Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৬ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

ভোটে খারিজ, ভিএসের পাশে নেই কেন্দ্রীয় কমিটি

রাজনৈতিক জীবনের উপান্তে এসে ফের ধাক্কা! দল প্রতিষ্ঠার সুবর্ণ জয়ন্তীর বছরে পার্টি কংগ্রেসের আগে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সমর্থন পেলেন না সিপিএমের

সন্দীপন চক্রবর্তী
কলকাতা ২৩ মার্চ ২০১৫ ০৪:২৪
ভিএস অচ্যুতানন্দন

ভিএস অচ্যুতানন্দন

রাজনৈতিক জীবনের উপান্তে এসে ফের ধাক্কা! দল প্রতিষ্ঠার সুবর্ণ জয়ন্তীর বছরে পার্টি কংগ্রেসের আগে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের সমর্থন পেলেন না সিপিএমের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ভিএস অচ্যুতানন্দন। দলের কেন্দ্রীয় কমিটির দুই-তৃতীয়াংশ সদস্য বিরুদ্ধে ভোট দিয়ে খারিজ করে দিলেন নবতিপর নেতার যাবতীয় অভিযোগ! পার্টি কংগ্রেসের আগে দিল্লি থেকে তাই প্রায় খালি হাতেই তিরঅনন্তপুরমে ফিরতে হচ্ছে কেরলের বিরোধী দলনেতাকে।

কেরলে রাজ্য সিপিএম নেতৃত্বের বিরুদ্ধে ক্ষোভে গত মাসে আলপ্পুঝায় রাজ্য সম্মেলন থেকে ওয়াক আউট করেছিলেন ভি এস। রাজ্য নেতৃত্বের কাজকর্ম নিয়ে তার আগেই দলের পলিটব্যুরোর কাছে দীর্ঘ নোট পাঠিয়েছিলেন এই বর্ষীয়ান নেতা। যার জবাবে কেরলের রাজ্য সম্পাদকমণ্ডলী আবার রীতিমতো নিন্দা প্রস্তাব পাশ করিয়েছিল ভিএসের বিরুদ্ধে। এ সব ঘটনার জেরে তিক্ততা এবং তার পরে সম্মেলনের মঞ্চে লাগাতার বিরূপ সমালোচনায় ত্রুদ্ধ ভি এস ওয়াক আউট করে বেরিয়ে গিয়েছিলেন। তাঁর সে দিনের আচরণের ব্যাখ্যা দেওয়ার সুযোগ এ বার কেন্দ্রীয় কমিটিতে ভি এস-কে দেওয়া হয়েছিল। এবং সুযোগ পেয়ে রবিবার ভিএস কেন্দ্রীয় কমিটিতে ক্ষোভ উগরে দেন দলের রাজ্য নেতৃত্বের বিরুদ্ধে। কিন্তু বৈঠকের শেষে দলের সাধারণ সম্পাদক প্রকাশ কারাট জানিয়ে দিয়েছেন, দক্ষিণী রাজ্যের বিরোধী দলনেতার ব্যাখ্যায় তাঁরা আদপেই সন্তুষ্ট নন!

বস্তুত, আগামী মাসে বিশাখাপত্তনমের পার্টি কংগ্রেসেই সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে বিদায় নেওয়ার কথা কারাটের। তার আগে তিনি দেখাতে চাইছেন, দল চলছে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতেই। শুধু তাঁর ইচ্ছা-অনিচ্ছায় যাবতীয় সিদ্ধান্ত হচ্ছে না। সিপিএম সূত্রের ব্যাখ্যা, অত্যন্ত কৌশলেই এ বার কেন্দ্রীয় কমিটিতে পদক্ষেপ করেছেন কারাট। প্রথমে বৈঠকের অবসরে ভিএসের সঙ্গে একান্তে কথা বলেছেন। তার পরে প্রবীণ ভি এস-কে কমিটির সামনে নিজের বক্তব্য জানানোর সুযোগ দিয়েছেন। তার পরে রীতিমতো ভোটাভুটি করিয়ে যাচাই করে নিতে চেয়েছেন, ভি এসের অভিযোগ সংবলিত নোট দলের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব বিবেচনা করবে কি না। ভোট ভিএসের বিপক্ষে যাওয়ার পরে জবাবি ভাষণে কারাট জানিয়ে দিয়েছেন, ভি এসের ওই সব অভিযোগ নিয়ে রাজ্য স্তরে আগেই আলোচনা হয়েছে। ভবিষ্যতেও হবে। কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের এখানে হস্তক্ষেপ দরকার নেই।

