Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

০৫ ডিসেম্বর ২০২১ ই-পেপার

রাজনীতিতে প্রিয়ঙ্কা, কী বলছে দেশ? সামনে এবিপি নিউজ- সিভোটার জনমত সমীক্ষা

নিজস্ব প্রতিবেদন
লখনউ ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ ২০:৩৫
প্রিয়ঙ্কা গাঁধী। নিজস্ব চিত্র।

প্রিয়ঙ্কা গাঁধী। নিজস্ব চিত্র।

প্রিয়ঙ্কার রাজনীতিতে আসায় কতটা লাভ হল কংগ্রেসের? বিজেপি শিবিরের ভোটব্যাঙ্কে তার কোনও প্রভাব পড়বে কি? আদৌ প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য যোগ্য প্রিয়ঙ্কা? লোকসভা নির্বাচনের ঠিক আগেই সামনে এল এমনই নানা প্রশ্ন নিয়ে করা জনমত সমীক্ষার রিপোর্ট।

আগামী ১১ ফেব্রুয়ারি দলের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আনুষ্ঠানিক ভাবে দায়িত্ব নিচ্ছেন প্রিয়ঙ্কা। তার ঠিক আগেই তাঁকে নিয়ে এই সমীক্ষা করেছে এবিপি নিউজ এবং সিভোটার।

প্রিয়ঙ্কা গাঁধীর সঙ্গে তাঁর ঠাকুমার কোনও মিল আছে? এই প্রশ্নের উত্তরে ৪৪ শতাংশ মানুষ বলেছেন, তাঁরা ইন্দিরার সঙ্গে প্রিয়ঙ্কার মিল খুঁজে পান। ৪২ শতাংশ মানুষ তার উল্টো রায় দিয়েছেন। জানেন না বলেছেন ১৩ শতাংশ মানুষ।

Advertisement



কংগ্রেস সভাপতি পদে রাহুল গাঁধী ব্যর্থ বলেই কি আনা হল প্রিয়ঙ্কা গাঁধীকে? ৫০ শতাংশ মানুষ এরকমটাই মনে করেন বলে সমীক্ষায় জানিয়েছেন। ৪৬ শতাংশ মানুষ এই প্রশ্নের সঙ্গে একমত নন।

আরও পড়ুন: একদা লৌহপুরুষের হিরণ্ময় নীরবতা! চলতি লোকসভায় পাঁচ বছরে বললেন ৩৬৫ শব্দ



আরেকটি প্রশ্ন ছিল, প্রিয়ঙ্কাকে কি অনেক দেরিতে রাজনীতিতে আনা হল? ৭৪ শতাংশ মানুষ এই প্রশ্নের উত্তরে হ্যাঁ বলেছেন। ২১ শতাংশ মানুষ অবশ্য জানিয়েছেন, রাজনীতিতে আসতে দেরি হয়নি প্রিয়ঙ্কার।



প্রিয়ঙ্কার রাজনীতিতে নামার খবর সামনে আসার পর থেকেই একটি শিবির থেকে লাগাতার ব্যক্তিগত আক্রমণ করা হচ্ছে তাঁকে। সেই প্রশ্নটিও ছিল সমীক্ষায়। তাঁকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করলে বিজেপির ক্ষতি হবে কি না, এই প্রশ্নের উত্তরে ৭১ শতাংশ মানুষ জানিয়েছেন, ক্ষতি হবে বিজেপির। ২৩ শতাংশ মানুষ জানিয়েছেন বিজেপির কোনও ক্ষতি হবে না।



কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে পূর্ব উত্তরপ্রদেশের দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে প্রিয়ঙ্কা গাঁধীকে। এই অঞ্চলেই নরেন্দ্র মোদী, যোগী আদিত্যনাথ সহ একাধিক বিজেপি হেভিওয়েট প্রার্থীর কেন্দ্র। প্রিয়ঙ্কা আসায় উত্তরপ্রদেশে বিজেপির কোনও লাভ হবে কি না, সেই প্রশ্নের উত্তরে ৪৪ শতাংশ মানুষ বলেছেন লাভ হবে বিজেপির। ৫১ শতাংশ মানুষ জানিয়েছেন বিজেপির কোনও লাভ হবে না।



রাজনীতিতে প্রিয়ঙ্কা এলে কাদের উপর প্রভাব পড়বে, সেই প্রশ্নের উত্তরে ৫২ শতাংশ মানুষ জানিয়েছেন, এর ফলে বিজেপির জেতার সম্ভাবনা কমবে। বিজেপি মহাজোটের ক্ষমতার আসার সম্ভাবনা কমবে বলে জানিয়েছেন ৩২ শতাংশ মানুষ।

আরও পড়ুন: নেহরুর বুক পকেটে সবসময় থাকত গোলাপ। কেন জানেন?



প্রিয়ঙ্কা রাজনীতিতে আসায় উত্তরপ্রদেশ সহ সারা দেশে কংগ্রেস লাভবান হবে কি না , সেই প্রশ্নের উত্তরে ৫০ শতাংশ মানুষ জানিয়েছেন, সারা দেশেই লাভবান হবে কংগ্রেস। ১৮ শতাংশ মানুষ জানিয়েছেন শুধু উত্তরপ্রদেশে লাভবান হবে কংগ্রেস।



প্রিয়ঙ্কা আসার পর কাকে ভোট দেবেন, এই প্রশ্নের উত্তরে ৩৮ শতাংশ মানুষ বিজেপির পক্ষে রায় দিয়েছেন। ৩৩ শতাংশ মানুষ মহাজোটের পক্ষে এবং কংগ্রেসের পক্ষে রায় দিয়েছেন ১৮ শতাংশ মানুষ।



সর্বশেষ প্রশ্ন ছিল, প্রিয়ঙ্কার প্রধানমন্ত্রী হওয়ার যোগ্যতা আছে কিনা। সেই প্রশ্নের উত্তরে ৫৬ শতাংশ মানুষ তাঁকে প্রধানমন্ত্রী পদের যোগ্য মনে করেন বলেছেন। অন্য দিকে ২৯ শতাংশ মানুষ জানিয়েছেন, প্রিয়ঙ্কা আদৌ প্রধানমন্ত্রী পদের যোগ্য নন।



জানুয়ারির শেষ সপ্তাহে উত্তরপ্রদেশে এই সমীক্ষা চালিয়েছিল এবিপি নিউজ-সিভোটার। ছয় হাজারেরও বেশি মানুষ এই সমীক্ষায় তাঁদের মত দিয়েছেন। আগামী ১১ ফেব্রুয়ারি আনুষ্ঠানিক ভাবে কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্বভার নিচ্ছেন প্রিয়ঙ্কা। তার ঠিক আগেই এই সমীক্ষার ফল নিঃসন্দেহে কংগ্রেস হাইকম্যান্ডের মুখ উজ্জ্বল করবে।

(ভারতের রাজনীতি, ভারতের অর্থনীতি- সব গুরুত্বপূর্ণ খবর জানতে আমাদের দেশ বিভাগে ক্লিক করুন।)

আরও পড়ুন

Advertisement