Advertisement
২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

ওবর-মঞ্চে নওয়াজের নিশানায় নয়াদিল্লিই

বেজিংয়ে গিয়ে চিনের মেগা প্রকল্প ‘ওয়ান বেল্ট ওয়ান রোড’ (ওবিওআর তথা ওবর) নিয়ে ঢাক পেটালেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। এই প্রকল্পের অধীনে চিন-পাক অর্থনৈতিক করি়ডর (সিপিইসি) পাক-অধিকৃত কাশ্মীরের উপর দিয়ে যাবে।

নিজস্ব সংবাদদাতা
নয়াদিল্লি শেষ আপডেট: ১৫ মে ২০১৭ ১৪:০০
Share: Save:

বেজিংয়ে গিয়ে চিনের মেগা প্রকল্প ‘ওয়ান বেল্ট ওয়ান রোড’ (ওবিওআর তথা ওবর) নিয়ে ঢাক পেটালেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। এই প্রকল্পের অধীনে চিন-পাক অর্থনৈতিক করি়ডর (সিপিইসি) পাক-অধিকৃত কাশ্মীরের উপর দিয়ে যাবে। এ নিয়ে প্রথম থেকেই প্রবল আপত্তি নয়াদিল্লির। কিন্তু একাধিক শক্তিধর দেশকে পাশে নিয়ে চিন যে ভাবে বুক ঠুকে এগিয়েছে, তাতে ধোপে টেকেনি ভারতের আপত্তি। আর আজ ২৯টি দেশের উপস্থিতিতে ওবর প্রকল্পে সিলমোহর বসাল বেজিং। তাৎপর্যপূর্ণ ভাবে ওবর-মঞ্চে মার্কিন প্রতিনিধিদের সামনে নয়াদিল্লিকে কোণঠাসা করার চেষ্টা করলেন নওয়াজ।

ভারতকে নিশানা করে নওয়াজ বলেন, ‘‘সিপিইসি একটি অর্থনৈতিক প্রকল্প। সব দেশের জন্যই এর পথ খোলা। এটা রাজনীতি করার মতো কোনও বিষয় নয়। এশিয়া ও ইউরোপকে জুড়বে বেজিংয়ের এই মহাসড়ক প্রকল্প। উপকৃত হবে সব দেশ।’’ পাক প্রধানমন্ত্রীর কথায়, ‘‘ওবর প্রকল্পকে আমরা চরমপন্থা ও সন্ত্রাসবাদের সমস্যা থেকে মুক্তির পথ হিসেবে দেখছি। অঞ্চলিক রাজনীতির চেয়ে আঞ্চলিক অর্থনীতিই ঢের বেশি গুরুত্বপূর্ণ, তারও প্রমাণ এই প্রকল্প।’’

বিদেশ মন্ত্রক প্রকাশ্যে এ নিয়ে মন্তব্য না করলেও ঘরোয়া ভাবে অসন্তোষ প্রকাশ করেছে নয়াদিল্লি। সাউথ ব্লকের মতে, নওয়াজ রাজনীতিকরণের প্রশ্ন তুলছেন কী ভাবে? কাশ্মীরের দখল করে রাখা অংশে কোনও পরিকাঠামো তৈরি করারই কথা নয় তাঁদের।

গত কাল রাতেও বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র গোপাল ওয়াগলে বলেছেন, ‘‘আঞ্চলিক সংহতি ও সার্বভৌমত্ব ক্ষুণ্ণ হয় এমন কোনও প্রকল্পে সায় দিতে পারে না কোনও দেশ।’’ আজ কার্যত তারই জবাব উঠে আসে চিনফিংয়ের মুখে, ‘‘প্রতিটি দেশেরই উচিত অন্য দেশের সার্বভৌমত্ব, সংহতির প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়া। প্রত্যেকের স্বার্থ ও উদ্বেগের প্রতি নজর রাখা।’’

(সবচেয়ে আগে সব খবর, ঠিক খবর, প্রতি মুহূর্তে। ফলো করুন আমাদের Google News, X (Twitter), Facebook, Youtube, Threads এবং Instagram পেজ)
Follow us on: Save:
Advertisement

Share this article

CLOSE