Advertisement

কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠকের পরে কারাট বলেছেন, “রাজ্য সম্মেলন ছেড়ে চলে যাওয়াকে দল গুরুতর শৃঙ্খলাবিরোধী কাজ বলেই মনে করে। এ ব্যাপারে যে ব্যাখ্যা ভি এস দিয়েছেন, কেন্দ্রীয় কমিটি তাকে সন্তোষজনক মনে করে না।” স্বভাবতই গুঞ্জন তৈরি হয়েছে, এর পরে পার্টি কংগ্রেসে কি তা হলে ভি এস-কে কেন্দ্রীয় কমিটি থেকেও ছেঁটে ফেলা হবে? দলীয় সূত্রে বলা হচ্ছে, কেরলের বিষয় দেখভালের জন্য পলিটব্যুরোর তৈরি কমিশনের চূড়ান্ত রিপোর্টের উপরে অনেক কিছুই নির্ভর করছে। কেরল রাজ্য নেতৃত্বের নেওয়া ভি এস-বিরোধী নিন্দা প্রস্তাব এবং তার বিরুদ্ধে বিরোধী দলনেতার প্রতিবাদ এই বিতর্কিত অধ্যায় আপাতত পলিটব্যুরোর কমিশনের হেফাজতেই পাঠানো হয়েছে। আর ভি এস-কেও বলা হয়েছে, এখন বিরোধী দলনেতার পদে কাজ করে যেতে।

সিপিএম সূত্রের খবর, কেন্দ্রীয় কমিটির সামনে সুযোগ পেয়ে ভি এস এ দিন সবিস্তার বোঝাতে চেয়েছেন, কী ভাবে একতরফা সিদ্ধান্ত নিয়ে কেরলের রাজ্য নেতৃত্ব তাঁকে কোণঠাসা করে ফেলেছেন। এই বয়সে এসে ‘উপদলীয় কার্যকলাপ’ বা ‘দল-বিরোধী এজেন্টে’র তকমা নিয়ে তিনি থাকতে চান না, কেন্দ্রীয় কমিটিতে জানিয়েছেন। এমনকী, গত সপ্তাহে তিরুঅনন্তপুরমে ই এম এস নাম্বুদ্রিপাদের জন্মবার্ষিকীতে তিনি হাজির থাকা সত্ত্বেও তাঁকে বক্তৃতা করতে না দিয়ে কী ভাবে অনুষ্ঠান শেষ করে দেওয়া হয়েছে, সে বৃত্তান্তও তুলে ধরেছেন। কিন্তু এত সবের পরেও কারাট যে ভাবে জানিয়ে দিয়েছেন কোনও কিছুর জন্যই সম্মেলন বয়কট মেনে নেওয়া যায় না, তাতে ভি এসের সামনে কানা গলিই দেখছে দলের বড় অংশ!

দলের কেন্দ্রীয় কমিটির এক সদস্য অবশ্য বলছেন, “সম্মেলন বয়কট করার পরেও রাজ্য বিধানসভায় গুরুতর সমস্যায় যথাযথ ভূমিকা পালন করেই নেতৃত্ব দিচ্ছেন ভি এস। তাই এক কথায় তাঁর ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া কঠিন হয়ে যাচ্ছে!”

আরও পড়ুন

Advertisement