের লাতুর থেকে নম্বরটি ব্যবহার করা হচ্ছে। সেই অনুযায়ী পুলিশ মহারাষ্ট্রে গিয়ে অভিযুক্ত যুবককে গ্রেফতার করে। জেরা করে পুলিশ জানতে পেরেছে, অভিযুক্ত প্রথমে গোরক্ষপুরে থাকতেন। সেখানেই ফেসবুকের সূত্র ধরে নাবালিকার সঙ্গে তাঁর পরিচয়। ক্রমশ সেই পরিচয় গড়ায় শারীরিক সম্পর্কে। এই সম্পর্কের দোহাই দিয়েই যুবক নাবালিকাকে লাতুরে ডেকে আনেন। অভিযুক্ত পুলিশের কাছে কবুল করেছেন, গত দু’বছর ধরে নাবালিকাকে বাড়িতে আটকে রেখে ধর্ষণ করে গিয়েছেন তিনি। উত্তরপ্রদেশ পুলিশ ধৃতকে ট্রানজিট রিমান্ডে গোরক্ষপুর নিয়ে গিয়েছে। তাঁর বিরুদ্ধে পকসো আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)

অন্য বিষয়গুলি:

Captive Facebook arrest
সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের মাধ্যমগুলি:
Advertisement

Share this article

CLOSE